1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে ফেরত নেয়ার আহ্বান

বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ফিরিয়ে নেয়ার জন্য মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট থেইন সেইনকে আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ তবে বিশ্লেষকরা মনে করেন, বাংলাদেশকে মানবিক দিকটাও বিবেচনায় নিতে হবে৷

বিমস্টেক সম্মেলনে যোগ দিতে গিয়ে মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোর প্রেসিডেন্ট প্যালেসে সোমবার দুপুরের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার এই আহ্বান জানান৷ জবাবে মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট বলেন, শরণার্থীর বিষয়টি উভয় দেশের দ্বি-পাক্ষিক সমস্যা৷ দ্বি-পাক্ষিক আলোচনার মধ্য দিয়ে নিজেদেরই এর সমাধান করা সম্ভব৷ প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমরের রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বাংলাদেশকে অর্থনৈতকসহ নানা সমস্যায় ফেলছে৷ তাই মাতৃভূমিতেই তাঁদের ফিরে যাওয়া প্রয়োজন৷

বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিল জানান, রোহিঙ্গা সমস্যা ছাড়াও দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ককে আরো জোরদার করার কথাও হয়েছে৷

Myanmar Rohingya Flüchtlinge

রোহিঙ্গা শরণার্থীরা...

মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, তাঁর দেশের ব্যবসায়ীদেরও বাংলাদেশে বিনিয়োগের আগ্রহ আছে৷ দুই নেতা ইস্ট-ওয়েস্ট করিডোর ও আন্তঃদেশীয় যোগাযোগ নিয়ে কথা বলেছেন বলেও প্রকাশ৷

এছাড়া মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সু চির সঙ্গে প্রথমবারে মতো বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ সোমবার দুপুরে মিায়ানমারের পার্লামেন্ট ভবনে গেলে দেশটির বিরোধী দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসির চেয়ারম্যান, শান্তিতে নোবেল জয়ী সু চি তাঁকে আলিঙ্গনে বরণ করে নেন৷ আধ ঘণ্টার বৈঠক শেষে হাত ধরে শেখ হাসিনাকে গাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেন মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থি এই নেত্রী৷

ওদিকে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার আহ্বানের ব্যাপারে ঢাকায় রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. শান্তনু মজুমদার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ব্যাপারে আমাদের মানবিক হতে হবে৷''

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে তাঁর অবস্থান জানিয়েছেন৷ রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে বলেছেন৷ কিন্তু মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানরা নানা নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছেন৷ তাঁরা দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন৷ তাই এর মানবিক দিকটিও অনেক বড়৷''

তাই শান্তনু মজুমদার মনে করেন, রোহিঙ্গাদের ব্যাপরে রাষ্ট্রের অবস্থান এবং মানবিকতা এই দু'টি বিষয়কে বিবেচনায় নিয়েই বাংলাদেশকে তার অবস্থান নিতে হবে৷ তিনি বলেন, এ জন্য মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কেও সম্পৃক্ত করে একটি গ্রহণযোগ্য সমাধানে পৌঁছাতে হবে মিয়ানমারকে৷

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে এখন নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থী ৩০ হাজার৷ কিন্তু এর বাইরে আরো ২ লাখের বেশি অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থী রয়েছে বাংলাদেশে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়