1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

রোহিঙ্গাদের পাশে কেউ নেই

বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র আঘাতে ক্ষতিগ্রস্থ রোহিঙ্গা শরণার্থী পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর যেন কেউ নেই৷ ঝড়ের আগে তাঁদের আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হয়নি৷ ঝড়ের পরেও তাঁদের জন্য নেই কোনো ত্রাণ সহায়তা৷ জেলা প্রশাসনের নেই কোনো উদ্যোগ৷

ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র আঘাতে বাংলাদেশে অন্তত আট জন নিহত হয়েছে৷ আট জনের মধ্যে কক্সবাজারের পাঁচ জন, রাঙামাটির দুই জন এবং ভোলার একজন৷ তবে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত জেলা কক্সবাজার৷ এই জেলার অনেক এলাকা লন্ডভন্ড হয়ে গেছে৷

এই কক্সবাজারে দু’টি নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পসহ আরো কয়েকটি অনিবন্ধিত ক্যাম্প রয়েছে৷ বাংলাদেশ সরকারের সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী, এখন এখানে মোট রোহিঙ্গা শরণার্থী সাড়ে তিন লাখ৷ তবে নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থী ৩০ হাজার৷ শরণার্থীদের ঘরগুলো হাল্কা বাঁশ-কাঠ, টিন এবং পলিথিনের তৈরি বলে মঙ্গলবারভোরের ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র আঘাতে অধিকাংশই টিকে থাকতে পারেনি৷

অডিও শুনুন 01:13

আমরা এখন পলিথিনের ছাউনি দিয়ে কোনোভাবে আছি: শরণার্থী ক্যাম্পের চেয়ারম্যান

কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পের চেয়ারম্যান আবু  সিদ্দিক মাঝি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমাদের অবস্থা এখন খুবই খারাপ৷ আমাদের ক্যাম্পে ১৩ হাজার ৭ শ'র মতো ঘর ছিল৷ বলতে গেলে সব ঘরই কোনো-না-কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ আমরা এখন পলিথিনের ছাউনি দিয়ে কোনোভাবে আছি৷’’

তিনি জানান, ‘‘ঝড়ের আগেও আমাদের কোনো আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়ার ব্যবস্থা করা হয়নি৷ ঝড়ের পরেও আমাদের সহায়তা করতে কেউ আসেনি৷ স্থানীয় প্রশাসন বা জনপ্রতিনিধি কেউ না৷’’

একই ক্যাম্পের মোহাম্মদ ইউনূস আরমান জানান, ‘‘ঝড়ে নারী ও শিশুসহ অনেকে আহত হয়েছে৷ তাদের মধ্যে ১৫-২০ জনকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে৷ তাদের ঠিকমতো চিকিৎসাও হচ্ছে না৷  কুতুপালং এবং অনিবন্ধিত বালু ক্যাম্পের অবস্থা খুবই খারাপ৷ নোয়াপাড়া ক্যাম্পে ক্ষতি কিছুটা কম হয়েছে৷’’

অডিও শুনুন 03:17

যারা নতুন শরণার্থী হিসেবে এসেছে তাদের অবস্থা খুবই খারাপ: ইউনূস আরমান

মোহাম্মদ ইউনূস আরমান জানান, ‘‘ঝড়ে প্রায় দুই হাজার ঘর উড়ে গেছে৷ আর প্রত্যেকটি পরিবারই কোনো-না-কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ আর যারা শরণার্থী হিসেবে নতুন এসেছে, তাদের অবস্থা খুবই খারাপ৷ কারণ, তারা কোনোভাবে চালা তুলে বালু ক্যাম্পে ছিলেন৷ তাদের সব কিছু উড়ে গেছে৷’’

ডয়চে ভেলেকে তিনি আরো বলেন, ‘‘ঝড় শুরুর আগে তাদের  কিছু পলিথিন পেপার দেয়া হয়েছিল৷ কিন্তু তাতে কাজ হয়নি৷ পলিথিন পেপার দিয়ে কি আর ঝড় মোকাবেলা করা যায়?’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার সুযোগ নেই৷ সে সুযোগ তাদের দেয়া হয়নি৷ তাদের স্থানীয় স্কুল ঘরে আশ্রয় নিতে বলা হয়েছিল৷ কিন্তু স্কুল ঘরগুলো দুর্বল৷ সেগুলো আগেই ভেঙ্গে যায়, উড়ে যায়৷’’

ইউনূস আরমান দাবি করেন, ‘‘কোথাও থেকে আমরা কোনো সহায়তা পাচ্ছি না৷ আমি আমার ফেসবুকের মাধ্যমে কিছু ছবি, ভিডিও এবং তথ্য তুলে ধরছি, সহায়তার আশায়৷’’

অডিও শুনুন 00:57

জেলা প্রশাসক আমাকে বলেছেন রোহিঙ্গাদের বিষয় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো দেখবে: সাংবাদিক আব্দুল আজিজ

এদিকে কথা বলার জন্য বারবার টেলিফোন করেও কক্সবাজরের জেলা প্রশাসক আলী হোসেনের কাছ থেকে সময় আদায় করা যায়নি৷ তিনি মিটিংয়ের ব্যস্ততার কথা বলে অপারগতা প্রকাশ করেন৷ তবে স্থানীয় সাংবাদিক আব্দুল আজিজ জানান, জেলা প্রশাসক তাঁকে বলেছেন , ‘‘রোহিঙ্গাদের বিষয়টি আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো দেখবে৷’’ আব্দুল আজিজ ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘কক্সবাজারের কুতুপালং, নোয়াপাড়া, লেদা উখিয়া, টেকনাফ শরণার্থী ক্যাম্পগুলোর কোনো ঘরই বলতে গেলে আর দাঁড়িয়ে নেই৷ তাঁরা এখন মানবেতর জীবন যাপন করছেন৷ কোনো এনজিও বা স্থানীয় প্রশাসন এখনো তাঁদের সহায়তায় এগিয়ে যায়নি৷ জেলা প্রশাসক আমাকে বলেছেন, রোহিঙ্গাদের বিষয় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো দেখবে৷’’

প্রিয় পাঠক, আপনি কিছু বলতে চাইলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে...

‘মোরা’ নিয়ে আমাদের মঙ্গলবারের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও