1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

রোহিঙ্গাদের পাঠানো হবে ঠেঙ্গার চরে!

কক্সবাজারে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের নোয়াখালীর হাতিয়ার ঠেঙ্গার চরে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার৷ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘‘এরা অস্থায়ী ভিত্তিতে সেখানে থাকবে৷ আমরা চাই দ্রুত তাদের ফেরত নিক মিয়ানমার৷''

তবে রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্টস  রিচার্স ইউনিট (রামরু)-এর প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যাপক ড. সিআর আবরার সরকারের এই সিদ্ধান্তকে পুনর্বিবেচনার অনুরোধ করেছেন৷

হাতিয়ার ওই দ্বীপে রোহিঙ্গাদের নেয়ার আগে সরকার বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ‘ডাটাবেজ' তৈরির উদ্যোগ নেবে৷ আগামী তিনমাসের মধ্যে তা ডাটাবেজ তৈরি হবে বলে আশা করা হচ্ছে৷

ডাটাবেজ তৈরির প্রক্রিয়া সম্পর্কে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘‘কক্সবাজারের রোহিঙ্গারা বাঙ্গালি সমাজের সাথে মিশে গেছে৷ তাই রোহিঙ্গাদের নির্দিষ্ঠভাবে চিহ্নিত করার জন্য স্থানীয় কমিটি করা হয়েছে এবং তাদের চিহ্নিত করা হবে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায়৷ ডাটাবেজ প্রস্তুত হয়ে গেলে মিয়ানমার সরকারের সাথে অথবা বিদেশি রাষ্ট্র বা সংস্থার সাথে কাজ ও কথা বলার সময়ে সুবিধা হবে৷''

শাহরিয়ার আলম জানান, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করে মিয়ানমারের অবৈধ নাগরিকদের হাতিয়ার ঠেঙ্গার চরে অস্থায়ী ক্যাম্পে পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে৷ সেনাবাহিনীর সহায়তায় ঠেঙ্গার চরে কাঠামো তৈরি করার কাজ চলছে৷'' তবে তিনি মনে করেন এ কাজে কিছুটা সময় লাগবে৷

জানা গেছে, কক্সবজারের কুতুপালং ক্যাম্পের ধারণ ক্ষমতা ৩০ হাজার৷ কিন্তু সেখানে বাস করে তিন লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা৷ এর ফলে কক্সবাজার ও উখিয়াতে পরিবেশ বিপর্যয় হচ্ছে এবং সামাজিক, প্রাকৃতিক, স্বাস্থ্যগত সেবা দেয়া সম্ভব হয় না৷

কবে নাগাদ রোহিঙ্গাদের ঠেঙ্গার চরে পাঠানো শুরু হতে পারে৷ এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘‘ ঠেঙ্গার চরে রোহিঙ্গা পাঠানোর কাজ শুরু করতে সময় লাগবে৷ কিন্তু নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে এবং এ লক্ষ্যে আমরা কাজ করবো৷ তারা অস্থায়ী ভিত্তিতে সেখানে থাকবে এবং আমরা চাইবো মিয়ানমার সরকার যত দ্রুত সম্ভব তাদের ফেরত নেবে৷''

গত বছর জরিপ চালিয়ে দেখা গেছে বাংলাদেশে প্রায় তিন লাখ কম অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা আছে৷ এবং ৩০ হজারের বেশি নিবন্ধিত রোহিঙ্গা আছে শুধু কক্সবাজারের কুতুপালং ক্যাম্পে৷ গত অক্টোবরের পর থেকে ৭০ হাজারে মতো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে৷

অডিও শুনুন 02:13

‘এটা বিশাল আয়োজন এবং খরচের ব্যপার’

তবে রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্টস রিচার্স ইউনিট  (রামরু)-এর প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যাপক ড. সিআর আবরার সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সুচিন্তিত মনে করেন না৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এর আগেও সরকার এরকম একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে সেখান থেকে সরে আসে৷ কিন্তু নতুন করে এমন কী হলো যে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কক্সবাজার থেকে ঠ্যাঙ্গার চরে নিতে হবে? এটা বিশাল আয়োজন এবং খরচের ব্যপার৷ যদি আন্তর্জাতিক সহায়তা না পওয়া যায়, তাহলে সরকার কি এটা পারবে?''

তিনি বলেন, ‘‘ওই চর এলাকায় কোনো বসতি নেই৷ শরাণার্থীদের যদি ঠেঙ্গার চরে নেয়া হয়, তাহলে তাদের জীবিকার কী হবে? তাদের সব খবরচ কী সরকার বহন করবে? আর তারা একটি এলাকায় অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে৷ নতুন এলাকায় গিয়ে তারা খাপ খাওয়াবে কীভাবে? আসলে এটা একটা অবাস্তব চিন্তা বলে আমার কাছে মনে হয়েছে৷ সরকারের উচিত এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা৷''

নোয়াখালীর সাংবাদিক রনজিৎ চন্দ্র কুরী ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ঠেঙ্গার চর এলাকার ওই দ্বীপটি হাতিয়া থেকেও বিচ্ছিন্ন৷ সেখানে তেমন জনবসতি নেই৷ এক বছর আগে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে ওই চরে প্রাথমিক জরিপের কাজ হয়৷ এখন সেনাবাহিনীর একটি দল সেখানে কাজ করছে৷

বন্ধু, সরকারের এই সিদ্ধান্তকে কি আপনি সমর্থন করেন? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়