1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

রোবট যখন পোর্ট্রেট আঁকে

ধরুন একটি স্টুডিওতে বসে আছেন, আর আপনার পোর্ট্রেট আঁকছে পাঁচটি রোবট৷ তাদের একচোখো ক্যামেরা, মানে এক ক্যামেরার চোখ দিয়ে আপনাকে ধীরস্থিরভাবে দেখছে আর আঁকছে তারা...৷

একটি ড্রয়িং ক্লাসের আঁকা ছবি৷ কিন্তু কোনো সাধারণ আঁকার ক্লাস নয়৷ এ ক্লাসের সব ছাত্রই রোবট৷ এই আঁকিয়ে যন্ত্রগুলোকে নিয়েই বার্লিনের ডিক্সিট আলগোরিৎসমি আর্ট গ্যালারিতে একটি ইনস্টলেশন রাখা হয়েছে৷ ইনস্টলেশনটির নাম ‘পল নামের পাঁচটি রোবোট', কেননা, প্রতিটি রোবোটের নামই ‘পল'৷ সব ‘পল'-এরই আছে একটি করে চোখ, অর্থাৎ ক্যামেরা – এবং একটি করে আঁকার ‘হাত'৷

ডিক্সিট আলগোরিৎসমি আর্ট গ্যালারির পেটার-ব্রাউন হিমেরিশ বলেন, ‘‘পুরোটাই সাবেক অর্থে আঁকার ক্লাস, যেখানে পাঁচজন ছাত্র আঁকা শিখছে৷ আসলে তারা রোবট৷ আঁকার ক্লাসের ‘ছাত্রদের' আঁকার ক্ষমতায় ফারাক আছে,  কিন্তু তারা সবাই অখণ্ড মনোযোগের সঙ্গে ছবি এঁকে থাকে৷''

ভিডিও দেখুন 04:27

যেভাবে প্রতিকৃতি আঁকে রোবট

ছবি আঁকছে ‘পল'

ওদের প্রত্যেকের আঁকার ধরনও আলাদা৷ একজন ‘পল' যদি বাস্তবধর্মী আঁকে, তো আরেকজনের স্কেচগুলি প্রধানত বিমূর্ত – প্রায় বিষাদপূর্ণ বলা চলে৷

একটি পোর্ট্রেট সেশনে লাগে মোট ৩০ মিনিট৷ কিন্তু অন্য সব আঁকার স্কুলের মতো এখানেও কোনো ছাত্রের আঁকা আগেই শেষ হয়ে যায়, কারো হয়ত আবার একটু বেশি সময় লাগে৷

পোর্ট্রেট মডেল টর্স্টেন প্লাৎস বললেন, ‘‘বেশ মজা লেগেছে, কেননা, এই ছোট ছোট যন্ত্রগুলো শুধু যে কাজ করেছে, শুধু তাই নয়, বরং দেখেছেও বটে: আমাকে দেখেছে, তারপর আবার তাদের ড্রয়িংয়ের দিকে তাকিয়েছে৷ আমি এটা প্রত্যাশা করিনি৷ ওটা একটা খুব মজার ব্যপার, খুব মজার অভিজ্ঞতা৷''

শিল্পী হতে গিয়ে রোবটের আবিষ্কর্তা

লন্ডন ইউনিভার্সিটির গোল্ডস্মিথস কলেজে এই আঁকিয়ে রোবটগুলিকে সৃষ্টি করা হয়৷ তাদের আবিষ্কারক পাত্রিক ত্রেসে৷ ত্রেসে ফরাসি৷ শিল্পকলা ও প্রযুক্তি, ত্রেসে চিরকালই এ দু'টি ব্যাপারে আগ্রহী৷ তথ্য-প্রযুক্তি নিয়ে পড়াশুনো করার পর তিনি ছবি আঁকা শুরু করেন৷

একটি মানসিক রোগের চিকিৎসার সময় হঠাৎ নিজের হাতে আঁকার ইচ্ছে চলে যায় ত্রেসের – জানালেন তিনি৷ কাজেই আঁকার কাজটা আজ তিনি রোবটদের হাতেই ছেড়ে দেন৷ কিন্তু তাই বলে তাঁর কাছে রোবটরা কিছু স্বাধীন, নিরপেক্ষ শিল্পী হয়ে ওঠেনি৷

শিল্পী ও বিজ্ঞানী পাত্রিক ত্রেসে বললেন, ‘‘সব কিছুতেই তো কম্পিউটার টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়৷ শিল্পকলাতেই বা হবে না কেন? রোবটদের ব্যাপারটা একটু স্পেশাল হলেও, এমনিতেই বহু শিল্পী নানান ভাবে কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকেন৷ কম্পিউটার তো শুধু একটা কাজের জিনিস৷''

পাত্রিক ত্রেসে আজও নিজেকেই এই প্রতিকৃতিগুলির আঁকিয়ে মনে করেন৷ তিনি হয়ত ব্যক্তিগতভাবে সেগুলো আঁকেননি, কিন্তু এই যন্ত্রগুলি তাঁর শিল্পীসত্তার অঙ্গ৷ ত্রেসে বললেন, ‘‘ব্যাপারটা জটিল, কেননা, ওরা আমার কাছে যন্ত্র, সব প্রোগ্রাম করা৷ অন্যদিকে ওরাই আমার ক্যারিয়ার তৈরি করে দিয়েছে৷ কাজেই ওরা এক ধরনের আত্মপ্রতিকৃতিও বটে৷ আমার আর রোবটগুলোর সম্পর্ক বেশ জটিল৷ কিন্তু আমার কাছে ওরা পুতুলও বটে, এমন সব পুতুল যারা অধিকাংশ সময় ঠিক আমি যা চাই, তা-ই করে৷''

আর্ট গ্যালারিতে

বার্লিন৷ আঁকিয়ে রোবটরা এখানে একটি আর্ট গ্যালারিতে সাজানো রয়েছে৷ পাত্রিক ত্রেসেরও একাধিক পোর্ট্রেট টাঙানো রয়েছে – পাঁচ ধরনের অঙ্কণশৈলীতে৷ তারপরও চেনা যায়, অন্তত আংশিকভাবে৷

তবে রোবটরা যে সব কিছু আঁকতে পারে, এমন নয়৷ হিমেরিশ বললেন, ‘‘আমি ঐ পাঁচটি রোবটকে দিয়ে আমার কুকুরের পোর্ট্রেট আঁকানোর চেষ্টা করেছি৷ কিন্তু কুকুরটাকে চেয়ারে বসানো সত্ত্বেও রোবটরা আঁকাই শুরু করেনি৷ তার কারণ সম্ভবত এই যে, ওরা শুধু মানুষের মুখ চিনতে জানে৷ কাজেই ওরা কুকুর দেখে চিনতে পারেনি, ছবিও আঁকেনি৷''

শুধু মানুষের প্রতিকৃতি হলেও, খারাপ আঁকেনি কিন্তু রোবটরা৷

যন্ত্ররা জীবনের বহু দিকে ও বিভাগে মানুষের জায়গা নিয়ে নিচ্ছে৷ তাহলে ছবিই বা আঁকবে না কেন?

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও