1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

রেয়াল ছেড়ে যেন সুদিনে ফিরছেন মুরিনিয়ো

বার্সেলোনাকে সময়ের সবচেয়ে সফল ক্লাবের মর্যাদায় রেখে বায়ার্নে যোগ দিয়েছেন গুয়ার্দিওলা৷ ভালো নেই তিনি৷ অথচ রেয়াল মাদ্রিদকে কাঙ্খিত উচ্চতার কাছাকাছিও নিতে ব্যর্থ মুরিনিয়োর সময় কিন্তু দারুণ কাটছে চেলসিতে৷

জোসে মুরিনিয়ো সম্পর্কে ঠিক এ কথাই বলেছেন চেলসির অধিনায়ক জন টেরি৷ রেয়াল ছেড়ে ইংল্যান্ডের এই ক্লাবে এসেই যেন পুরোনো চেহারায় ফিরে গেছেন মুরিনিয়ো৷ ২০০৫ এবং ২০০৬ – টানা দু মৌসুম তাঁর হাত ধরেই ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ জিতেছিল চেলসি৷ ২০০৮-এ মুরিনিয়ো গেলেন ইন্টারমিলানে, সঙ্গে সঙ্গে চেলসিও যেন হারিয়ে ফেলল পথ৷ শুধু ২০১০ মৌসুমে একবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তারা, বাকি তিনবার ব্যর্থ৷ মুরিনিয়ো ইটালির ইন্টার মিলানে গিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগও জিতিয়েছেন৷ তারপর স্প্যানিশ লিগে রেয়ালের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে তাঁরও সময় খুব একটা ভালো যায়নি৷ বার্সেলোনার দাপটের সামনে বড় বেশি ম্লান ছিল রেয়াল৷ ক্লাব কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিরোধ খুব বড় হয়ে ওঠার আগেই পুরোনো ক্লাব চেলসিতে ফিরেছেন এ মৌসুমে৷

বায়ার্ন মিউনিখে গিয়ে বার্সেলোনার সাবেক কোচ গুয়ার্দিওলা যেখানে বেশ চাপের মুখে, মুরিনিয়ো সেখানে খোশমেজাজে সময় কাটাচ্ছেন চেলসিতে৷ অধিনায়ক জন টেরি মনে করেন, মুরিনিয়োর ছোঁয়ায় চেহারাই বদলে যাচ্ছে চেলসির৷ টেরি জানিয়েছেন পর্তুগিজ কোচ আসায় দলে ফিরেছে একতা, ‘‘মনে হচ্ছে, আমরা সবাই খুব ফিট এবং একতাবদ্ধ৷ এখন যে কোনো প্রতিপক্ষের বিপক্ষে আমরা এক সঙ্গে ঝাঁপিয়ে পড়ি৷ জোসেই এ অবস্থা ফিরিয়েছে৷ ওকে আবার আমাদের মাঝে পেয়ে আমরা খুব খুশি৷''

মৌসুমের প্রথম দিকের খেলা চলছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে৷ চেলসির সমর্থকরা প্রিয় দলের পারফরম্যান্সে খুশি৷ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সঙ্গে ড্র করায় চেলসি উঠে এসেছে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে৷ জয়ের ধারা বজায় থাকলে লিভারপুলকে ছাড়িয়ে শীর্ষে ওঠাও সম্ভব৷ বার্সেলোনা ছেড়ে বায়ার্নে যোগ দিয়ে বেশ চাপের মুখে আছেন গুয়ার্দিওলা৷ সেই তুলনায় মুরিনিয়ো কিন্তু ভালোই আছেন৷

এসিবি/এসবি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন