1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

রুমাল যখন রোগ ধরার ল্যাব

রোগব্যাধি মানেই ডাক্তারের কাছে দৌড়ানো এবং সংক্রমণ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে ল্যাবে পরীক্ষা করানো৷ কিন্তু চটজলদি নিশ্চিত হতে পারলে দ্রুত চিকিৎসা শুরু করা সম্ভব৷ জার্মান বিজ্ঞানীরা এক সহজ উপায়ে সেই সমস্যার সমাধান করতে চলেছেন৷

কারও শরীরে মাল্টিরেজিস্টেন্ট জীবাণুর সংক্রমণ হয়েছে কিনা, ল্যাবে পরীক্ষা করলেই সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়৷ অথবা সালমোনেলা, হুপিং কাশি, কলেরার মতো রোগ৷ তবে পরীক্ষার ফল পেতে কয়েক দিন পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে৷ অর্থাৎ এই সময়কালে অসুস্থ রোগীর চিকিৎসা স্থগিত থাকে৷

সেই পরিস্থিতি বদলাতে চলেছে৷ ফ্রাউনহোফার ইনস্টটিটিউটের বিজ্ঞানীরা এমন এক দ্রুত পরীক্ষার পদ্ধতি সৃষ্টি করার কাজ করছেন, যার সাহায্যে কয়েক মিনিটের মধ্যেই বিপজ্জনক প্যাথোজেন শনাক্ত করা সম্ভব৷ প্রোফেসর ফ্রাংক বিয়ার বলেন, ‘‘রুমালের মধ্যে এই ল্যাবের পেছনে প্রৃকৃতিকে নকল করার একটা তাগিদ কাজ করেছে৷ শরীরে কোনো শত্রু প্রবেশ করলে অ্যান্টিবডি তৈরি করে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার যে ব্যবস্থা রয়েছে, আমরা সেটাই নকল করতে চেয়েছিলাম৷''

এর জন্য বিজ্ঞানীরা প্রথমে রোগের প্যাথোজেনের সারফেস খতিয়ে দেখেন৷ কারণ প্রত্যেক প্যাথোজেনের নির্দিষ্ট এক সারফেস রয়েছে, অনেকটা আঙুলের ছাপের মতো৷ মানুষের শরীরে অ্যান্টিবডির মাধ্যমে জীবাণু শনাক্ত করা সম্ভব৷

ফ্রাউনহোফার ইনস্টিটিউটের প্রোফেসর ফ্রাংক বিয়ার বলেন, ‘‘এখানে আমরা একটি ভাইরাসের সঙ্গে এক বাইন্ডিং মলিকিউলের সংযোগ দেখতে পাচ্ছি৷ এই বাইন্ডিং মলিকিউল আমরা নকল করতে চাই৷ এর জন্য আমাদের সংযোগের সুনির্দিষ্ট মাপের প্রয়োজন, যাতে তালাচাবির মতো নিখুঁতভাবে খাপ খেয়ে যায়৷''

গবেষকরা তাই বাইন্ডিং মলিকিউল খুঁজছেন, অথবা নিজেরাই তৈরি করছেন৷ প্যাথোজেনের সারফেস খতিয়ে দেখে তাঁরা সংযোগের সঠিক স্থানটি খোঁজেন৷ বাইন্ডিং মলিকিউল যথেষ্ট শক্তিশালী কি না এবং প্যাথোজেনের জন্য বায়ো-সেন্সর হিসেবে উপযুক্ত কিনা, পরের পরীক্ষাগুলিতে তা বোঝা যায়৷ সঠিক পার্টনার পেতে ল্যাবে হাজার-হাজার মলিকিউল-প্যাথোজেন কম্বিনেশন পরীক্ষা করতে হয়৷ বায়ো-সেন্সর ও প্যাথোজেনের মধ্যে সংযোগ রংয়ের মাধ্যমে বোঝা যায়৷ প্যাথোজেন-এর অস্তিত্বের প্রমাণ হলে তা দৃশ্যমান হয়ে ওঠে৷

এই সব বায়ো-সেন্সর অণুগুলিকে এবার রুমালের তন্তুর উপর বসাতে হবে৷ সেটা করতে অণুগুলিকে অতি ক্ষুদ্র বিন্দুর মধ্যে পুরে ফেলতে হয় এবং সূক্ষ্ম টিউবের মাধ্যমে সেকেন্ডে ৫০০ বিন্দু তন্তুর উপর ছড়িয়ে দিতে হয়৷ ব্যস, রুমালের মধ্যে ল্যাব প্রস্তুত৷

বাস্তবে রুমাল কীভাবে রোগ শনাক্ত করতে পারে, মলিকিউলার বায়োলজিস্টরা তা দেখিয়ে দিতে পারেন৷ পরীক্ষার খাতিরে প্যাথোজেনের এক মিশ্রণ টেবিলের উপর লাগিয়ে দেওয়া হয়৷ রুমাল দিয়ে সেই জায়গাটি মুছে দিলে রং বদলে যায়৷ অর্থাৎ প্যাথোজেনের অস্তিত্ব স্পষ্ট হয়ে যায়৷ প্রোফেসর বিয়ার বলেন, ‘‘এই প্রক্রিয়ার সুবিধা হলো,

কোনো যন্ত্রপাতি ছাড়াই দ্রুত কাজে লাগানো যায়৷ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ল্যাব-কর্মী – এমনকি ল্যাব-এরও প্রয়োজন নেই৷ ঠিক কী ধরনের সংক্রমণ ঘটেছে, প্রায়ই দ্রুত সেটা জানার প্রয়োজন পড়ে৷ যেমন হাসপাতালে হাইজিন ম্যানেজমেন্টের ক্ষেত্রে, অথবা ডাক্তার অ্যান্টিবায়োটিক-এর প্রেসক্রিপশন দেবার সময়৷ তখন দ্রুত সঠিক সিদ্ধান্ত নেবার প্রয়োজন পড়ে৷''

আমাদের শরীরের মধ্যে যেমনটা ঘটে, এ ক্ষেত্রেও ঠিক সেভাবেই প্রমাণ পাওয়া যায়৷ টেবিলের উপর যে প্যাথোজেন রুমাল দিয়ে মোছা হলো, তা বায়ো-সেন্সরের সঙ্গে যুক্ত হয়ে সেখানে লেগে থাকে৷ তার ফলে যে ‘ক্যাসকেড রিয়্যাকশন' হয়, তার ফলে রুমালের রং নীল হয়ে যায়৷ প্রোফেসর ফ্রাংক বিয়ার বলেন, ‘‘অন্য অনেক ধরনের প্রমাণও দ্রুত পাওয়া যেতে পারে৷ যেমন মাদক দ্রব্য শনাক্ত করা অথবা খাদ্যের ক্ষেত্রে হাইজিনের মান নিশ্চিত করা ইত্যাদি৷ পরিষ্কার করার প্রয়োজন পড়লে সত্যি পরিষ্কার হয়েছে কিনা, তা জানতে হয়৷ কোনো সারফেসের উপর রুমাল চালিয়ে তখন দেখা যাবে পরিষ্কার হয়েছে কিনা৷''

এমন রুমাল-ল্যাব সবার নাগালে আসতে অবশ্যই বেশ কয়েক বছর সময় লাগবে৷ তবে কাগজ প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলি এখন থেকেই এমন ডায়াগোনিস্টিক পেপার তৈরির ক্ষেত্রে আগ্রহ দেখাচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়