1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

রুগেজিতে জলার নাম জীবন

রুয়ান্ডার রুগেজি জলাভূমির নৈসর্গিক দৃশ্য যেমন সুন্দর, তেমনই এলাকার মানুষদের বাঁচন-মরণের প্রশ্ন জড়িত এর সাথে৷ রুয়ান্ডার অর্থনীতিতেও রুগেজির গুরুত্ব আছে, কেননা এই পানি থেকেই নাকাতুরু জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের শক্তি আসে৷

ভিডিও দেখুন 05:27

জলাভূমির সাথে জড়িত বাঁচন-মরণের প্রশ্ন!

রুয়ান্ডার উত্তরে রুগেজি জলাভূমি প্রায় বিশ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে৷ ফ্রান্সিস মুসোকে হলেন এই এলাকার সবচেয়ে নামকরা পরিবেশ সংরক্ষণকারী৷ আইইউসিএন-এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার মুসোকে বলেন, ‘‘এই জলাভূমি জলকে ফিল্টার করে, জীববৈচিত্র্যের জন্য যা খুব জরুরি৷ আবার এই জলাভূমি থেকে বিভিন্ন নদীতে জল যায়৷ এছাড়া পাহাড়ের অন্যদিকে আরো দু'টি হ্রদের পানিও আসে এই জলাভূমি থেকে৷ নাতারুকা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের জলও আসে এই জলাভূমি থেকে৷ কাজেই এই জলাভূমি বাঁচানোটা খুব দরকার৷’’

এই জলাভূমিতে বহু বন্যপাখি বাসা বাঁধে, তাদের মধ্যে পাটকিলে রংয়ের ঝুঁটিওয়ালা সারস বা আইবিস পাখির মতো বিরল প্রজাতিও আছে৷ কিন্তু প্রকৃতি এখন চাপের মুখে৷ ডিম পাড়া থেকে শুরু করে বাচ্চা মানুষ করা পর্যন্ত, এ সব কাজের জন্য পাখিদের চাই নিরিবিলি পরিবেশ, নির্জনতা৷ মুসোকে জানালেন, ‘‘একটা বড় বিপদ হলো, মানুষজন লুকিয়ে-চুরিয়ে এখানে ঢুকে পড়ে, কেননা সব কিছু সুরক্ষিত করা, সব জায়গায় প্রহরী রাখা সম্ভব নয়৷ ওরা ঢুকে ঘাস কাটে, যা জলাভূমির পক্ষে ভালো নয়, কেননা এর ফলে রোদে-তাপে আরো বেশি জল উপে যায়৷ কিন্তু মাটির ক্ষয় আরো খারাপ৷ বর্ষায় ক্রমেই আরো বেশি মাটি ধুয়ে ভ্যালিতে নেমে আসে, কেননা পাহাড়ের ঢালগুলোকে বাঁচানোর মতো গাছ নেই৷’’

স্থানীয় বাসিন্দাদের ঘাস চাই তাদের গরুবাছুরের জন্য৷ এখনই ঘাস খুঁজে পাওয়া মুশকিল৷ পাহাড়ের ঢালগুলোয় আর গাছ নেই বললেই চলে৷ মাটি আর জল ধরে রাখতে পারে না, যা শুধু এই এলাকাতেই নয়, গোটা রুয়ান্ডাতেই একটা বিরাট সমস্যা৷ তার ফলে পানি, জলাভূমি, হ্রদ, সব কিছুই বিপন্ন হচ্ছে৷ ফ্রান্সিস মুসোকে নিয়মিত চাষিদের সঙ্গে দেখা করে সমাধান খোঁজেন, যদিও সহজ সমাধান বলে কিছু নেই৷ অপরদিকে এখানকার মানুষরাও জানেন যে, এভাবে চললে তাদের অস্তিত্বের সংকট দেখা দেবে৷ চাষি ইমাকুলে মাকানগারাম্বে বলেন, ‘‘বিশ বছর আগে এখানে বড় বড় গাছ ছিল, অনেক জঙ্গল ছিল৷ লোকে অনেক গাছ কেটে ফেলেছে৷ আজ তাদের রান্নার কাঠ দরকার, জনসংখ্যাও বেড়ে চলেছে৷ এখন এখানে জন্তুজানোয়ার প্রায় দেখাই যায় না৷’’

সমাধান

একটা সম্ভাবনা হলো পুনর্বনানীকরণ৷ নতুন গাছ লাগিয়ে মাটির ক্ষয় রোধ করা হবে, আবার তা মানুষেরও কাজে লাগবে৷ যেমন হ্যাজেল বাদামের ঝাড় বসিয়ে সেখানে সবজির চাষ করা চলে৷ বাদামগাছের ডালপালা গরুবাছুরের খাদ্য হতে পারে, কাজেই জলাভূমি থেকে ঘাস কাটার দরকার পড়বে না৷ মুসোকে জানালেন, ‘‘আগে লোকে ভাবত, গাছপালা বাগানের পক্ষে ভালো নয়; ভাবত, গাছ লাগালে তা তাদের ফলের গাছ, সবজির গাছ ইত্যাদির বাড় আটকে দিতে পারে৷ কিন্তু ক্রমে ক্রমে, বহু আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ওদের বোঝানো গেছে যে, গাছ লাগানো চাষবাসের পক্ষে উপকারী৷’’

প্রকৃতি সুরক্ষা সংগঠন আইইউসিএন ইতিমধ্যে পাঁচটি নার্সারিতে গাছের চারা বড় করছে, যেমন ইউক্যালিপ্টাস গাছের চারা৷ এই সব নার্সারিতে মানুষজন কাজ করছে৷ এভাবে চার লক্ষ গাছের চারা তৈরি করা সম্ভব হয়েছে৷ কিছু কিছু গাছ রাখা হবে, অন্যগুলো রান্নার কাঠ হবে৷ তবে গোটা এলাকাতে আরো বেশি করে গাছ লাগানো প্রয়োজন৷ নয়ত প্রকৃতির ‘জলচক্র' বিপন্ন হবে৷ জলবিদ্যুৎ রুয়ান্ডার পক্ষে ক্রমেই আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে৷ ইতিমধ্যে দেশের ৪০ শতাংশ জ্বালানি শক্তি আসে জলবিদ্যুৎ থেকে৷ বৃষ্টি না হওয়ার ফলে তাও বিঘ্নিত হচ্ছে৷ নাতাকুরু হাইড্রোপাওয়ার-এর ম্যানেজার জঁ তোয়াজামহোরো বললেন, ‘‘আজকাল জলের উচ্চতা আগের চেয়ে কম, কাজেই পাওয়ার স্টেশনটা চালানো আগের থেকে শক্ত হয়ে পড়েছে৷ জলাভূমি একটি নাজুক পরিবেশ প্রণালী৷ কিন্তু বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য আমাদের বিশেষভাবে পানির প্রয়োজন৷’’

জলাভূমি থেকে যে জলধারাগুলি আসে, তাদের আগের মতো বেগ নেই৷ কাজেই জলাভূমি রক্ষা করা আরো জরুরি হয়ে পড়েছে৷ মুসোকে বলেন, ‘‘আমি চাই যে, জলাভূমি বেঁচে থাকুক৷ জলাভূমি আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণ করে, জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রকে দেয় শক্তি৷ অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য আমাদের পানি চাই৷ ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্যও এই পরিবেশ প্রণালীকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে৷’’

রুগেজি জলাভূমি রুয়ান্ডার একটি গুরুত্বপূর্ণ পানির আধার এবং ভবিষ্যতেও তা থাকবে৷

ইউলিয়া হেনরিশমান/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়