1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

রিয়েলিটি শো করে সমালোচনার মুখে জার্মান সেনাবাহিনী

জার্মানিতে শুরু হয়েছে নতুন এক ওয়েব রিয়েলিটি সিরিজ৷ ধারাবাহিকটি সেনাবাহিনীকে নিয়ে তৈরি৷ ১৭ লাখ ইউরো ব্যয়ে এই রিয়েলিটি শো করে জার্মান সেনাবাহিনী এখন তীব্র সমালোচনার মুখে৷

Bundeswehr Soldaten Rekruten (Getty Images/A.Rentz)

জার্মান সেনাবাহিনীতে নিয়োগ পাওয়া নতুন সদস্যরা পোশাক পরছেন

সমালোচকরা বলছেন, এটা স্রেফ অর্থের অপচয়৷ তাঁদের মতে, এই টাকা দিয়ে অনেক ভালো কিছু করা যেতো৷

চলতি নভেম্বর মাস থেকেই শুরু হয়েছে জার্মান সেনাবাহিনীর তৈরি ওয়েব রিয়েলিটি শো ‘দ্য রিক্রুটস'৷ প্রচার শুরুর আগে ট্যাগলাইনে বলা হয়েছে, ‘‘নভেম্বরে শুরু হচ্ছে, দিনগুলো দীর্ঘ হবে৷'' ধারবাহিকটি যে শিগগিরই শেষ হচ্ছে না, সেটাই বোঝানো হয়েছে এভাবে৷ ১৭ লাখ ইউরো, অর্থাৎ প্রায় ১৯ লাখ ডলার খরচ করে তৈরি করা হয়েছে এই ধারাবাহিক৷ এত ব্যয়বহুল ধারাবাহিক শুরু হয়েই শেষ হয়ে গেলে কি চলে? সুতরাং ইউটিউবে বেশ কিছুদিনই দেখা যাবে এই ধারাবাহিক৷

Promotion Bundeswehr The Recruits (Bundeswehr )

রিয়েলিটি শো’র পোস্টার

ধারাবাহিকটিতে কাজ করেছেন ১০ জন তরুণ আর দু'জন তরুণী৷ তাঁরা জার্মানির উত্তরের একটি জায়গায় গিয়ে তিন মাস ধরে সেনা প্রশিক্ষনের বিভিন্ন ধাপ পেরিয়েছেন৷ নানা ঘটনার ফাঁকে ফাঁকে ভীষণ কষ্টদায়ক সেই প্রশিক্ষণপর্বই ধারণ করা হয়েছে ক্যামেরায়৷ সম্প্রতি প্রিমিয়ারও হয়েছে ধারাবাহিকটির৷ সেখানে বলা হয়েছে, ‘তরুণরা যেভাবে সেনাসদস্য হয়' তা দেখানোর জন্যই নির্মাণ করা হয়েছে এই ওয়েব রিয়েলিটি সিরিজ৷

‘তরুণরা যেভাবে সেনাসদস্য হয়' তা দেখানোর আসল উদ্দেশ্য সেনাবাহিনীর প্রতি তরুণ সমাজকে আরো আগ্রহী করে তোলা৷ সম্প্রতি জার্মানির প্রতিরক্ষামন্ত্রী উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন জানিয়েছেন, ২০২৩ সালের মধ্যে জার্মান সেনাবাহিনীতে আরো অন্তত ১৪,৩০০ সৈন্য বাড়াবে৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও মনে করেন, জার্মানির এখন সেনাবাহিনীর দিকে নজর দেয়ার সময় এসেছে৷ তাঁর সঙ্গে একমত হয়ে কিছুদিন আগে চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল জানিয়েছেন, জার্মানির সামরিক খাতের বাজেট ৩৯ দশমিক ২ বিলিয়ন ইউরো থেকে বাড়িয়ে আগামী ২০২০ সালের মধ্যে ৬০ বিলিয়ন ইউরো করা হবে৷

তাই বলে সামরিক বাহিনীর এমন একটি ওয়েব রিয়েলিটি সিরিজকে জার্মানির অনেক রাজনীতিবিদই মেনে নিতে পারছেন না৷ সামাজিক গণতন্ত্রী দলের নেতা হান্স-পেটার বার্টেলস মনে করেন, সেনাবাহিনীতে অনেক সামরিক সরঞ্জামের ঘাটতি রয়েছে, সেগুলো না কিনে রিয়েলিটি শো করার কোনো মানেই হয় না৷

বামপন্থি দলের পেটার রিটনার বলেছেন, ‘‘বিদেশে গিয়ে মৃত্যুবরণ করার জন্য বিজ্ঞাপন প্রচারের কোনো দরকার নেই আমাদের৷''

ব্রান্ডন কনরাডিস/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়