1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

রিজার্ভ চুরি: উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে মামলা হতে পারে

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র মামলা করতে পারে বলে জানিয়েছে মার্কিন দৈনিক ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল৷ বাংলাদেশের তদন্তকারীরা বিষয়টি অবগত আছেন বলে জানিয়েছেন৷

ছয়মাস আগে উত্তর কোরিয়ার হ্যাকারদের জড়িত থাকার বিষয়টি স্পষ্ট হয় বলে বাংলাদেশের তদন্ত কর্মকর্তাদের একজন ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন৷

ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল-এর খবরে বলা হয়েছে, মামলাটি দায়ের করা হলে উত্তর কোরিয়ার হ্যাকারদের সহযোগিতাকারী চীনা মধ্যস্বত্বভোগীকেও আসামি করা হতে পারে৷

তদন্তের বিষয়বস্তু সম্পর্কে জানেন এমন একজন কর্মকর্তা রয়টার্সকে বলেন, ‘‘লস অ্যাঞ্জেলস ও নিউ ইয়র্কের এফবিআই-এর তদন্ত কর্মকর্তারা মনে করেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির জন্য উত্তর কোরিয়া দায়ী৷’’ তবে এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের জাস্টিস ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন৷ নিউইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভের পক্ষ থেকেও মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানানো হয়৷

এদিকে ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, ‘‘সম্ভাব্য এ মামলায় উত্তর কোরিয়ার কর্মকর্তাদের আসামি করা নাও হতে পারে৷ তবে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হতে পারে৷’’ এর মধ্য দিয়ে সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র বিদেশি একটি সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনবে৷

এবিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকায় রিজার্ভ চুরির মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির অ্যাডিশনাল এসপি রায়হান উদ্দিন খান ডয়চে ভেলের কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো মন্তব্য করেননি৷ তিনি জানান, ‘‘আমি ঠিক জানিনা এফবিআই উত্তর কোরিয়ার ব্যাপারে কী বলেছে৷ না জেনে মন্তব্য করা ঠিক হবেনা৷’’

অডিও শুনুন 01:11

‘আমাদের সঙ্গে এফবিআই-এর লিয়োজোঁ আছে’

তবে এই মামলার তদন্তের তদারকির সঙ্গে যুক্ত সিআইডি'র বিশেষ পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ হেল বাকী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরি হয়েছে নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ থেকে৷ আমাদের এখান থেকে নয়৷ তাই এফবিআই শুরু থেকেই তদন্ত করছে৷ ছয় মাস বা তারো কিছু বেশি সময় আগে তাদের পর্যবেক্ষণে দেখা যায় হ্যাকিং-এ যে সফটওয়ার ব্যবহার করা হয়েছে উত্তর কোরিয়ার একটি গ্রুপ তা ব্যবহার করে৷ ফলে তাদের বিষয়টিও তদন্তে নেয়া হয়৷’’

তিনি জানান, ‘‘এফবিআই-এর একজন ইনভেস্টিগেটর শুনানিতে উত্তর কোরিয়ার জড়িত থাকার সন্দেহের কথা বলেছেন৷ এব্যাপারে আমাদের সঙ্গে তথ্য বিনিময় হয়েছে৷’’

সিআইডির ঐ কর্মকর্তা আরো জানান, ‘‘আমাদের সঙ্গে তদন্ত নিয়ে এফবিআই-এর লিয়োজোঁ আছে৷ আমরাও অফিসিয়ালি তথ্য এবং ব্যবস্থার জন্য কয়েকটি দেশে চিঠি লিখেছি৷ আর উত্তর কোরিয়ার বিষয়টির জন্য আমরা অপেক্ষা করছি৷’’

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি নিয়ে উত্তর কোরিয়ার সংশ্লিষ্টতা জানতে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র শুভঙ্কর সাহার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া সম্ভব হয়নি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়