1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

রাস্তার খাবার বিক্রেতাদের পরিচ্ছন্নতার শিক্ষা

ঢাকার ফুচকা, চটপটি, ঝাল মুড়ি, ভাপা পিঠা, কলকাতার আলু-কাবলি বা দিল্লির পানি পুরি – এগুলোর স্বাদ নেননি এমন মানুষ পাওয়া দুষ্কর৷ তবে এবার, এই সব খাবার যাতে শুধু সুস্বাদু না স্বাস্থ্যসম্মতও হয়, তারই দিকে নজর দিচ্ছে ভারত৷

কেবল কলকাতা নয়, পুরো ভারত জুড়েই রাস্তার পাশে প্রচুর খাবারের দোকান দেখা যায়৷ ছোট ছোট ভ্যান বা মাথায় ঝুড়ি নিয়েও অনেকে খাবার বিক্রি করেন৷ রাস্তার খাবারের জনপ্রিয়তা যে, অন্য যে কোনো খাবারের চেয়ে বহুগুণ বেশি – তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ লাখ লাখ মানুষের জীবিকা নির্ভর করে এই পেশার উপর৷ অনেক সময় এ সব খাবার তৈরিতে পরিচ্ছন্নতা এবং বিশুদ্ধ পানির ব্যবহারের অভাব দেখা যায়৷ যার ফল, নানা পানিবাহিত রোগ, যেমন ডায়রিয়া, টাইফয়েড ও জন্ডিস৷

এ কারণেই সম্প্রতি রাস্তার দোকানের এই বিক্রেতাদের খাবার তৈরিতে পরিচ্ছন্নতা শিক্ষা দেয়ায় উদ্যোগ নিয়েছে ভারতের কর্তৃপক্ষ৷ যেমন, টয়লেট ব্যবহারের পর হাত পরিষ্কার করা, খাবারের উপর হাঁচি না দেয়া এবং অবশ্যই নাক না খোটে৷

রাজধানী নতুন দিল্লিতে ডাল মাখনি বিক্রেতা তেজিন্দর সিং জানালেন, বেশিরভাগ রাস্তার দোকানি পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে খুঁতখুঁতে না৷ তাই তাঁদের এ বিষয়ে শিক্ষা দেয়া প্রয়োজন৷

খাদ্যের নিরাপত্তা ও পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে গত অক্টোবর মাস থেকে তেজিন্দরসহ ৫০০ খাবার বিক্রেতাকে একটি সেমিনারে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে৷ ভারতের খাদ্য নিরাপত্তা ও মানদণ্ড নির্ধারক কর্তৃপক্ষ এবং রাস্তার খাদ্য বিক্রেতাদের জাতীয় সংস্থার যৌথ উদ্যোগে কাজটি হচ্ছে৷

সেমিনারে তাঁদের শেখানো হয়েছে বিশুদ্ধ পানি ব্যবহার এবং দস্তানা পড়ে খাবার তৈরি করতে৷ কি কি করা একেবারে নিষেধ, তার একটা তালিকাও তৈরি করেছেন কর্তৃপক্ষ৷ তালিকার প্রথমেই আছে নাক খোটা যাবে না৷ এছাড়া আঙুল দিয়ে কান পরিষ্কার করা, খাবার নাড়াচাড়ার সময় ধূমপান না করা এবং যেখানে সেখানে থুথু না ফেলার নির্দেশও রয়েছে ঐ তালিকায়৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন