1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

রাশিয়ার হাতে গোপন তথ্য দিয়েছেন ট্রাম্প?

ওয়াশিংটন পোস্টের সূত্র অনুযায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও রুশ রাষ্ট্রদূতের হাতে অতি গোপন রাষ্ট্রীয় তথ্য তুলে দিয়েছেন৷ হোয়াইট হাউস এই অভিযোগ অস্বীকার করলেও চরম বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে৷

এমন গোপন নথিপত্র, যা শুধু প্রশাসনের মধ্যে হাতে গোনা কিছু মানুষকে দেখানো হয়েছিল৷ ঘনিষ্ঠ সহযোগী দেশগুলিকেও সেই নথিপত্র দেখানো হয়নি৷ অথচ হোয়াইট হাউসের মধ্যে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ ও ওয়াশিংটনে নিযুক্ত রুশ রাষ্ট্রদূত সের্গেই কিসলিয়াকের হাতে সেই ‘টপ সিক্রেট' তথ্য তুলে দিলেন খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প! এমন মারাত্মক অভিযোগ ওঠায় রাশিয়াকে ঘিরে আবার বিপাকে পড়েছে ট্রাম্প প্রশাসন৷

ওয়াশিংটন পোস্ট সংবাদপত্রের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, তথাকথিত ইসলামিক স্টেট বা আইএস-এর বিরুদ্ধে অভিযান সংক্রান্ত অতি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ছিল সেই সব নথিপত্রে৷ সেসব তথ্য হাতে পেলে তার উৎস খুঁজতেও বেশি বেগ পেতে হবে না বলেও অভিযোগ উঠেছে৷ সেই তথ্য অনুযায়ী, আইএস ল্যাপটপ কম্পিউটার কাজে লাগিয়ে বিমানে হামলা চালানোর ষড়যন্ত্র করছে৷ ট্রাম্প নাকি অত্যন্ত স্বতঃস্ফূর্তভাবে আচমকা সেই তথ্য রাশিয়ার প্রতিনিধিদের সামনে তুলে ধরেন৷ তিনি বিদেশি প্রতিনিধিদের সামনে গর্ব করে বলছিলেন, প্রতিদিন তিনি কত গোপন তথ্য হাতে পান৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে, এই ঘটনার পর সেই ব্যক্তি সঙ্গে সঙ্গে সিআইএ ও এনএসএ-কে বিষয়টি জানিয়েছিলেন৷ এক কর্মকর্তা বলেছেন, ট্রাম্প কোনো বিষয়ের গুরুত্ব না বুঝেই অত্যন্ত অসাবধানভাবে কথা বলে ফেলেন৷ বিশেষ করে গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য ও জাতীয় নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে সেই আচরণ দেখা যায়৷

উল্লেখ্য, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলি যে তথ্য প্রেসিডেন্টের হাতে তুলে দেয়, তার অংশবিশেষ সহযোগী বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থাগুলির কাছ থেকে আসে৷ এ ক্ষেত্রে এক ধরনের বোঝাপড়া কাজ করে, যাতে কারো স্বার্থের ক্ষতি না হয়৷ সেই তথ্য ফাঁস হলে তার উৎসও বিপদে পড়তে পারে৷ ট্রাম্প এবার তুরস্ক, সৌদি আরব ও ইসরায়েলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চলেছেন৷ তার ঠিক আগে এমন এক মারাত্মক অভিযোগ নিয়ে সংকট হতে পারে বলে অনেক মহল মনে করছে৷

জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হার্বার্ট রেমন্ড ম্যাকমাস্টার এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷ সাংবাদিকদের সামনে তিনি বলেন, আলোচনার সময়ে তিনি নিজে সেই ঘরে উপস্থিত ছিলেন৷ সেখানে বেসামরিক বিমান চলাচলসহ বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে হুমকি সম্পর্কে দুই পক্ষের আলোচনা হয়েছিল৷ সেখানে গোপন তথ্যের উৎস বা সেই তথ্য সংগ্রহের প্রক্রিয়া সম্পর্কে কোনো আলোচনা হয়নি৷ তাছাড়া প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এমন কোনো সামরিক অভিযান নিয়ে কথা বলেননি, যা কারো অজানা রয়েছে৷

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন এক বিবৃতিতে বলেছেন, ট্রাম্প ও লাভরভের মধ্যে আলোচনার মূল বিষয় ছিল সন্ত্রাসবাদ দমন অভিযান৷

মার্কিন কংগ্রেস বিষয়টি নিয়ে চরম উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেছে৷ বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক দলের উপ নেতা ডিক ডারবিন বলেন, ট্রাম্পের আচরণ অত্যন্ত বিপজ্জনক ও বেপরোয়া৷ সেনেটের পররাষ্ট্র সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির প্রধান ও রিপাবলিকান দলের সংসদ সদস্য বব কর্কার বলেন, এই অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে সেটা অত্যন্ত দুশ্চিন্তার ঘটনা৷ তিনি আরও বলেন, হোয়াইট হাউসের মধ্যে নিয়মানুবর্তিতার অভাবের কারণে অত্যন্ত উদ্বেগজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়