1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘রামুর জন্য বিদেশ থেকে আনা হয়েছে ৫০টি বৌদ্ধ মূর্তি’

কক্সবাজারের রামুতে ধ্বংস হওয়ায় ১২টি বৌদ্ধবিহার পুনর্নির্মাণ করা হয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার মন্দিরগুলো উদ্ধোধন করেন৷ বৌদ্ধ সম্প্রদায় এতে সন্তুষ্ট হলেও বলেছে, আস্থায় যে চিড় ধরেছে তা পুরোপুরি কাটতে আরো সময় লাগবে৷

গত বছরের ২৯শে সেপ্টেম্বর রাতে ধর্মীয় গুজব ছড়িয়ে হামলা করা হয় রামুর বৌদ্ধ পল্লিতে৷ সেখানেই বসবাস করেন বাংলাদেশের মোট বৌদ্ধ জনগোষ্ঠির প্রায় ২০ ভাগ মানুষ৷ ১১ মাস আগের সেই হামলা ও আগুনে ১২টি বৌদ্ধমন্দির ধ্বংস হয়৷ পুড়িয়ে দেয়া হয় ৩০টি বাড়ি আর ক্ষতিগ্রস্ত হয় শতাধিক পরবিার৷

সরকারের উদ্যোগে সেই ১২টি মন্দিরই পুনর্নির্মাণ করা হয়েছে৷ সেনাবাহিনী এবং বিজিবি-র তত্ত্বাবধানে নির্মিত মন্দিরগুলো মঙ্গলবার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ বেলা ১১টার দিকে রামুর পাহাড় চূড়ায় স্থাপিত বিমুক্তি বিদর্শন ভাবনা কেন্দ্র বৌদ্ধবিহার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে পুনর্নির্মিত বৌদ্ধ মন্দিরগুলো খুলে দেয়া হয়৷ সেখানে রয়েছে এশিয়ার বৃহত্তম ১০০ ফুট লম্বা সিংহসজ্জা গৌতম বুদ্ধের মূর্তি৷এর পর বাকি ১১টি বৌদ্ধমন্দিরও উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী৷

A Bangladeshi man stands amidst the torched ruins of the Buddhist temple called Ramu Moitree Bihar (Ramu Friendship Temple) at Ramu, some 350 kilometres (216 miles) southeast of the capital Dhaka on September 30, 2012. Thousands of rioters torched Buddhist temples and homes in southeastern Bangladesh Sunday over a photo posted on Facebook deemed offensive to Islam, in a rare attack against the community. AFP PHOTO (Photo credit should read STR/AFP/GettyImages)

১১ মাস আগের হামলা ও আগুনে ১২টি বৌদ্ধমন্দির ধ্বংস হয়

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের নেতা এবং বৌদ্ধ সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক পরীক্ষিত বড়ুয়া ডয়চে ভেলেকে জানান, ক্ষতিগ্রস্ত ৩০টি বাড়িও নতুন করে বানিয়ে দেয়া হয়েছে৷ এছাড়া, পুনর্নির্মিত ১২টি বৌদ্ধমন্দির নিয়ে তারা সন্তুষ্ট৷ তবে বৌদ্ধমূর্তি, পুরনো তালপাতার পুঁথি, চর্যাপদসহ আরো ঐতিহাসিক নিদর্শন যা ধ্বংস হয়েছে – তা আর ফিরে পাওয়া সম্ভব নয়৷ তাই তারা থাইল্যান্ড এবং মিয়ানমার থেকে ৫০টি বৌদ্ধমূর্তি এনছেন, যা প্রতিস্থাপন করা হবে৷

পরীক্ষিত বড়ুয়া জানান, তারা নিরপত্তা নিয়ে এখন আর তেমন উদ্বিগ্ন নন৷ হামলার পর তাদের নিরাপত্তার জন্য পুলিশ ও বিজিবি-র পাহারা থাকলেও পরিস্থিতির উন্নতির কারণে এখন আর নিয়মিত পাহারা নেই৷ তবে প্রয়োজন হলে পুলিশের সহায়তা পাওয়া যায়৷

অধ্যাপক পরীক্ষিত বড়ুয়া বলেন, বৌদ্ধ পল্লি আবার আগের চেহারা ফিরে পাচ্ছে৷ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো ক্ষতিপূরণ পেয়েছে৷ সবই ঠিক আছে৷ কিন্তু আস্থার সে সংকট তৈরি হয়েছে, তা কাটিয়ে উঠতে আরো সময় লাগবে৷ হামলার পর সরকার ও দেশের মানুষ যেভাবে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে তাতে তারা আশান্বিত হয়েছেন৷ তাঁর আশা, এভাবে সবাই এগিয়ে এলে ক্ষত দ্রুত মুছে যাবে৷

এদিকে, বৌদ্ধ পল্লিতে হামলার পর মোট ১৯টি মামলা হয়েছে৷ এর মধ্যে সাতটি মামলায় আদালতে অভিযোগ-পত্র দেয়া হয়েছে৷ বাকি মামলাগুলোর তদন্তও শীঘ্র শেষ হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন