1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং টেলি-কনফারেন্সের মাধ্যমে শনিবার ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানি ও রামপাল তাপবিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্বোধন করেন৷

default

ফাইল ছবি

দুটি ঘটনাকেই নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি পালন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী৷

সকালে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং নতুন দিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং টেলি-কনফারেন্সের মাধ্যমে দুটি প্রকল্পের উদ্বোধন করেন৷ প্রথমে বাংলাদেশ-ভারত ৪০০ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের উদ্বোধন করা হয়৷ এরপর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয় বাগেরহাটের রামপালে ১,৩২০ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের৷ এই কেন্দ্র রামপালে হলেও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয় কুষ্টিয়ায়৷

উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনে পরিবেশকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে৷ পরিবেশের ক্ষতি হয় এমন কোনো প্রকল্প এই সরকার অনুমোদন দেয়নি এবং ভবিষ্যতেও দেবেনা৷

আন্দোলন এবং প্রতিবাদের মুখেই রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্বোধন করা হলো৷ আর তার উদ্বোধন রামপালে না করে করা হলো কুষ্টিয়ায়৷ তেল-গ্যাস-বিদ্যুৎ এবং খনিজ সম্পদ রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক ড. আনু মুহাম্মদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন৷ সুন্দরবনসহ পরিবেশ রক্ষায় রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র অবশ্যই প্রতিহত করা হবে৷

এদিকে ভারত থেকে বাংলাদেশে এখন বিদ্যুৎ আসাও শুরু হলো আনুষ্ঠানিকভাবে৷ বাংলাদেশ ভারত থেকে মোট ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছে৷ এরমধ্যে ২৫০ মেগাওয়াট আসবে ভারতের সরকারি বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে৷ আর বাকি আড়াইশো মেগাওয়াট আসবে বেসরকারি বিদ্যুত প্রতিষ্ঠান থেকে৷ এজন্য বাংলাদেশ ভারতের সঙ্গে ২০ বছরের চুক্তি করেছে৷ শনিবার থেকে বাংলাদেশের গ্রিডে ১৭৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসা শুরু হয়েছে৷ অক্টোবরের শেষ নাগাদ যা ২৫০ মেগাওয়াটে দাঁড়াবে৷ নভেম্বর নাগাদ পুরো ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাবে বাংলাদেশ৷ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. শামসুল আলম ডয়চে ভেলেকে জানান এর মাধ্যমে সার্ক বিদ্যুৎ গ্রিডের যাত্রা শুরু হলো৷ তবে খেয়াল রাখতে হবে বিদ্যুৎ খাত যেন কোনো দেশের ওপর নির্ভরশীল হয়ে না পড়ে৷ আর সার্ক গ্রিডকে কার্যকর করতে হলে সার্কভুক্ত সব দেশকেই বিদ্যুৎ উৎপাদনে দক্ষতা এবং সক্ষমতা অর্জন করতে হবে৷ নয়তো একক কোনো দেশ এর সুবিধা নিতে পারে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়