1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

রানা প্লাজা ধসকে স্মরণ করে ‘কাঁদলো সবাই’

নিলয় সরকার৷ বয়স ২৭ বা ২৮৷ রানা প্লাজা ধসে একটি চোখ সম্পূর্ণ অন্ধ হয়ে গেছে৷ অন্য চোখটা দিয়েও ঝাপসা দেখেন৷ রানা প্লাজা ধসের বর্ষপূর্তিতে মঞ্চে উঠে চোখ হারানোর যন্ত্রণায় কথা বলতে পারছিলেন না৷ কান্নার তোড়ে গলা ধরে আসছিল...

একটা সময় নিজেকে আর সামলে রাখতে পারলেন না, কেঁদে ফেললেন উচ্চ স্বরে৷ চোখের পানিতে বললেন ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার কথা৷ কণ্ঠে অভিযোগ নিয়ে বললেন, ‘‘সরকার নাকি সাহায্য দিয়েছে৷ কিন্তু আমি কোনো টাকা পাইনি৷ এখন দুই চোখে আমার দুনিয়া কেবলই অন্ধকার৷''

শুধু নিলয় নন, তাঁর সাথে কাঁদলেন উপস্থিত লোকজন, মন্ত্রী, ব্যবসায়ী নেতা, পুলিশ কর্মকর্তা সবাই৷ নিলয়ের মতো রায়হান কবিরও উঠেছিলেন মঞ্চে৷ রানা প্লাজা ধসে কবির হারিয়েছেন তাঁর একটা পা৷ কৃত্তিম পা যদিও লাগানো হয়েছে, কিন্তু তাতে এখনো ততটা অভ্যস্ত হয়ে উঠতে পারেননি৷ মঞ্চে উঠেই পা হারানোর বেদনা নিয়ে কেঁদে ফেললেন তিনিও৷ ক্ষোভ, হতাশা আর কষ্ট নিয়ে কাঁদো কাঁদো কণ্ঠে বললেন, ‘‘সারা জীবনের জন্য যাঁর সাথে ঘর বেঁধেছিলাম, পা কাটা যাওয়ায় পর সেও আমাকে ছেড়ে চলে গেছে৷ এখন আমি কেবলই একা৷''

উপস্থিত কেউই এদিন আবেগ ধরে রাখতে পারেননি৷ বিজিএমইএ ভবনে বৃহস্পতিবার দুপুরে রানা প্লাজার দুর্ঘটনায় আহত-নিহতদের স্মরণে যে শোক সভার আয়োজন করা হয়েছিল, সেখানেই নিলয়-রায়হানরা কথা বলেন৷

সভায় বক্তব্য দিতে গিয়ে কাঁদেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদও৷ অনুষ্ঠানটির প্রধান অতিথি ছিলেন তিনি৷ অশ্রুসজল নয়নে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘‘রানা প্লাজায় আহত শ্রমিকরা এসেছেন৷ এসেছে ফুলের মতো এতিম বাচ্চারা৷ এদের চোখে পানি দেখে নিজেকে সংবরণ করা কঠিন৷ আসুন এদের পাশে দাঁড়াই৷''

তিনি বলেন, ‘‘রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে৷ যেন এ ধরনের দুর্ঘটনা আর না ঘটে৷'' তাঁর অভিযোগ, পোশাক শিল্পের অগ্রযাত্রাকে বাধা দিতে দেশি-বিদেশি চক্রান্ত চলছে৷ সবাই মিলে এই ষড়যন্ত্র রুখে দিতে হবে৷

সভায় বিজিএমইএ সভাপতি আতিকুল ইসলাম, বিকেএমইএ সভাপতি সেলিম ওসমান, এফবিসিসিআই-এর সাবেক সভাপতি এ কে আজাদ, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও ছিলেন৷

সাভারের রানা প্লাজার স্থানটি যেন হয়ে উঠেছে সমাধিস্থল৷ বৃহস্পতিবারও ভবনের পুরো জায়গাটি কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে ঘেরা ছিল৷ এটা পার হয়ে ভেতরে গিয়ে হারানো স্বজনদের স্মরণে কেউ কেউ আগরবাতি জ্বেলেছেন৷ কেউ ছিটিয়ে দিয়েছেন গোলাপজল৷ স্বজনের আত্মার শান্তি কামনা করছেন তাঁরা৷ দুই হাত তুলে মোনাজাত করছেন৷

নিহত স্ত্রী খালেদার ছবি নিয়ে এসেছেন বরিশালের জসিমউদ্দিন৷ এক বছর আগে এভাবেই ছবি নিয়ে স্ত্রীকে খুঁজেছিলেন তিনি৷ লাশও পাওয়া গিয়েছিল৷ এরপর বরিশালে দাফন করেছিলেন তাঁকে৷ সরকারের কাছ থেকে সহযোগিতাও পেয়েছিলেন৷ কিন্তু দুর্ভাগ্য তাঁরই এক আত্মীয় সেই অর্থ মেরে দিয়েছেন৷ আট বছরের ছেলে রাফিউ ইসলাম আর আড়াই বছরের ছেলে নাফিউ ইসলামের ভবিষ্যৎ নিয়ে তাই অনেকটাই উৎকণ্ঠিত জসিমউদ্দিন৷

রানা প্লাজা ধসের এক বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে দিনটিকে স্মরণ করতে হাজারো শোকার্ত মানুষ সমবেত হন সাভারের রানা প্লাজা সংলগ্ন এলাকায়৷ সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক, পেশাজীবী ও শিক্ষার্থীরাসহ নিহত ও আহতদের স্বজনদের ঢল নামে সেখানে৷ এতে করে বন্ধ হয়ে যায় রানা প্লাজা সংলগ্ন সড়ক৷ বিভিন্ন দাবি-দাওয়া সম্বলিত ব্যানার, লিফলেট, কালো পতাকা, কালো ব্যাজ, জাতীয় পতাকা ও প্রতীকী কাফনের কাপড় নিয়ে হাজির হন অনেকে৷ পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ ও রানার বিচারের দাবিতে মহাসড়কে মিছিল ও সমাবেশ করেন পোশাক শ্রমিকরা৷ এ সময় তাঁরা সোহেল রানার ফাঁসির দাবি করেন৷ পাশাপাশি রানার জমি বাজেয়াপ্ত করে ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে তা বণ্টনের দাবি জানান৷ এছাড়া জুরাইন কবরস্থানে যেসব লাশ দাফন হয়েছে, সেখানেও ফুল দিয়েছেন স্বজনরা৷

এদিকে রানা প্লাজায় হতাহত শ্রমিকদের স্মরণে শোক র‌্যালি শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিজিএমইএ সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, নতুন করে নিখোঁজ শ্রমিকের কোনো তথ্য পাওয়া গেলে বিজিএমইএ তাঁদের দায়ভার ও সহায়তার পাশাপাশি পুনর্বাসন করতে প্রস্তুত৷ তিনি বলেন, ‘‘রানা প্লাজার শ্রমিক ভাই-বোনদের জন্য বিজিএমইএ সহায়তা কার্যক্রম বন্ধ করেনি৷ তাঁদের জন্য সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে৷ যদি কারো চিকিৎসার দরকার হয় তা করাতেও প্রস্তুত বিজিএমইএ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন