1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

রাডার স্যাটেলাইট

আকাশ থেকে তোলা ছবিতে দেখতে পাওয়া যায়, কোথায় বন্যা হয়েছে, কতটা বন্যা হয়েছে৷ কিন্তু যদি আকাশ মেঘে ঢাকা থাকে? তাহলে দরকার পড়বে জার্মান রিসার্চ সেন্টার ফর জিওসায়েন্সেস-এর রাডার স্যাটেলাইটের৷

সারা বিশ্বে বিজ্ঞানীরা এই তথ্য ব্যবহার করেন৷ যেমন বার্লিনের কাছে জার্মান রিসার্চ সেন্টার ফর জিওসায়েন্সেস-এর বিজ্ঞানীরা৷ একটি মানচিত্রে হয়তো দেখা যাচ্ছে, তেহরানের কাছে ভূগর্ভস্থ পানি বেশিমাত্রায় নিষ্কাশনের ফলে মাটি কতটা বসে গেছে৷

জার্মান রিসার্চ সেন্টার ফর জিওসায়েন্সেস-এর সার্ভেয়র ড. মাহদি মোতাঘ বলেন, ‘‘বিভিন্ন দেশে প্রাকৃতিক অথবা মানব গতিবিধির ফলে যে সব বিপত্তির সৃষ্টি হয়, আমরা স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া রাডার তথ্য ব্যবহার করে তার ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য ও প্রভাব যাচাই করার চেষ্টা করি – যেমন দক্ষিণ অ্যামেরিকার চিলি অথবা মধ্য এশিয়ার কিরঘিজস্তান বা ইরানে৷''

রাডার সিগনাল দিয়ে যে শুধু শহর-নগর সার্ভে করা য়ায়, এমন নয়৷ ফ্রাইবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা বনজঙ্গল সার্ভে করার জন্য এই ডাটা ব্যবহার করছেন৷

তারা জানতে চান, জঙ্গলের একটি বিশেষ অংশে কি পরিমাণ গাছপালা, পাতা ইত্যাদি, অর্থাৎ বায়োমাস বা উদ্ভিদ পদার্থ আছে অথবা একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে গজিয়েছে৷

এ যাবৎ বিজ্ঞানীদের লেজার সার্ভেয়িং ইকুইপমেন্ট নিয়ে জঙ্গলে যেতে হতো৷ শীঘ্রই তার প্রয়োজন ফুরোতে পারে, কেননা মহাকাশ থেকে পাঠানো ডাটাও সঠিক তথ্য দিতে পারে৷ বিশ্বের বনজঙ্গল-বনানীর কতটা কার্বন ডাইঅক্সাইড ধরে রাখার ক্ষমতা আছে, জলবায়ু সংরক্ষণের জন্য তা জানা প্রয়োজন৷ জঙ্গলের মালিকরাও জানতে চান, গাছপালা কত তাড়াতাড়ি বাড়ছে৷ এ সব তথ্য পাওয়া যায় রাডার ডাটা থেকে৷

প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ক্ষেত্রেও রাডার স্যাটেলাইট খুব কাজে লাগে৷ ডিএলআর সংস্থার যে নিজস্ব সংকট নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র আছে, সেখান থেকে খুব তাড়াতাড়ি একটি ভূমিকম্প বা বন্যাপীড়িত এলাকার রাডার ছবি একত্রিত করা যায়৷

ভূবিজ্ঞানী ড. টোবিয়াস শ্নাইডারহান বলেন, ‘‘বিশেষ করে বড় রকম বন্যা হলে, আকাশ মেঘে ঢাকা থাকলে, অপটিকাল ডাটা পাওয়া যায় না – কেননা ক্যামেরা দিয়ে ছবি তোলা যায় না৷ তখন সত্যিই রাডার ডাটার প্রয়োজন পড়ে, কেননা রাডার তরঙ্গ মেঘ ভেদ করে যেতে পারে৷ কাজেই এ ধরনের পরিস্থিতিতে আমাদের রাডার ডাটা ব্যবহার না করে উপায় নেই৷

এই অ্যানিমেশনটায় জার্মানিতে বন্যার ফলশ্রুতি দেখা যাচ্ছে৷ বন্যাপীড়িত এলাকার উপর ডিএলআর-এর যে দু'টি স্যাটেলাইট স্থাপন করা ছিল, সেগুলোর পাঠানো রাডার ডাটার ওপর ভিত্তি করেই এই ছবি তৈরি করা হয়েছে, চলতি মানচিত্রের সঙ্গে মিলিয়ে দেখে৷ ড. শ্নাইডারহান বললেন, ‘‘স্পষ্ট দেখা যায়, কোন শহরগুলো বন্যায় ভেসে গেছে৷ কোন বাড়িতে জল ঢুকেছে, কোনো গাড়ি জলে আটকা পড়েছে কিনা, কোন কোন রাস্তা এখনও ঠিক আছে আর কোনগুলোতে জলে ডুবেছে৷''

এই ডাটা থেকে পুলিশ, ত্রাণকর্মী, রেড ক্রস ইত্যাদিরা জানতে পারেন, কোথায় সাহায্য দরকার, কোথায় মানুষজন বিপদে পড়েছেন, কোথায় বন্যার প্রকোপ বেশি বা কম৷ ডিএলআর এভাবে জাতিসংঘের জন্যও ম্যাপ তৈরি করেছে৷

দু'টি নতুন স্যাটেলাইট কক্ষপথে পাঠানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে৷ এই দু'টি স্যাটেলাইট ভূমিকম্প, বৃক্ষশূন্যতা বা মরুকরণের পরিমাপ নিতে পারবে – বিপর্যয় ও সংকটের ক্ষেত্রে যে তথ্য বিশেষভাবে কাজে লাগবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়