1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

রাজবন্দিদের সঙ্গে অমানবিক আচরণ করছে উত্তর কোরিয়া

মানবাধিকার বিষয়ক সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের তোলা স্যাটেলাইট ছবির সূত্র ধরে বলা হচ্ছে, উত্তর কোরিয়া তাদের বন্দিশালার পরিধি বাড়িয়েছে৷ আর তাদের হাতে আটক অবস্থায় রয়েছে দুই লাখেরও বেশি রাজবন্দি৷

default

পিয়ংইয়ং-এ সামরিক কুচকাওয়াজ

সরকারের বিরুদ্ধবাদীদের আটক করছে উত্তর কোরিয়ার সরকার৷ আর এদেরকে জেলে আটক করা করে রাখা হচ্ছে৷ সেখানে তাদের দিয়ে করানো হচ্ছে অত্যাধিক পরিশ্রমের কাজ, করা হচ্ছে নির্যাতন৷ এক কথায় তাদের সঙ্গে ঠিক দাসের মতোই ব্যবহার করা হচ্ছে৷

আন্তর্জাতিক এই সংগঠন গত মঙ্গলবার ঐ দেশের ছয়টি বন্দিশালার মধ্যে চারটির স্যাটেলাইট ইমেজ প্রকাশ করে৷ এসব ছবির সঙ্গে ২০০১ সালে তোলা ঐ বন্দিশালাগুলোর ছবির তুলনা করে বলা হয়, ওগুলোর পরিধি যে বাড়ানো হয়েছে - তা স্পষ্টত বোঝা যাচ্ছে৷ অ্যামেনেস্টির ধারণা, ১৯৫০ সাল থেকে এই বন্দিশিবিরগুলো চালু রয়েছে৷

অ্যামেনেস্টি জানায়, তারা এই বিষয়টি নিয়ে সেখানকার সাধারণ মানুষ, সাবেক রাজনৈতিক বন্দি এবং কারারক্ষীদের সঙ্গে কথা বলেছেন৷ এদের সঙ্গে কথা বলে বন্দিশিবিরের যে চিত্র পাওয়া গেছে, তা সত্যিই ভয়াবহ এবং অমানবিক৷ সাবেক বন্দিরা জানিয়েছেন, সেই সব বন্দিশালায় আটককৃতদের সঙ্গে পশুর মতো আচরণ করা হয়৷ চালানো হয় হিংস্র নির্যাতন৷ শুধু তাই নয়, সেখানে চিকিৎসা ব্যবস্থাও নাকি একেবারেই অপ্রতুল৷ খাবারের অভাব সেখানে সব সময়, বেঁচে থাকার জন্য সর্বনিম্ন যে খাবারের প্রয়োজন, তাও তাদের দেয়া হয় না৷ ক্ষুধার জ্বালায় অতিষ্ট বহু বন্দি কারাগারের ইঁদুর পর্যন্ত খেয়ে থাকেন বলে জানান সাবেক সব বন্দিরা৷

অ্যামেনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে, বন্দিদের উপর এহেন আচরণের ঘটনা কোনভাবেই অস্বীকার করতে পারে না উত্তর কোরিয়া৷ তাই এ অবস্থায় উত্তর কোরিয়ার প্রতি সকল রাজনৈতিক বন্দির মুক্তি আহ্বান জানিয়েছে অ্যামেনেস্টি৷

প্রতিবেদেন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ