1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘রাজন কাঁদেনি, মানবতা কেঁদেছে, বাংলাদেশ হেরেছে’

১৩ বছরের এক কিশোরকে নৃশংসভাবে পিটিয়ে মেরে ফেলার ঘটনায় বাংলাদেশ স্তব্ধ, হতবাক, প্রতিবাদমুখর৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও চলছে নিন্দা, প্রতিবাদের ঝড়৷ হত্যাকারীদের বিচার চাইতে গিয়ে আবেগতাড়িত হয়ে পড়ছেন অনেকে৷

সিলেটের কুমারগাঁওয়ে যা ঘটেছে তা চোখে দেখলে আবেগ নিয়ন্ত্রণ করা সত্যিই কঠিন৷ চোর সন্দেহে সামিউল আলম রাজনকে বেঁধে পিটিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে৷ হাসতে হাসতে মেরেছে তারা৷ তৃষ্ণার্ত রাজন কাঁদতে কাঁদতে পানি চেয়েছে৷ পানি না দিয়ে বলা হয়েছে, ‘‘গায়ের ঘাম খা৷'' শেষদিকে ছেলেটি সিলেটের আঞ্চলিক ভাষায় আকুতি জানিয়েছে, ‘‘আমি মরে যাচ্ছি, কেউ আমাকে বাঁচাও৷'' কেউ বাঁচাতে যায়নি৷ বরং হত্যাকারীরা অকথ্য নির্যাতনের মুখে রাজনের আর্তনাদ এবং তার মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাওয়ার দৃশ্য ভিডিও করে শেয়ার করেছে ফেসবুকে৷ ভিডিও দেখে অনেকে ঘুমাতে পারেননি৷ ফেসবুক, টুইটারে তাঁরা জানিয়েছেনও সে কথা৷

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার লিখেছেন:

‘‘আমি সারারাত ঘুমাতে পারিনি৷ আমার ধারনা অন্যদেরও একই অবস্থা৷ মানুষের পক্ষে ঘুমানো অসম্ভব৷ আসুন, সবাই মিলে রাজনের খুনীদের ঘুম হারাম করি৷ রাজনের খুনী এই কুলাঙ্গারের নাম কামরুল৷ এই খুনীকে দেশে-বিদেশে যেখানে পাবেন, রশি দিয়ে বেঁধে পুলিশে খবর দিন৷ প্রয়োজনে পোস্টার ছাপিয়ে এই খুনীর ছবি ছড়িয়ে দিন সবখানে৷''

রবার্ট গিবসন টুইটারে লিখেছেন, ফেসবুকে সিলেটে একটি ছেলেকে নৃশংসভাবে হত্যা করার ছবি দেখলাম৷ নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানাই এবং বিচার চাই৷ কোনো মানুষের অন্য কারো সঙ্গে এমন আচরণ করার অধিকার নেই৷''

এমন ঘটনা বন্ধ করার জন্য আইনকে নিজের মতো চলতে দেয়া এবং দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনের কথাও উঠেছে৷

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম শুধু প্রতিক্রিয়া জানানোর মধ্যে নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখেননি৷ বাংলাদেশে রাজনের মতো আর কাউকে যেন মরতে না হয় এ কামনা করে সবার প্রতি শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হবার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি৷ মুশফিক লিখেছেন, ‘‘একটি নিষ্পাপ শিশুকে নির্যাতন করে মেরে ফেলার মতো বড় অপরাধ মনে হয় আর নেই৷ শিশু নির্যাতনকে ‘না' বলুন৷''

মানুষ কোনো মানুষের সঙ্গে, বিশেষ করে কোনো শিশুর সঙ্গে এমন আচরণ করতে পারে তা অনেকেই বিশ্বাস করতে পারছেননা৷ এমন একজন বিদ্রুপ করে লিখেছেন, ‘‘এ এক অদ্ভুত ব্যাপার! এতকিছুর পরও আয়নার সামনে দাঁড়ালে আমাদের মানুষের মতোই দেখায়! এ লজ্জা কোথায় রাখি?''

আরেকজন মনে করেন, এমন নিষ্ঠুরতার শিকার হয়ে মারা যাওয়া রাজন হয়তো বাংলাদেশের মানুষকে ক্ষমা করবেনা৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘রাজন আমাদের ক্ষমা করবেনা৷''

আরেকজন মৃত্যুর আগে রাজন যে ‘পানি দাও, পানি দাও' বলে কেঁদেছিল, সে কথা স্মরণ করে লিখেছেন, ‘‘পানির জন্য রাজন কাঁদেনি, মানবতা কেঁদেছে৷''

রবিবার ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশ৷ কিন্তু রাজনের মৃত্যু সে আনন্দ অনেকটাই মাটি করে দিয়েছে৷ ম্যাচ শেষ হবার আগেই নৃশংসভাবে পিটিয়ে রাজনকে মেরে ফেলার ঘটনা মনে করে একজন টুইট করেছেন, ‘‘আজ ক্রিকেট মাঠে যা-ই হোক, বাংলাদেশ হেরে গেছে৷''

টুইটারে আরেকজন লিখেছেন, ‘‘আমি কয়েকবার ভিডিওটি দেখার চেষ্টা করেছি, কিন্তু সাহসের অভাবে দেখতে পারিনি৷ আমি মানুষের ওপর বিশ্বাস হারিয়ে ফেলছি৷''

এদিকে রাজন হত্যার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে সমাবেশও হচ্ছে৷

হত্যাকারীদের ধরার চেষ্টাও চলছে৷ একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ৷ মুহিত আলম নামের ওই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে৷

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়