1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘রাজনৈতিক শূন্যতায় হতাশাগ্রস্তরাই জঙ্গিদের দিকে ঝুঁকছে’

‘বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের ধরন এখন আর আগের মতো নেই৷ আগে মাদ্রাসায় পড়া বা অশিক্ষিত মানুষদের জঙ্গিদলের সদস্য হতে দেখা যেত৷ এখন দেখা যাচ্ছে, যুব সমাজের প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন, শিক্ষিত একটি অংশ জঙ্গিবাদের দিকে ঝুঁকছে৷ কিন্তু কেন?

অডিও শুনুন 05:44

বাংলাদেশে আইএস বা আল-কায়েদা নেই এটা বলা যাবে না: শাখাওয়াত হোসেন

‘‘রাজনৈতিক শূন্যতা বা সামাজিক সমস্যার কারণেই যুব সমাজের একটি অংশ জঙ্গিবাদের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে৷ জোর করে বা চাপিয়ে দিয়ে জঙ্গিবাদ থেকে এদের নিবৃত্ত করা যাবে না৷ বরং খুঁজে বের করতে হবে এই শূন্যতা কোথায়? কেন শিক্ষিত যুবকদের একটি অংশ জঙ্গিবাদের দিকে চলে যাচ্ছে? অথচ সেদিকে মনোযোগ দেয়া হচ্ছে না৷'' ডয়চে ভেলের কাছে এভাবে জঙ্গিবাদের কারণ বিশ্লেষণ করলেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) সাখাওয়াত হোসেন৷

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার ভোররাত থেকে শুরু করে দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে রাজধানীর মিরপুরে জঙ্গিদের একটি বিশাল আস্তানার সন্ধান পাওয়া যায়৷ গোয়েন্দা পুলিশ টানা ১৪ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে সাতজন জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করেছে৷ তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও হাতে তৈরি গ্রেনেড উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ৷ এই একই ধরনের গ্রেনেড পুরনো ঢাকার হোসেনী দালানে শিয়া সম্প্রদায়ের তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিকালেও নিক্ষেপ করা হয়েছে৷

এর আগেও কামরাঙ্গীরচরে অভিযান চালিয়ে জেএমবির কাছ থেকে একই ধরনের গ্রেনেড ও বিস্ফোরক পাওয়া গেছে৷ তাদের কাছ থেকে ১৬টি গ্রেনেড ছাড়াও ট্রাংকভর্তি বিস্ফোরক ও প্রচুর জিহাদি বই পাওয়া যায়৷

বুধবার বিকেল ৪টায় অভিযান সমাপ্ত ঘোষণার পর, মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘প্রায় ১৪ ঘণ্টা চালানো অভিযান কার্যক্রম শেষ হয়েছে৷ এখন আলামতগুলোর একটা তালিকা তৈরি করা হচ্ছে৷ এগুলো সিআইডি ক্রাইম টিমকে বুঝিয়ে দেওয়া হবে৷ রাত ২টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এ অভিযান চালানো হয়৷ ঐ আস্তানায় যে পরিমাণ বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে, তা দিয়ে আরও ২০০টি গ্রেনেড তৈরি করা যেত৷''

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘‘বাংলাদেশে আইএস বা আল-কায়েদা নেই এটা বলা যাবে না৷ তাদের মতাদর্শের মানুষ অবশ্যই এখানে আছে৷ এখানে তো আর সিরিয়া থেকে লোক আসবে না৷ তাদের আদর্শ নিয়েই এখানকার সন্ত্রাসীরা কার্যক্রম চালাবে৷ তবে বাংলাদেশে এখনও তাদের কার্যক্রম প্রাথমিক পর্যায়ে আছে৷ আগে কিন্তু এখানে কোনো ধর্মীয় বিভাজন ছিল না৷ অথচ এখন দেখা যাচ্ছে এ দেশেও শিয়া-সুন্নি বিরোধ তৈরি করা হচ্ছে৷ ফলে হতাশাগ্রস্ত যুবকদের পথে আনতে হবে৷ কী করলে তাদের পথে আনা যায়, সেটার চিন্তা করার এখনই সময়৷''

এদিকে বড়দিনের ঠিক আগেই ঢাকা ও সিলেটে জঙ্গিদের নাম করে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের নেতা, গির্জার বিশপ ও যাজকদের হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে৷ তাদের কছে ‘আইজিএমবি' নাম করে মোবাইল ফোনে ম্যাসেজ পাঠিয়ে এ সব হুমকি দেয়া হয়৷ যাঁদের হুমকি দেয়া হয়েছে, তাঁরা হলেন – বাংলাদেশ খ্রিষ্টান অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব নির্মল রোজারিও, রাজধানীর উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরের গ্লোরিয়া থিওলজিক্যাল সেমিনারের একাডেমিক ডিন ও যাজক জেমস জগদীশ, খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের পত্রিকা মাসিক সমবার্তার নির্বাহী সম্পাদক এলড্রিক বিশ্বাস, রাজধানীর রামপুরায় অবস্থিত ব্রাদার সেমিনারির রেক্টর বিনয় গোমেজ, সিলেট অঞ্চলের প্রদেশপাল বিশপ বিজয় এনডি ক্রুশ ও শ্রীমঙ্গলের ক্যাথলিক মিশনের পালপুরোহিত সুব্রত বনিফাস টলেনটিনো৷

খ্রিষ্টান অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব নির্মল রোজারিও জানান, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টা ২২ মিনিটে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানে গণভবনে অবস্থান করছিলেন তিনি৷ সেই সময় তাঁর মোবাইল ফোনে একটি ম্যাসেজ আসে৷ তাতে ‘আইজেএমবি'-র সমন্বয়ক পরিচয় দিয়ে জামান মজুমদার নামের এক ব্যক্তি লিখেছে, ‘তোমার শেষ স্বপ্ন পূরণ করো, কারণ তুমি এখন জীবনসায়াহ্নে৷ খুব শিগগিরই আমরা তোমাকে হত্যা করব৷' এ ঘটনার পর নির্মল রোজারিও তেজগাঁও থানায় বুধবার একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন৷

প্রিয় পাঠক, আপনার কী মনে হয়, কেন শিক্ষিত যুবকদের একটি অংশ জঙ্গিবাদের দিকে চলে যাচ্ছে? প্রতিক্রিয়া জানান নীচে মন্তব্যের ঘরে...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়