1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

রমজানে ফল বিক্রি না করার হুমকি, শনিবার ধর্মঘট

বাংলাদেশে বিষাক্ত ফরমালিন মেশানো ফলের বিরুদ্ধে পুলিশি অভিযান বন্ধের দাবি জানিয়েছেন ফল ব্যবসায়ীরা৷ তাঁরা এই দাবি আদায়ে শনিবার রাজধানী ঢাকায় সব ধরণের ফলের দোকান এবং আড়ত বন্ধ রাখার ঘোষণাও দিয়েছেন৷

গত ১১ই জুন মৌসুমী ফল, যেমন আম, লিচু, জামসহ সব ধরণের ফলে বিষাক্ত ফরমালিনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে ঢাকা মহানগর পুলিশ৷ রাজধানীতে তাঁরা ৮টি পয়েন্টে ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে নিয়ে এই অভিযান চালাচ্ছেন সেই থেকে৷ অভিযানে এ পর্যন্ত ফরমালিন মেশানো বিপুল পরিমাণ ফল আটক করে ধ্বংস করা হয়েছে৷ তার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসায়ীদের আটক ও জরিমানাও করা হয়েছে৷ এখন পর্যন্ত ৩০ কোটি টাকার ফল ধ্বংস করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন ব্যবসায়ীরা৷

শুক্রবার ঢাকা মহানগর ফল আমদানি-রপ্তানিকারক ও আড়তদার ব্যবসায়ী বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেড-এর এক সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম দাবি করেন যে, ফরমালিন বিরোধী অভিযানের নামে ফল ব্যবসায়ীদের হয়রানি করা হচ্ছে৷ তিনি দাবি করেন, অভিযানে ফরমালডিহাইড-৩০০ নামের একটি ভুল যন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে৷ এই যন্ত্র দিয়ে ফরমালিন শনাক্তের নামে দেশি-বিদেশি ফলমূল ধ্বংস করা হচ্ছে৷ যার ফলে সাধারণ ব্যবসায়ীরা পুঁজি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়ছেন৷

সিরাজুল ইসলাম বলেন, গত কয়েকদিনে ফরমালিনবিরোধী অভিযানে কোটি কোটি টাকার ফল জব্দ ও নষ্ট করা হয়েছে৷ পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের জেল-জরিমানাও করা হয়েছে৷ কিন্তু যে ফরমালডিহাইড-৩০০ যন্ত্রের মাধ্যমে ফরমালিন পরীক্ষা করা হচ্ছে, তা আসলে তৈরি হয়েছে বাতাসে ফরমালডিহাইড বাষ্প পরিমাপের জন্য, তাজা ফলে ফরমালিনের উপস্থিতি নির্ণয়ের জন্য নয়৷ ইতিমধ্যে খাদ্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট (বিসিএসআইআর)-এর সংশ্লিষ্ট গবেষক ও কেমিস্টরা এই যন্ত্রের কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন৷ অথচ বিতর্কিত এই যন্ত্র ব্যবহার করেই ফল নষ্ট করা হচ্ছে৷ আর ব্যবসায়ীদের সুনাম ক্ষুণ্ম করে জেল জরিমানা দেয়া হচ্ছে৷

তাই সংবাদ সম্মেলনে ‘ভুল' যন্ত্রের মাধ্যমে ফরমালিনের মাত্রা পরীক্ষার নামে ফলমূল ধ্বংস ও ব্যবসায়ীদের হয়রানি বন্ধের দাবিতে শনিবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত দোকান ও আড়ত বন্ধ রেখে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন ফল ব্যবসায়ীরা৷ সোমবারের মধ্যে দাবি মানা না হলে বিদেশ থেকে ফল আমদানি বন্ধের ঘোষণাও দিয়েছেন তাঁরা৷ তাঁদের কথায়, আসন্ন রমজানেও তাঁরা বাজারে ফল সরবরাহ করবেন না৷

ফল আমদানিকারকরা বলেন, বাণিজ্য নীতিমালা মেনেই ফল আমদানি করা হয়৷ এ সব ফল রেফ্রিজারেটর কনটেইনারে প্রয়োজনীয় তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে আমদানি করা হয়ে থাকে৷ তাজা ফল চট্টগ্রাম বন্দরে আসার পর কর্তৃপক্ষ ফলের কনটেইনার খুলে ফলগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ল্যাবরেটরিতে পাঠায়৷ এরপর সেখানে সেগুলি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পর ছাড়পত্র দেওয়া হয়৷ তাই এতে ফরমালিন বা রাসায়নিক পদার্থ থাকার প্রশ্নই আসে না৷

ওদিকে, চাঁপাই নবাবগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের ফল উৎপাদকারী, বিশেষ করে আম ও লিচু উৎপাদনকারীরা এই ধর্মঘটের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন৷

অন্যদিকে, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ এবং বিএসটিআই তাদের ফরমালিন বিরোধী অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে৷ পুলিশ কমিশনার বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ফরমালিন মেশানোর অপরাধ প্রমাণ হলে হত্যা প্রচেষ্টার মামলা করা হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন