1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

রমজানের শুরুতেই ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়ছে

রমজানের শুরুতেই নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়তে শুরু করেছে৷ সরকারের মনিটরিং, ব্যবসায়ীদের প্রতিশ্রুতি – কোনো কিছুই কাজে আসছে না৷ বিশেষ করে ইফতারির জন্য প্রয়োজনীয় সবজিসহ নানা উপকরণের দাম এখন লাগামছাড়া৷

দাম বাড়ার এই হিসাব অবশ্য খাটছে না বেগুনের ক্ষেত্রে৷ রামজানের শুরুতেই বেগুনের দাম বেড়েছে সর্বোচ্চ শতকরা ১৫০ ভাগ৷ দাম বাড়ার ক্ষেত্রে এটা রেকর্ড৷ দু'দিন আগেও প্রতি কেজি বেগুনের দাম ছিল ৪০ টাকা৷ এখন তা হয়েছে ১০০ টাকা৷ বলা বাহুল্য, এই বেগুনই ইফতারির অত্যাবশ্যক আইটেম বেগুনি তৈরিতে ব্যবহার করা হয়৷

একই সঙ্গে পিয়াঁজ, কাঁচামরিচ, ধনে পাতা, লেটুস পাতা, কুমড়া, শসা, লেবু – এ সবের দামও বেড়েছে পাল্লা দিয়ে৷মাছ-মাংসের দামও হঠাৎ করে বেড়ে গেছে৷ কারওয়ার বাজারের কাঁচামাল আড়ৎদার সমিতির সভাপতি মো. ইমরান মাষ্টার বলেন, ‘‘এ সব নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের চাহিদা রোজার মাসে হঠাৎ করেই বেড়ে যায়৷ তাই দামও বেড়ে যায়৷ তিনি দাবি করেন, এর সঙ্গে টানা বৃষ্টির কারণেও এ সব কাঁচামালের দাম বেড়ে গেছে৷ তিনি জানান, বৃষ্টির কারণে এগুলির সরবরাহ কম৷''

বাজারে ভোজ্য তেলের দামও বেড়েছে শতকরা ১০ ভাগের মতো৷ বলা বাহুল্য, রমজানের পুরোমাসই এই দাম বাড়ানোর প্রতিযোগিতা অব্যাহত থাকবে৷ বাণিজ্য সচিব মাহবুব আহমেদও মনে করেন, চাহিদা বাড়ার কারণেই দাম বাড়ছে৷ তবে তিনি জানান, ‘‘অযৌক্তিক দাম বাড়ানো প্রতিরোধে ১৪টি মনিটিরিং কমিটি রোজার আগে থেকেই কাজ শুরু করেছে৷''

ঢাকার হাতিরপুল কাঁচাবাজারে আমিনুল ইসলাম নামে একজন ক্রেতা অভিযোগ করেন, মনিটরিং কমিটি কোনো কাজ করছে বলে তাঁর কাছে মনে হয় না৷ বাজারে তাঁদের তৎপরতা দেখা যায় না৷ যদি তাঁরা তৎপর থাকতেন, তাহলে ৪০ টাকার বেগুন দু'দিনের ১০০ টাকা হয় কি করে?

রোজায় পণ্যের দাম বাড়ানোর জন্য খুচরা বিক্রেতারা পাইকারি বিক্রেতাদের দায়ী করেন৷ কারওয়ান বাজারের খুচরা বিক্রেতা মনোয়ার বলেন, ‘‘আমরা বেশি দামে কিনি বলেই বেশি দামে বিক্রি করি৷ পাইকারি বিক্রেতারা দাম বাড়িয়ে দিলে আমাদের কিছু করার থাকে না৷'' তিনি দাবি করেন, ‘‘বেগুন, কাঁচামরিচসহ ইফতারির জন্য সবচেয়ে বেশি যেসব পণ্যের চাহিদা, তা হিমাগারে রেখে দাম বাড়ানো হচ্ছে৷''

সরকার গত সপ্তাহে কাঁচামরিচ, বেগুন, কুমড়া ও লেবুসহ পাঁচটি পণ্য রপ্তানি বন্ধ করে দেয় রমজানে সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে৷ কিন্তু তাতেও কোজ কাজ হয়নি৷ কারণ সিন্ডিকেট করে এগুলোর দাম বাড়ানো হচ্ছে কলে খুচরা বিক্রেতারা জানান৷

এদিকে বাণ্যিজ্যমন্ত্রী তেফায়েল আহমেদ বলেন, ‘‘রমজানে ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়ার কথা না৷ কারণ ব্যবসায়ী নেতারা দাম না বাড়ানোর প্রতিশ্রতি দিয়েছেন৷'' তিনি বলেন, ‘‘বাজার মনিটরিং কমিটি কাজ করছে৷ তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই ব্যবস্থা নেয়া হবে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন