1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

‘রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানায় শিশু শ্রমিক নেই'

ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোতে প্রাপ্তবয়স্করাই সপ্তাহে ৪৮ ঘণ্টা কাজ করেন, সেখানে বাংলাদেশের শিশুরা করে ৬০ ঘণ্টা করে৷অথচ বিজিএমইএ ও শ্রমিক নেতারা দাবি করেছেন, বাংলাদেশের রপ্তানীমুখি গার্মেন্টসগুলোতে কোনো শিশু শ্রমিক নেই৷

লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক উন্নয়ন ও মানবকল্যাণ বিষয়ক গবেষণা সংস্থা ওভারসিজ ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট (ওডিআই) এক প্রতিবেদনে বলেছে, বাংলাদেশের অনেক শিশু সপ্তাহে ৬০ ঘণ্টা বা তার চেয়েও বেশি কাজ করে৷ তবে এ প্রসঙ্গে পোশাক কারখানা মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি ও সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং দুই জন শ্রমিক নেতা ও নেত্রী ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, বাংলাদেশের বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ-র আওতাভুক্ত কোনো প্রতিষ্ঠানে শিশু শ্রমিক নেই৷তবু তাঁরা দাবি করেন, এ বিষয়টি কঠোরভাবে মনিটরিং করা হয়৷ তবে স্থানীয় চাহিদা মেটাতে যেসব কারখানায় পোশাক তৈরি হয় সেগুলোতে কিছু শিশু শ্রমিক থাকতে পারে৷ পাশাপাশি অফিসের বাইরে বিভিন্ন জায়গাতেও শিশু শ্রমিক কাজ করে৷

অডিও শুনুন 00:56

‘দায়িত্ব নিয়েই বলছি, আমাদের এখানে কোনো শিশু শ্রমিক নেই’

বিজিএমইএ-র সভাপতির সিদ্দিকুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘কেউ প্রমাণ করতে পারবে না যে আমাদের কোনো প্রতিষ্ঠানে শিশু শ্রমিক আছে৷ আমি ওডিআই-র এই রিপোর্ট প্রত্যাখান করি৷ পাশাপাশি তাদের বলতে হবে বাংলাদেশের কোন গার্মেন্টসে শিশু শ্রমিক আছে৷ আমি দায়িত্ব নিয়েই বলছি, আমাদের এখানে কোনো শিশু শ্রমিক নেই৷''  

ওডিআই-র গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাজধানী ঢাকায় বস্তিবাসী শিশুশ্রমিকরা সপ্তাহে গড়ে ৬০ ঘণ্টা কাজ করে৷ তাদের বেশির ভাগই চাকরি করে পোশাক কারখানায়, যেখানে বিশ্বের নামি-দামি ব্র্যান্ডগুলোর পোশাক-পরিচ্ছদ তৈরি করা হয়৷ বস্তিবাসী শিশুদের মধ্যে ১৫ শতাংশই স্কুলে যায় না৷ তাদের বয়স ৬ থেকে ১৫ বছর এবং তারা কারখানাগুলোতে পূর্ণকালীন (ফুলটাইম) চাকরি করে৷ ‘শিশুশ্রম ও শিক্ষা  ঢাকার বস্তিবাস জরিপ' শীর্ষক প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, বস্তি এলাকার দুই-তৃতীয়াংশ কিশোরী দেশটির দ্রুত বিকাশমান পোশাক কারখানাগুলোতে পূর্ণকালীন কাজ করে৷ জরিপের এই ফল বাংলাদেশের তিন হাজার কোটি ডলারের পোশাক তৈরি শিল্পের জন্য উদ্বেগ বাড়িয়ে দিয়েছে৷

অডিও শুনুন 01:12

‘স্থানীয় পোশাক তৈরি করে, এমন ফ্যাক্টরিতে কিছু শিশু শ্রমিক থাকতে পারে’

বিজিএমইএ-র সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক হাসান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এই ধরনের রিপোর্টের সঙ্গে আমি একমত নই৷ আমাদের সদস্যভুক্ত কোনো ফ্যাক্টরিতেই শিশু শ্রমিক নেই৷ আমরা মনিটরিং করি, বায়াররা মনিটরিং করে৷ তাদের সবার অফিস আছে৷ তবে কেরানিগঞ্জের মতো কিছু এলাকায় স্থানীয় চাহিদা মেটাতে যে পোশাক তৈরি হয় তাদের মধ্যে কিছু শিশু শ্রমিক থাকলেও থাকতে পারে৷ এগুলোর ব্যাপারেও আমরা সরকারকে বলছি, বলব৷''

এদিকে ঢাকার একটি পোশাক কারখানার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যবস্থাপক বলেন, ‘‘১১ থেকে ১৪ বছরের শিশুদের দিয়ে কাজ করানো উচিত নয়, বিষয়টি তিনি জানেন৷ তবে শিশুদের এই বেআইনি নিয়োগের জন্য তিনি দায়ী নন৷ তিনি স্বীকার করেন, তাদের বেশির ভাগ কর্মীরই পরিচয়পত্র নেই৷ ফলে তাদের বয়স যাচাইয়েরও সুযোগ নেই৷'' বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, শ্রমিক নেতারা তাদের বলেছেন, কারখানাগুলোতে শিশুশ্রম দিন দিন বাড়ছে৷

ইনস্টিটিউট অফ লেবার স্টাডিজের নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা শিশুশ্রম নিয়ে কাজ করি৷ কিন্তু গার্মেন্টসে এই ধরনের শিশু শ্রমিক আছে বলে আমাদের জানা নেই৷ তবে হ্যাঁ, স্থানীয় পোশাক তৈরি করে, এমন কিছু ফ্যাক্টরিতে কিছু শিশু শ্রমিক থাকতে পারে৷ বিদেশে এক্সপোর্ট করা হয় এমন কোনো গার্মেন্টসে শিশু শ্রমিক আছে এমন তথ্য আমাদের জানা নেই৷ সেটা মনে হয় ঠিকও না৷''

ওডিআই-র প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, ঢাকার বস্তিগুলোর ১৪ বছর বয়সি শিশুদের অর্ধেকই শিশুশ্রমে নিয়োজিত৷ প্রতিবেদনটির লেখকদের একজন মারিয়া কোট্টি বলেন, বেশির ভাগ শিশুই স্কুলে যেতে চায়৷

অডিও শুনুন 01:05

‘আমরা সব সময় খোঁজ রাখি, কোনো গার্মেন্টসেই শিশু শ্রমিক নেই’

কিন্তু দারিদ্র্যই তাদের মা-বাবাকে বাধ্য করে শিশু সন্তানদের কাজে দিতে৷ যদিও তারা জানে, তা তাদের শিশুদের দীর্ঘমেয়াদি ভবিষ্যতের জন্য ক্ষতিকর৷ গবেষণায় আরো বলা হয়, বাংলাদেশে ১০ বছর পর্যন্ত শিশুদের শিশুশ্রমের পরিমাণ বেড়েছে ৪৫ শতাংশ৷ আর ১৪ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের মধ্যে শিশুশ্রমের পরিমাণ বড়েছে ছেলেদের ক্ষেত্রে ৩৬ দশমিক ১ শতাংশ এবং মেয়েদের মধ্যে ৩৪ দশমিক ৬ শতাংশ৷ এর মধ্য দিয়ে এসব শিশু চরম গ্লানিকর অভিজ্ঞতা অর্জন করে৷ শ্রমিক নেত্রী মোশরেখা মিশু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এ ধরনের কোনো তথ্য ঠিক নয়৷ আমরা সব সময় খোঁজ খবর রাখি৷ কোনো গার্মেন্টসেই নেই৷''

প্রিয় পাঠক, আপনিও কি মনে করেন রপ্তানিমুখী পোশাক কারখানায় কোনো শিশু শ্রমিক নেই? আপনার মতামত জানান নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়