1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

রক্তাক্ত বিক্ষোভে উত্তাল গোটা থাইলান্ড, বাড়ছে প্রাণহানি

সরকার বিরোধী সহিংস বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে গোটা থাইল্যান্ড৷ শনিবার ব্যাংককে থাকসিন সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশ ও সেনাদের রক্তাক্ত সংঘর্ষ শুরু হওয়ার পর তা ক্রমেই গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়ছে৷ আসছে একের পর এক প্রাণহানির খবর৷

default

এক সেনার কাছ থেকে রাইফেল কেড়ে নিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা

সংঘর্ষের শুরু ব্যাংককে

সংসদ ভেঙ্গে দেওয়ার দাবিতে গত কয়েকদিনের টানা বিক্ষোভের পর আজ নিরাপত্তা বাহিনী প্রতিবাদকারীদের ওপর চড়াও হলে এই সহিংসতার শুরু হয়৷ বার্তা সংস্থাগুলো জানিয়েছে বিকালের দিকে এই সহিংসতা শুরু হয় এবং রাত পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকে৷ রাজধানী ব্যাংকক ছাড়াও দেশটির উত্তরাঞ্চলের একাধিক জায়গায় এই সহিংস বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে৷ বার্তা সংস্থা ডিপিএ জানায়, গত কয়েকদিন ধরে রেড শার্ট সমর্থকরা ব্যাংককের অন্যতম কেন্দ্রস্থল ফান ফা সেতু এবং রাচাপ্রাসং এলাকা দখল করে রাখে৷ শনিবার পুলিশ এবং সেনা সদস্যরা রাবার বুলেট এবং কাঁদানে গ্যাস ছাড়াও জল কামান ব্যবহার করে ওই এলাকা থেকে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে৷ ডিপিএ আরও জানিয়েছে, পুলিশ হেলিকপ্টার থেকে সমবেত জনতাকে লক্ষ্য করে কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে৷ উল্লেখ্য, বুধবার থেকে ব্যাংকক ও তার আশপাশের ছয়টি প্রদেশে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়৷ টেলিভিশন চিত্রে দেখা যায়, সংঘর্ষ কালে পুলিশ জনতাকে লাঠিপেটা করে৷ অন্যদিকে পুলিশ এবং সেনাদের দিকে লক্ষ্য করে বিক্ষুব্ধ জনতা ইট পাটকেল ছুঁড়তে থাকে৷ এসময় অনেক বিক্ষোভকারীরা মাথায় হেলমেট পরে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়৷ বিক্ষোভকারীরা পেট্রোল বোমা ব্যবহার করেছে বলেও জানা গেছে৷

Proteste in Bangkok

সংসদ ভবনের সামনেই সংবিধানে আগুন ধরালো থাকসিন সমর্থকরা

ছড়িয়ে পড়ছে সংঘর্ষ

এদিকে বিকাল থেকে ব্যাংককে এই সংঘর্ষ শুরু হওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যে দেশের অন্যান্য জায়গায় তা ছড়িয়ে পড়ে৷ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, উত্তরাঞ্চলের চিয়াং মাই শহরে হাজার হাজার রেড শার্ট বিক্ষোভকারী গভর্নর অফিসের চত্ত্বর দখল করে নিয়েছে৷ এছাড়া উত্তর পূর্বাঞ্চলের উদন থানি শহরের টাউন হলের প্রবেশদ্বার ভেঙ্গে ফেলেছে বিক্ষোভকারীরা৷ রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন জায়গা থেকে সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে৷

প্রাণহানির ঘটনা বাড়ছে

শনিবারের সহিংসতায় এখন পর্যন্ত কমপক্ষে নয়জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ ব্যাংককের গভর্নর মালিনি সুকভেচাভোরাকিত বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘নয়জন মারা গেছে, চারজন সেনা, চারজন বেসামরিক ব্যক্তি এবং একজন সাংবাদিক৷' জানা গেছে নিহত সাংবাদিক একজন জাপানি ক্যামেরাম্যান৷ এদিকে বার্তা সংস্থা এপি নিহতের সংখ্যা ১০ জন বলে জানিয়েছে৷ এখন পর্যন্ত সংঘর্ষে পাচ শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছে বলে জানা গেছে৷ রাজধানীতে সংঘর্ষকালে এক বোমা বিস্ফোরণে বিশ জন সেনা আহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন জরুরি অবস্থা কার্যকর বিভাগের কমান্ডার কর্নেল সুনসের্ন কায়েকুমনের্ড৷ তিনি আশংকা করছেন, বিক্ষোভকারীরা স্যাবোটাজ করতে পারে৷ তবে তিনি পরিস্থিত শান্ত করার জন্য আলোচনার কথাও বলেছেন৷ এদিকে প্রধানমন্ত্রী অভিসিৎ ভেজ্জাজিভার কার্যালয়ের কাছেও একটি গ্রেনেড বিস্ফোরিত হয় বলে জানিয়েছে এএফপি৷ তবে এতে কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি৷

Abhisit Vejjajiva

থাই প্রধানমন্ত্রী অভিসিৎ ভেজ্জাজিভা (ফাইল ফটো)


ভেজ্জাজিভার পদত্যাগ দাবি

এদিকে বিক্ষুব্ধ রেড শার্ট প্রতিবাদকারীরা প্রধানমন্ত্রী অভিজিৎ ভেজ্জাজিভার অবিলম্বে পদত্যাগ দাবি করেছে৷ এতদিন ধরে তারা কেবল সংসদ ভেঙ্গে দেওয়ার আন্দোলন করছিল৷ শনিবারের সংঘর্ষের পর প্রতিবাদকারীদের নেতা ভিরা মুসিকাপোং বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, আমরা আমাদের দাবির পরিবর্তন করছি৷ অবিলম্বে সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে এবং আমরা ভেজ্জাজিভাকে দেশ ত্যাগ করার আহ্বান জানাই৷ এদিকে সেনাবাহিনী জানিয়েছে, সংঘর্ষস্থল থেকে সেনা সদস্যদের প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে৷ সেনা প্রধান জেনারেল অনুপং পাওজিন্দা বলেছেন, সেনাদের সরিয়ে আনতে হবে৷ আশ্রয় নেওয়ার মত কোন জায়গা নেই৷ আমরা কোন কিছু করতে পারবো না৷

প্রতিবেদক: রিয়াজুল ইসলাম, সম্পাদনা: জাহিদুল হক

সংশ্লিষ্ট বিষয়