1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

যৌন অপরাধের শাস্তি জেল নয়, জরিমানা!

জাপানে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক ঘাঁটিতে সংঘটিত বিভিন্ন যৌন অপরাধের দায়ে দেয়া শাস্তি পর্যালোচনা করে এমন তথ্য পেয়েছে বার্তা সংস্থা এপি৷

Afghanistan Sicherheit Verantwortung Übernahme NATO Soldaten 18.06.2013

ফাইল ছবি

‘ফ্রিডম অফ ইনফরমেশন অ্যাক্ট'-এর আওতায় এ সংক্রান্ত এক হাজারেরও বেশি নথি হাতে পেয়েছে এপি৷ তাতে দেখা যাচ্ছে, যৌন অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত বেশিরভাগ মার্কিন সেনাকে জেলে যেতে হয়নি৷ বরং শাস্তি হিসেবে তাদের জরিমানা বা পদাবনতি করা হয়েছে৷ কিছু কিছু ক্ষেত্রে ঘাঁটিতে চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ ও সামরিক বাহিনী থেকে চাকরিচ্যুতির ঘটনা ঘটেছে৷

দুটো ধর্ষণ মামলার ক্ষেত্রে সামরিক বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা কোর্ট মার্শাল করার আবেদন খারিজ করে অভিযুক্তদের খালাস করে দিয়েছেন, এমন ঘটনারও প্রমাণ পাওয়া গেছে৷

প্রকাশিত এসব তথ্য মার্কিন সামরিক বাহিনীর আইনি ব্যবস্থার সংস্কারের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেছে৷ ‘ইউনাইটেড স্টেটস সেনেট আর্মড সার্ভিসেস সাব-কমিটি অন পার্সোনেল'এর প্রধান সেনেটর কার্স্টেন গিলিব্রান্ডের প্রশ্ন, ‘‘সামরিক বাহিনীর আইনি প্রক্রিয়ায় সংস্কারের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করতে আমাদের আর কতগুলো ধর্ষণ ঘটনার জন্য অপেক্ষা করতে হবে?''

গিলিব্র্যান্ড ও তাঁর সহকর্মীরা এ সংক্রান্ত একটি বিলের খসড়া তৈরি করেছেন৷ তাতে বড় বড় অপরাধের ঘটনার বিচার করার সিদ্ধান্ত নেয়ার যে ক্ষমতা বর্তমানে কম্যান্ডারদের রয়েছে, সেটা বাতিল করে দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে৷

মার্কিন ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তারা অবশ্য এই পরিকল্পনার বিরোধিতা করছেন৷ তাঁদের দাবি, এভাবে সমস্যার সমাধান হবে না৷

জেডএইচ/ডিজি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন