1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

যে সাইকেল হেঁটে চালাতে হয়

নেদারল্যান্ডস সাইকেল-চালকদের দেশ হিসেবেই পরিচিত৷ কিন্তু প্যাডেল ছাড়াই পায়ে হেঁটে সাইকেল চালানোর অভিজ্ঞতা সেখানেও বেশি লোকের নেই৷ ডয়চে ভেলের এক সহকর্মী সেটাই করে দেখালেন৷

‘ইউরোম্যাক্স' অনুষ্ঠানের রিপোর্টার মাইকে ক্র্যুগার তাঁর নিজের অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিলেন৷ তাজা বাতাস খেতে খেতে হাঁটার মজাই আলাদা৷ বেশ আরামে হাঁটলেও আমার গতি কিন্তু বেশ বেড়ে গেছে৷ জিমের ট্রেডমিল যার একঘেয়ে লাগে, সে এবার ট্রেডমিল সঙ্গে নিয়ে বেরিয়ে পড়তে পারে৷ দাঁড়াতে হয় না, ঠেলে এগিয়েও যেতে হয় না৷ তার উপর দাঁড়িয়ে হাঁটলেই হলো৷

কয়েক ঘণ্টা আগে নেদারল্যান্ডসের উটরেখট শহরের দৃশ্য৷ এখানেই আমি ‘লপিফিট' নামের এই যন্ত্রটি ধার নিতে এসেছি৷ সেখানেই রব ফান ওইয়েন-এর সঙ্গে দেখা৷ তিনিই এই যন্ত্র বিপণন করেন৷ সেটি কীভাবে চলে, নিজেই দেখিয়ে দিলেন তিনি৷ ঠেলা মারলেই হলো৷

একটি ইলেকট্রিক ইঞ্জিন যন্ত্রটিকে চালু করে৷ লপিফিট বিপণনকারী রব ফান ওইয়েন বলেন, ‘‘এটা একটা বাইসাইকেল৷ আরও দ্রুত গেলে ঘন্টায় ২৫ কিলোমিটার গতি ওঠে৷ লপিফিট নিলে আরও দূরে যাওয়া যায়৷ হাঁটার চেয়ে বেশি ইন্টারেস্টিং৷''

ভিডিও দেখুন 04:10

হেঁটে হেঁটে কীভাবে চালাবেন সাইকেল? দেখে নিন...

২০১৪ সালে যন্ত্রটি বাজারে আসে৷ কিন্তু আন্তর্জাতিক আঙিনায় ব্যবসা সবে জমে উঠেছে৷ শুধু ইউরোপ নয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ অ্যামেরিকাতেও লপিফিট পাওয়া যাবে৷ ফান ওইয়েন বলেন, ‘‘এই মুহূর্তে উৎপাদন শুরু করার সময় কিছু সমস্যা হয়েছিল৷ তাই এখনো বিক্রি করতে প্রস্তুত নই আমরা৷ বিশাল চাহিদা, কিন্তু আমরা এখনো উৎপাদন করছি৷''

গোটা বিশ্বের লোক যা পারে, মনে হলো আমিও তা পারবো৷ কোম্পানির রিপোর্ট অনুযায়ী যে ৫০০ ব্যক্তি পরীক্ষামূলকভাবে এটি চালিয়েছিলেন, তাদের মধ্যে ৩০ শতাংশ কোনো প্রস্তুতি ছাড়াই চালাতে পেরেছিলেন৷ ১০ শতাংশের বেশ সমস্যা হয়েছিল৷ আমি হয়ত সেই ৬০ শতাংশের মধ্যে পড়ি, যাদের কয়েক মিনিট সময় লেগেছিল৷ একেবারেই নতুন অভিজ্ঞতা৷

কিন্তু আমাকে পারতেই হবে৷ বড় চ্যালেঞ্জ হাতে নিয়েছি৷ সারা দিনের ট্যুর৷ এর জন্য লাইসেন্স বা হেলমেট কিছুই লাগে না৷ রাস্তায় প্র্যাকটিস করে দেখলাম, আমি নিজে না হাঁটলেও আমার বাহনটি এগিয়ে যায়৷ কিন্তু প্রকৃতির কোল ছেড়ে আমি শহরের ব্যস্ততায় ভরা রাস্তায় যেতে চাই৷ উটরেখট শহরের কেন্দ্রস্থলে আমি আমার পারদর্শিতা দেখাচ্ছি৷

নেদারল্যান্ডস আসলে সাইকেল-চালকদের দেশ৷ লপিফিট সহজে চোখে পড়ে না৷ অনেকেই মাথা ঘুরিয়ে আমাকে দেখছেন৷ কিছুক্ষণ পর গতি কমে গেল৷ তবে এখনো সবার নজর কেড়ে চলেছি৷ তেমন জোর না দেওয়া সত্ত্বেও আমি সাইকেল চালকদের দিব্যি ওভারটেক করে যাচ্ছি৷ কিছু লোক সাহস করে আমার সঙ্গে কথা বলতে এগিয়ে এলেন৷ কারণ তাঁরাও একবার চালিয়ে দেখতে চান৷

কৌতূহলী দৃষ্টি বাড়তে থাকায় আমি বাকিদেরও চালাতে দিলাম৷ এমনকি হাই হিল জুতো পরা নারীরাও বাদ গেলেন না৷ শহরবাসী ও পর্যটকরা এই অ্যাডভেঞ্চারে যোগ দিলেন৷ সবার মনেই রোমাঞ্চ৷ সত্যি, একটু প্র্যাকটিস থাকলে ভালো হয়৷ কিন্তু সাইকেল চালাতে চালাতেও তো আমি নিশ্চিন্তে আইসক্রিম খেতে পারতাম না৷ এটাই হলো আমার জীবনের সবচেয়ে দ্রুত ও সুন্দর ওয়াক ছিল৷ জীবনে কোনোদিন এত দ্রুত পায়ে হাঁটিনি৷ তবে এটা ঠিক, যে লপিফিট এত দ্রুত নেদারল্যান্ডসে রাস্তায় সাইকেলের জায়গা নিতে পারবে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়