1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা

যে দেশে বিদেশি বেতার শোনার শাস্তি জেল

প্যারিসভিত্তিক ‘রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স’ বা আরএসএফ- এর সবশেষ ‘প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্স’-এ একেবারে তলার নামটি উত্তর কোরিয়ার৷ এক দশক ধরে সেখানে নাম থাকা ইরিত্রিয়াকে এবার সরিয়ে দিয়েছে তারা৷

বুধবার এই সূচক প্রকাশ করে জাতিসংঘের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করা সংগঠন আরএসএফ৷ উত্তর কোরিয়া সম্পর্কে তারা প্রতিবেদনে লিখেছে,‘‘এমনকি বিদেশি রেডিও শোনার জন্য কারও অবস্থান হতে পারে কনশেনট্রেশন ক্যাম্পে৷’’ উল্লেখ্য, বিরোধী মতের লোকজনকে আটকে রাখার জন্য উত্তর কোরিয়ায় কয়েকটি‘পলিটিক্যাল প্রিজন ক্যাম্প’ রয়েছে৷ সেখানকার বন্দিদের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয় বলে অভিযোগ রয়েছে৷ দিনের পর দিন বন্দিদের খেতে না দিয়ে মেরে ফেলা হয় বলে জানা গেছে৷

আরএসএফ-এর সূচকে সবার ওপর আছে নরওয়ের নাম৷ অর্থাৎ সারা বিশ্বে স্ক্যান্ডিনেভিয়ার এই দেশটির গণমাধ্যম সবচেয়ে স্বাধীন বলে জানতে পেরেছেন আরএসএফ-এর গবেষকরা৷ প্রতিবেদন তৈরিতে তাঁরা ১৮০টি দেশের গণমাধ্যম নিয়ে গবেষণা করেছেন৷

আরও কয়েকটি উল্লেখযোগ্য তথ্য

  • সাংবাদিকদের জন্য সবচেয়ে প্রাণঘাতী দেশ সিরিয়া৷ ২০১৬ সালে সেখানে ৬১ জন সাংবাদিক প্রাণ হারিয়েছেন৷ নেটিজেন নিহত হয়েছেন ৯ জন৷ আর ৮ জন গণমাধ্যম সহকারী মারা গেছেন৷ আর ২০১৭ সালে সিরিয়ায় এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৮ সাংবাদিক, ২ জন নেটিজেন ও একজন গণমাধ্যম সহকারী৷ এছাড়া এই মুহূর্তে সেখানে আটক আছেন ১৯৩ জন সাংবাদিক৷
  • সাংবাদিকদের জন্য সবচেয়ে বিপজ্জনক অঞ্চল হিসেবে নাম এসেছে মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার৷
  • বিশ্বের দুই-তৃতীয়াংশ দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা কমেছে৷
  • ফিনল্যান্ডের (৩) প্রধানমন্ত্রী ইউহা সিপিলের বিরুদ্ধে দেশটির সরকারি প্রচারমাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হওয়ার পর সেখানকার সম্পাদকীয় বিভাগে সিপিলে ২০টি ইমেল পাঠিয়েছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে৷ এর ফলশ্রুতিতে ঐ গণমাধ্যমের প্রধান সম্পাদক প্রচারের অপেক্ষায় থাকা অন্য প্রতিবেদনগুলোর প্রচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন৷
  • নিউজিল্যান্ডে (১৩) গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ক্ষমতা অনেক বাড়ানো হয়েছে৷
  • ক্যানাডায় (২২) যে অনুসন্ধানী সাংবাদিকরা সন্ত্রাসবাদ নিয়ে প্রতিবেদন করতে গিয়ে পুলিশি তথ্য প্রকাশ করেছেন, তাঁদের ওপর নজরদারি করেছে সরকারি বিভিন্ন সংস্থা৷
  • ব্রিটেনে (৪০) গোয়েন্দা নজরদারির হাত থেকে সাংবাদিকদের বাঁচাতে যে আইন ছিল তা ইচ্ছাকৃতভাবে খর্ব করা হয়েছে৷
  • যুক্তরাষ্ট্রে (৪৩) বিক্ষোভের ওপর খবর প্রকাশ করা সাংবাদিকদের বিচার করা হয়েছে৷ আরএসএফ-এর প্রতিবেদনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করা হয়েছে৷
  • জার্মানিতে (১৬) নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো প্রায়ই সাংবাদিকদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন৷ হুইসেলব্লোয়ারদের বিরুদ্ধে আইন করায় জার্মানির সমালোচনা করেছে আরএসএফ৷
  • সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৬ নম্বরে৷ সংবিধান ও ইসলাম ধর্মের বিরুদ্ধে সমালোচনাকে সরকার ভালো চোখে দেখে না বলে মন্তব্য করেছে আরএসএফ৷

আরএসএফ-এর প্রধান নির্বাহী মাইকেল রেডিস্ক বলছেন, ক্ষমতাবান রাজনৈতিক নেতারা গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর বাতিল করতে তাঁদের ক্ষমতা কাজে লাগাচ্ছেন, যা আতঙ্কের বিষয়৷

অ্যালিস্টেয়ার ওয়ালশ, ভল্ফগাঙ ডিক/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক