1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

যে তিনটি বিষয়ে ট্রাম্প ও ক্লিনটন একমত

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ডোনাল্ড ট্রাম্প আর হিলারি ক্লিনটনের মত পরস্পরের বিপরীত৷ কিন্তু এমন তিনটি বিষয় আছে যেখানে দুই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী বাস্তবিক একমত৷

মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির বিরোধিতা

২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সবচেয়ে বড় চমকগুলির মধ্যে একটি হলো এই যে, উভয় প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী মুক্ত বাণিজ্যের বিরোধী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছেন৷ ট্রাম্প আর ক্লিনটন দু'জনেই ঘোষণা করেছেন যে, প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাঁরা টিপিপি বা ট্রান্স-প্যাসিফিক পার্টনারশিপ চুক্তি আটকে দেবেন, যদিও এই চুক্তি নিয়ে যাবতীয় আলাপ-আলোচনা ইতিমধ্যেই সাঙ্গ৷

ব্যাপারটা লক্ষণীয়, কেননা, যেমন ডেমোক্র্যাট, তেমনি রিপাবলিকানরা প্রথাগতভাবে মুক্ত বাণিজ্য সমর্থন করে এসেছে৷ রিপাবলিকান দল তো চিরকালই নিজেদের মুক্ত বাণিজ্যের প্রবক্তা হিসেবে গণ্য করে৷ ডেমোক্র্যাটরা মুক্ত বাণিজ্য সম্পর্কে অতটা উৎসাহী না হলেও, বিল  ক্লিনটনের প্রেসিডেন্সি চলাকালীন উত্তর অ্যামেরিকা মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির মতো বিতর্কিত বিল পাশ হওয়ার পিছনে ছিল ডেমোক্র্যাটরা৷

দ্বিতীয়ত, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে হিলারি ক্লিন্টন নিজেই টিপিপি সংক্রান্ত আলাপ-আলোচনায় অংশ নিয়েছেন৷ কিন্তু ডেমোক্র্যাট প্রার্থী নির্বাচনের প্রথম পর্যায়ে বার্নি স্যান্ডার্সের মুখোমুখি হয়ে তিনি তাঁর অবস্থান বদলাতে বাধ্য হন৷ কাজেই ক্লিনটন আজ টিপিপি বিরোধী৷ অপরদিকে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প বারংবার বিষোদ্গার করেছেন, মার্কিন কোম্পানিগুলো তাদের উৎপাদন মেক্সিকোর মতো দেশে ‘আউটসোর্স' করেছে বলে, অথচ তিনি নিজেও তার ব্যবসায়ে ঠিক তা-ই করে থাকেন৷

যুক্তরাষ্ট্রের অবকাঠামোয় বিনিয়োগ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রাস্তাঘাট, সেতু, বিমানবন্দর বা জলপথগুলির জীর্ণদশা৷ কাজেই অবকাঠামোর উন্নতি ঘটানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ক্লিনটন ও ট্রাম্প, উভয়েই৷ ক্লিনটন জানিয়েছেন, তিনি অবকাঠামোর আধুনিকীকরণে পাঁচ বছরে মোট ২৭৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করবেন৷ ট্রাম্প বলেছেন, তিনি অন্তত তার দ্বিগুণ ব্যয় করবেন অবকাঠামোর উন্নতিসাধনে৷ উভয়েরই প্রত্যাশা যে, এই বিনিয়োগের ফলে হাজার হাজার নতুন চাকুরি সৃষ্টি হবে৷

অবকাঠামোর উন্নতি ভোটারদের কাছেও গুরুত্বপূর্ণ: সাম্প্রতিক এক জরিপে ৬৮ শতাংশ রিপাবলিকান, ৭০ শতাংশ ইন্ডিপেন্ডেন্ট ও ৭৬ শতাংশ ডেমোক্র্যাট ভোটাররা এই মত প্রকাশ করেছেন যে, ওয়াশিংটনের দেশের অবকাঠামোর উন্নতি ঘটানো উচিৎ৷

যুদ্ধফেরত সৈন্যদের জন্য স্বাস্থ্যসেবা

ট্রাম্প ও ক্লিনটন, উভয়েই তথাকথিত ‘ভেটারানস' হেল্থ অ্যাডমিনস্ট্রেশন'-এর আমূল সংস্কার করে যুদ্ধফেরত মার্কিন সৈনিকদের জন্য উন্নততর স্বাস্থ্য সেবার ব্যবস্থা করতে চান৷ কাজটা খুব সহজ হবে না: দেশের প্রায় দু'কোটি সাবেক সৈন্য ও তাদের পরিবারের ভোট খুব কম নয়৷ তবে ট্রাম্প যেখানে তথাকথিত ‘ভেটারান'-দের বেসরকারি স্বাস্থ্য পরিষেবা দেবার পক্ষে, ক্লিনটন তার বিরোধী৷

প্রতিবেদন: মিশায়েল ক্নিগে/এসি

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়