1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

যে গ্রামের শিশুদের কখনোই টিকা দেওয়া হয়নি

বাংলাদেশের একটি আদিবাসী গ্রামে হামে ন'টি শিশুর মৃত্যুর পর জানা গেল দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে, অর্থাৎ ৪৭ বছরে সেই গ্রামের শিশুদের কখনোই টিকা দেয়া হয়নি৷ এমনকি টিকাদানের যে ‘মাইক্রোপ্ল্যান ম্যাপ', সেখানেও ঐ গ্রামের নাম নেই৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

এই গ্রামটি হলো চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ত্রিপুরা পাড়া৷ সেখানে ৮৫টি বাড়িতে ৩৮৮ জন নারী পুরুষ ও শিশুর বাস৷ তাদের মধ্যে ১৭৬ জনের বয়স ২০ বছরের নীচে৷ তারা কোনোদিনই শিশুদের টিকাদান কর্মসূচির আওতায় আসেনি৷ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ সংবাদমাধ্যমকে জানান, ‘‘দেশের প্রতিটি ইউনিয়নে ওয়ার্ডভিত্তিক পরিকল্পনা অনুযায়ী টিকাদান কর্মসূচি পালিত হয়৷ কিন্তু সীতাকুণ্ড উপজেলায় সোনাইছড়ি ইউনিয়নের তালিকায় ত্রিপুরা পাড়ার নাম উল্লেখ নেই৷ ম্যালেরিয়া অন্যান্য কয়েকটি রোগ প্রতিরোধ প্রকল্পের আওতায় থাকলেও ত্রিপুরা পাহাড়ের ন'টি এলাকায় ৩৮৮ জন মানুষ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এ টিকাদান কর্মসূচির বাইরে ছিল৷ এ কারণে সেখানে কোনো টিকাদান কার্যক্রম ছিল না৷''

তিনি আরো জানান, ‘‘মাইক্রোপ্ল্যান ম্যাপেও ত্রিপুরা পাড়া উল্লেখ নেই৷ এ কারণে ত্রিপুরা পাড়ায় টিকাদান কার্যক্রম ছিল না৷ ফলে সীতাকুণ্ডে হামে আক্রান্ত হয়ে মারা এ সব শিশু৷ অথচ এ জন্য স্বাস্থ্য মহাপরিচালক দায় স্বীকার না করে শুধু দুঃখ প্রকাশ করেন৷''

সীতাকুণ্ডে ৮ জুলাই প্রথম একটি শিশু মারা যায়৷ এরপর ৯ জুলাই মারা যায় দু'টি শিশু৷ ১১ জুলাই একটি ও ১২ জুলাই চারটি শিশুর মৃত্যু হয়৷ পরে হাসপাতোলে আরো একটি মিশু মারা গেলে মোট মৃতের সংখ্যা দাড়ায় ন'য়ে৷

অডিও শুনুন 03:53

‘স্থানীয় তথ্যের ভিত্তিতেই টিকাদানের মাইক্রোপ্ল্যান ম্যাপ তৈরি করা হয়’

সংবাদমাধ্যমে এ খবর প্রকাশের পর আইইডিসিআর-এর পাঁচ সদস্যের টিম সেখানে যায়৷ আক্রান্ত শিশুদের দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে৷ পরে ল্যাব টেস্টে দেখা যায়, আক্রান্ত ও মৃত শিশুরা হাম রোগের জীবাণু দ্বারা সংক্রমিত হয়েছিল৷ শুধু তাই নয়, পুষ্টিহীনতাতেও ভুগছিল তারা৷ এ কারণে একজনের শরীর থেকে অন্যজনের শরীরে দ্রুত সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছিল৷ অপুষ্টির কারণে সংক্রমণ তীব্র আকার ধারণ করেছিল৷ এরপরও ঠিক সময়ে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে মৃত্যুর আশঙ্কা থাকত না৷

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘স্থানীয়ভাবে দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই টিকাদানের মাইক্রোপ্ল্যান ম্যাপ তৈরি করা হয়৷ সেই তথ্য পাওয়া যায়নি বলেই ঐ গ্রামটিতে স্বাধীনতার পর থেকে কোনো টিকাদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়নি৷ তাই দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে ছ'জন স্বাস্থ্য মাঠ কর্মীকে বদলি করা হয়েছে৷''

তিনি দাবি করেন, ঐ এলাকার অধিবাসীরা টিকা নিতে চাইতেন না, তাঁরা তাঁদের স্থানীয় টোটকা চিকিৎসায় বিশ্বাসী ছিলেন৷ এটা জানার পর মাঠ কর্মীরা সে কথা ঊর্ধতন কর্মকর্তাদের জানায়নি৷ তাঁদের অবহেলা এটাই৷ এ কারণে তাঁদের বদলি করা হয়েছে৷ যদি এমন হতো যে তাঁরা টিকা কর্মসূচির আওতায় আসতে চাওয়ার পরও আনা হয়নি, তাহলে ঐ ছ'জনকে চাকরিচ্যুত করা হতো৷''

স্বাস্থ্য মহাপরিচালক দাবি করেন, ‘‘একটি শিশু মারা যাওয়ার পর তাঁরা মশাল জ্বালিয়ে প্রার্থনা করে রোগ দূর করার চেষ্টা করেন৷ অথচ চিকিৎসকের কাছে যাননি৷''

অডিও শুনুন 02:47

‘একটা গ্রাম স্বাধীনতার পর থেকে এ কর্মসূচির বাইরে থাকা দুঃখজনক’

জাতীয় টিকাদান কর্মসূচি প্রকল্পের প্রধান ডা. মো. জাহাঙ্গির আলম সরকার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘শিশুদের টিকাদান কর্মসূচি একটি সফল প্রকল্প৷ সারা বিশ্বে প্রশংসিত৷ আমরা বিনামূল্যে ১০টি রোগের ১১টি টিকা দিই৷ আর এটা ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত ম্যাপ করে দেওয়া হয়৷ সেইক্ষেত্রে পুরো একটি গ্রাম স্বাধীনতার পর থেকে এই কর্মসূচির বাইরে থাকা দুঃখজনক৷ তাছাড়া গ্রামটি দুর্গম কোনা এলকাতেও নয়, চট্টগ্রাম শহরের কাছেই৷ আমরা তদন্ত করে দেখছি যে এটা কীভাবে হলো৷''

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমরা এ রকম আরো কোনো গ্রাম বা এলকা আছে কিনা তাও দেখতে চাচ্ছি৷ এক সপ্তাহের মধ্যে আমরা সেটা জানতে পারব৷''

এদিকে ন'টি শিশুর মুত্যুর পর ত্রিপুরা পাড়া নিয়ে এখন তোড়জোর পড়ে গেছে৷ সিভিল সার্জন জানান, ‘‘আমরা এরইমধ্যে অস্থায়ীভাবে টিকাদান ও পুষ্টিকেন্দ্র খুলেছি৷ স্যাটেলাইট ক্লিনিক চালু করেছি৷ এখন আর কোনো সমস্যা নাই৷ পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও