1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

যে গাড়ি চলবে হাওয়ায়

‘হাওয়া গাড়ি’ অর্থাৎ ‘হাইড্রোজেন কার’ বাজারে আসতে চলেছে৷ অশ্মীভূত জ্বালানি থেকে পরিত্রাণ পাবার এও একটা উপায়৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কালে এই হাইড্রোজেন খনিজ তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাসের মতো প্রতিদ্বন্দ্বীদের ছাড়িয়ে যাবে৷

Toyota FCV

ফাইল ফটো

এখনই ‘তেল' ভরা যায়, তবে গাড়িটি কিনতে পাওয়া যাবে আগামী বছর থেকে৷ দাম পড়বে ৬০ হাজার ইউরো – একটা সাধারণ গাড়ির দামের প্রায় দ্বিগুণ৷ ‘টোটাল' তেলের কোম্পানির মানুয়েল ফুক্স বলেন: ‘‘হাইড্রোজেন কার, অর্থাৎ হাইড্রোজেনে চলে এমন গাড়ি ইতিমধ্যে অফিস কার হিসেবে ব্যবহার করা চলে, কেননা তার জ্বালানি নেবার সময় যেমন কম, তেমনই একবার ট্যাংক ভরলে বহুদূর যাওয়া যায়৷ এছাড়া অফিস কার মানেই প্রাইভেট কাস্টমাররাও শিঘ্রই সেদিকে ঝুঁকবেন৷''

হাইড্রোজেনের জয়যাত্রা

এ গাড়ির একজস্টে কোনো ধোঁয়া নেই, শুধু ফোঁটা ফোঁটা জল ঝরে৷ গাড়ির প্রায় কোনো আওয়াজ নেই৷ একবার ট্যাংক ভরলে চারশো কিলোমিটার যেতে পারে৷ এ যাবৎ সারা দেশে খুব বেশি হাইড্রোজেন ভরার কেন্দ্র নেই৷ আর দশ বছরের মধ্যে দেশজোড়া একটা নেট তৈরি হয়ে যাওয়ার কথা৷ হাইড্রোজেন এভাবে খনিজ তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাসকে পিছনে ফেলে দিতে পারে৷

‘লিন্ডে' কোম্পানির টিম হাইস্টারকাম্প বলেন: ‘‘আমরা যদি ধরে নিই যে, মাঝারি বা দীর্ঘমেয়াদি সূত্রে আমরা নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে হাইড্রোজেন সৃষ্টি করতে পারব, তাহলে আমরা অশ্মীভূত জ্বালানি আমদানি থেকে অনেকটা সরে আসতে পারব৷''

জটিল প্রযুক্তি

হাইড্রোজেন উৎপাদনের ক্ষেত্রে ‘লিন্ডে' কোম্পানি অন্যতম: বহু বছর যাবৎ তারা এই নতুন প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করে আসছে৷ কারখানার ম্যানেজার জানেন যে, চাহিদা একদিন বাড়বেই৷ তখন ‘লিন্ডে'-র প্রতিযোগীরা এ ধরনের কারখানা বানাতে হিমশিম খেয়ে যাবে৷

গ্যাসের আগুন চুল্লিটিকে ১,০০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড অবধি উত্তপ্ত করে৷ সেই উত্তাপে পানি হাইড্রোজেনে পরিণত হয়, যা ঐ জ্বালানি শক্তিকে ধরে রাখে৷ কারখানার পরিচালক রেনে ম্যুলার বলেন: ‘‘এই দক্ষতায় পৌঁছাতে বহু বছর কেন, বহু দশক লেগে যায়৷ এই পাইপের জঙ্গল দেখলে বোঝা যায় যে, এটা একটা খুব জটিল প্রযুক্তি৷''

কোটি কোটি ইউরো-র এক অনাবিষ্কৃত বাজার এবং ব্যবসা, যার জন্য ‘লিন্ডে' ইতিমধ্যেই একটি ‘ফিলিং প্ল্যান্ট' তৈরি করে ফেলেছে৷ আর কয়েক বছরের মধ্যেই এখান থেকে ট্যাংকেরে করে জ্বালানি যাবে খরিদ্দারদের কাছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক