1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

যে গাছ গজায় কাত হয়ে

গাছ আকাশমুখো হয়ে গজায় কেন, সেটা কোনোদিন ভেবে দেখেছেন? তার শিকড়ই বা জানে কীভাবে, যে তাকে মাটির নীচে নেমে যেতে হবে? গাছেদের এই সোজা হিসেবটা গোলমাল করে দিলে, তারা কি কাত হয়ে গজাবে?

‘মাধ্যাকর্ষণ জীববিজ্ঞানী' আলিনা শিক-এর তত্ত্বাবধানে যে গাছগুলো রয়েছে, সেগুলো ওপরদিকে গজায় না৷ বরং একটি চাতুরি করে গাছগুলোকে বুঝতেই দেওয়া হয় না, মাধ্যাকর্ষণের টানটা কোনদিকে! এ ভাবে হয়তো একদিন দেয়ালেই গাছ বসানো যাবে, বলে বিজ্ঞানীদের আশা৷

হোয়েনহাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োলজিস্ট ড. আলিনা শিক বলেন: ‘‘এই কাত হয়ে গজানো গাছটাকে এবার অন্যত্র লাগানো হবে, যেমন কোনো বহুতল ভবনের দেয়ালে৷ অপরদিকে আমরা বিজ্ঞানের দৃষ্টিকোণ থেকে গাছটার বাড়ের উপর নজর রাখছি, ঘোরানোর ফলে তার কী প্রতিক্রিয়া হচ্ছে৷''

আলিনা শিক-এর কর্মস্থল হোয়েনহাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রিনহাউস-গুলিতে সূর্যমুখী, আরালিয়া ইত্যাদি নানা ধরনের গাছ কাত হয়ে গজাচ্ছে৷ তাদের মধ্যে কোনোটাই আলোর দিকে বেঁকে যায় না; তার কারণ, যে টবে গাছটা বসানো, সেটা ক্রমাগত ঘুরে যাচ্ছে৷

ক্লিনোস্টাট এবং স্ট্যাটোলিথ

টবগুলো একটি ঘোরা চাকতির ওপর বসানো, সেই চাকতি ঘোরে মোটর ও চেন দিয়ে৷ এগুলোকে বলা হয় ‘ক্লিনোস্টাট', যার আবিষ্কার আজ থেকে প্রায় দেড়শো বছর আগে, উদ্ভিদের উপর মাধ্যাকর্ষণের প্রভাব নিয়ে গবেষণা করার জন্য৷ আলিনা শিক'এর ব্যাখ্যান:

‘‘এক্ষেত্রে গাছটা শুধু একদিক থেকে নয়, সব দিক থেকে আলো পাচ্ছে৷ যার অর্থ, গাছের কোনো অংশ ছায়ায় থাকছে না, ফলে ফটোসিন্থেসিস-এর হার বেড়ে যাচ্ছে৷ এছাড়া দেখা হচ্ছে, আলো কিংবা মাধ্যাকর্ষণের মতো বাহ্যিক উপাদান বদলে গেলে গাছের অভ্যন্তরীণ রসায়নে কোনো অদল-বদল হয় কিনা৷

শেষমেষ আমরা দেখব, গাছের কাঠের উপর তার কী প্রভাব পড়ে৷ কাত হয়ে যে গাছ গজিয়েছে, নিজের ওজন থেকেই তার উপর অনবরত চাপ ও টান পড়ে, কাজেই তার কাঠের গুণগত বৈশিষ্ট্য অন্যরকম হতে পারে৷''

বিজ্ঞানী হিসেবে আলিনা শিক জানতে চান, গাছের বড় হওয়ায় আলো এবং তাপ ছাড়া মাধ্যাকর্ষণ কী ভূমিকা পালন করে৷ এক্ষেত্রে প্রথমেই জানতে হবে, গাছেরা মাধ্যাকর্ষণ অনুভব করে কিনা৷ সেজন্য আগে বুঝতে হবে, গাছেরা সাধারণত খাড়া হয়ে গজায় কেন:

‘‘উদ্ভিদরাও অন্যান্য প্রাণীদের মতো তথাকথিত স্ট্যাটোলিথ-এর মাধ্যমে মাধ্যাকর্ষণ অনুভব করে – ছবিতে আমরা যেমন দেখতে পাচ্ছি৷ এই ‘ভারীত্বের কণাগুলি' মাধ্যাকর্ষণের ফলে নীচে পড়ে গিয়ে তলার কোষটির উপর চাপ দেয় – ঠিক এখানে যেমন দেখা যাচ্ছে৷ সাধারণ পরিস্থিতিতে উদ্ভিদের প্রতিক্রিয়া হবে, শিকড়গুলো নীচের দিকে বাড়বে, বাকি ডালপালা ওপর দিকে উঠবে৷''

সবুজ স্থাপত্য

টব একটানা ঘুরে যাওয়ার ফলে গাছেদের মাধ্যাকর্ষণ অনুভব করার ক্ষমতা ব্যাহত হচ্ছে:

‘‘এ ভাবে ঘোরার ফলে স্ট্যাটোলিথগুলো আর নীচের দিকে পড়ে না, তলার কোষের উপর চাপ দেয় না৷ কাজেই গাছটি আর মাধ্যাকর্ষণ অনুভব করতে পারে না এবং কাত হয়েই গজাতে থাকে৷''

কাত হয়ে গজানো গাছ দেখলে মানুষজন আজও চমকে যান, খুশি হন৷ তথাকথিত পরিবেশ-বান্ধব, ‘সবুজ' স্থাপত্যেও ইট-কাঠ-পাথরের দেয়াল থেকে কাত হয়ে গজানো গাছ খুব সুন্দর মিলে যাবে৷ গাছে ভরা দেয়াল বাড়ির শীততাপ, আর্দ্রতা ও ধুলোবালি নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে:

‘‘কাত হয়ে গজানো গাছ বাড়ির দেয়ালে বাগান করায় কাজে দিতে পারে – সবুজ স্থাপত্য! সে ক্ষেত্রে গাছগুলো অবিরাম ঘুরে যাওয়ার ফলে গরম আর ধোঁয়াশা কমানো যায় কিনা, তাও দেখা হচ্ছে৷ আবার ঘোরানো গাছ বাড়িতে ঘর সাজানোর কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে৷ কাত হয়ে গজানো ঘুরন্ত গাছ দেয়ালে বসালে তা সুন্দর দেখাবে বৈকি৷''

বিশ্বের সব দেশেই আজ শহরের কেন্দ্রে জায়গা নেই বলে হাই-রাইজ বিল্ডিং তৈরি হচ্ছে৷ এ যাবৎ গাছপালা সেই সব বাড়ির দেয়ালে লতানো ছিল কিংবা বারান্দার টবে লাগানো ছিল৷ এবার তারা দেয়াল থেকে কাত হয়ে গজাতে পারবে৷

তবে সেটা যে কবে ঘটবে, তা এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না৷ আলিনা শিক একটি কোম্পানি সৃষ্টি করে বিনিয়োগকারী খুঁজছেন – তবে তাঁর কাত হয়ে গজানো গাছ বাজারে আসতে আরো কিছুদিন সময় লেগে যাবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়