1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের কাজে সুপ্রিম কোর্টের অসন্তোষ

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন এবং তদন্তকারী সংস্থার দক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত৷ এর আগে বিভিন্ন মামলা পরিচালনার সময়ও ট্রাইব্যুনাল একই প্রশ্ন তুলেছিল৷

মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য মীর কাসেম আলীর আপিলের শুনানির সময় ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন এবং তদন্ত সংস্থার কাজ নিয়ে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেন৷ আদালত বলেন, তাঁদের (প্রসিকিউটর ও তদন্ত সংস্থা) পেছনে সরকার যথেষ্ট অর্থ খরচ করছে৷ অথচ তাঁরা সঠিকভাবে মামলা তদন্ত ও পরিচালনা করছেন বলে মনে হয় না৷ যেসব প্রসিকিউটর অদক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন তাঁদের সরিয়ে দেয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন আদালত৷ অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সেই সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন৷

মাহবুবে আলম পরে সাংবাদিকদের জানান, ‘‘মীর কাসেমের আপিল শুনানির সময় আপিল বিভাগে বেশ কিছু অসংগতি ধরা পড়ার ফলে ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন ও তদন্ত সংস্থার ওপর আদালত গভীর অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন৷''

এর আগে জামায়াতের নায়েবে আমীর দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আপিল মামলায়ও প্রসিকিউশন ও তদন্ত সংস্থার কাজে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন আদালত৷

অডিও শুনুন 05:00

‘আপিল বিভাগের ঢালাও অভিযোগ অনাকাঙ্খিত’

অসদাচরণের তদন্ত

ট্রাইব্যুনালের একজন প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলীর গুরুতর পেশাগত অসদাচরণের তদন্ত হচ্ছে৷ তাঁকে এরইমধ্যে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে৷ এর আগে শৃঙ্খলা ও আচরণবিধি ভঙ্গ এবং গুরুতর পেশাগত অসদাচরণের অভিযোগে মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইন মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠান চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপু৷ সাময়িক বরখাস্তের আগে ৪ ফেব্রুয়ারি চিফ প্রসিকিউটর এক অফিস আদেশের মাধ্যমে মোহাম্মদ আলীকে ট্রাইব্যুনালের মামলা পরিচালনা থেকে প্রত্যাহার করেন৷

প্রধান বিচারপতি ‘আনকাইন্ড' মন্তব্য করেছেন

এই প্রসঙ্গে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ব্যক্তিগতভাবে কোনো প্রসিকিউটর বা তদন্তকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকতে পারে৷ আমরাও প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছি৷ কিন্তু আপিল বিভাগ যেভাবে ঢালাও অভিযোগ করেছে তা অনাকাঙ্খিত৷ প্রধান বিচারপতি আমার বিবেচনায় ‘আনকাইন্ড' মন্তব্য করেছেন৷ মীর কাসেম আলীর মামলায় যদি প্রসিকিউশন ও তদন্ত সংস্থার অযোগ্যতার প্রশ্ন এখন তোলা হয় তাহলে এই দায়তো ট্রাইব্যুনালের বিচারকদের ওপর যায়৷ কিন্তু আমার বিবেচনায় ট্রাইব্যুনাল এপর্যন্ত যে ১৭টি মামলার রায় দিয়েছে তা যুগান্তকারী৷''

তিনি বলেন, ‘‘এটা করে আপিল বিভাগ জামায়াতের হাতে একটি অস্ত্র তুলে দিয়েছেন৷ এখন সবগুলো মামলায় জামায়াত এই অস্ত্র ব্যবহার করবে৷ কিন্তু আমরাতো জানি কত প্রতিকূল অবস্থা, হুমকি, হামলার মুখে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে৷ বিচারক ও প্রসিকিউটরের বাড়িতে হামলা হয়েছে৷ ৪০ বছরে অনেক ডকুমেন্ট নষ্ট করা হয়েছে৷ অনেক সাক্ষীকে আদালতে আসতে দেয়া হয়নি৷ আপিল বিভাগের এগুলো বিবেচনায় থাকা উচিত৷''

শাহরিয়ার কবির আরো বলেন, ‘‘প্রসিকিউটর এবং তদন্তকারীদের পেশাগত দক্ষতার আরো উৎকর্ষতা চাই আমরা৷ কিন্তু তাই বলে ত্রুটিপূর্ণ তদন্তের মধ্য দিয়ে মামলার রায় হয়েছে এই কথা কোনভাবেই ঠিক নয়৷''

প্রিয় পাঠক, শাহরিয়ার কবিরের বক্তব্যের সঙ্গে আপনি কি একমত? মন্তব্য করতে পারেন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়