1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফিলিপাইন্স

যুক্তরাষ্ট্র থেকে ‘বিচ্ছিন্ন' হওয়ার ঘোষণা দিলেন দুতার্তে

ফিলিপাইন্সের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তে গত জুন মাসে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে একের পর এক মন্তব্য করে চলেছেন৷ এবার যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক না রাখার কথাও বললেন তিনি৷

China Peking Staatsbesuch Rodrigo Duterte Philippinen (picture-alliance/AP Images/Wu Hong)

ফিলিপাইন্সের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তে

চারদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে এখন চীনে আছেন দুতার্তে৷ সেখানেই বৃহস্পতিবার দুই দেশের ব্যবসায়ীদের সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সামরিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা দেন তিনি৷ দুতার্তে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক থেকে ফিলিপাইন্স খুব একটা লাভবান হয়নি৷ এর আগে দেশটির সঙ্গে নিয়মিত হয়ে আসা যৌথ সামরিক মহড়া বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি৷

দুতার্তে বলেন, চীন ছাড়াও রাশিয়ার সঙ্গেও সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা করবেন তিনি৷

ফিলিপাইন্সের প্রেসিডেন্টের এমন মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জন কিরবি বলেন, ‘‘ম্যানিলার কাছ থেকে ওয়াশিংটন এখনো কোনো অফিসিয়াল তথ্য পায়নি৷ তবে ‘প্রেসিডেন্ট (দুতার্তে) আসলে কী বলতে চেয়েছেন' তা আমরা জানতে চাইবো৷''

তবে দুতার্তের বক্তব্যের একটি ব্যাখ্যা দিয়েছেন দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রী ব়্যামন লোপেজ৷ সিএনএন ফিলিপাইন্সকে তিনি বলেন, ‘‘শুধুমাত্র এক দেশের উপর বেশি নির্ভরশীল থাকতে চায় না ফিলিপাইন্স৷ পশ্চিমের সঙ্গে, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে, আমরা অবশ্যই বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সম্পর্ক ছিন্ন করবো না৷''

চীনের দিকে সম্পর্ক উন্নয়ন

দুতার্তে ক্ষমতায় আসার আগে চীনের সঙ্গে ফিলিপাইন্সের সম্পর্ক ভালো ছিল না৷ দক্ষিণ চীন সাগরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল৷ এর সমাধানে বছর পাঁচেক আগে আলোচনা শুরু হয়েছিল৷ কিন্তু পরবর্তীতে চীন ফিলিপাইন্সের অর্থনৈতিক জোনের আওতাভুক্ত স্কারবোরো চরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়ায় আলোচনা বন্ধ হয়ে যায়৷ তারপর সেই চর ফিরে পেতে ফিলিপাইন্স আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করলে মামলার রায় তাদের পক্ষে যায়৷ এই রায় আসে দুতার্তে প্রেসিডেন্ট হওয়ার কিছুদিন পর৷ তবে দুতার্তে এই রায় কার্যকরের ব্যাপারে তেমন একটা আগ্রহ দেখাননি৷ এবার তিনি যখন চীনা প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন তখন সমস্যার সমাধানে আবারও আলোচনা শুরুর সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন চীনের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা৷

এছাড়া চলতি সফরে চীনের সঙ্গে কয়েক বিলিয়ন ডলারের ঋণচুক্তি সই করেছে ফিলিপাইন্স৷

জেডএইচ/এসিবি (ডিপিএ, রয়টার্স, এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়