1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্র থেকে নথিবহির্ভূত অভিবাসীদের বহিষ্কার করা যাবে

ট্রাম্প প্রশাসনের নতুন নির্দেশ প্রায় সব অবৈধ অভিবাসীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য৷ এই নির্দেশের ফলে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বত্র নথিবহির্ভূত অভিবাসীদের বহিষ্কার করা সম্ভব৷ অভিবাসন সংক্রান্ত কর্মকর্তাদের সংখ্যা বাড়ানোর কথাও ভাবা হচ্ছে৷

ট্রাম্প প্রশাসনের সর্বাধুনিক নির্দেশাবলীর ফলে বহিষ্কারের পরিধি বাড়বে৷ যুক্তরাষ্ট্রে যে এক কোটি দশ লক্ষ বেআইনি অভিবাসী আছেন, প্রয়োজনে তাদের সকলকেই বহিষ্কার করার অধিকার থাকবে অভিবাসন কর্মকর্তাদের৷

হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র শন স্পাইসার মঙ্গলবার বলেন যে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিবাসন কর্মকর্তাদের ‘শৃঙ্খলমুক্ত'' করতে চান৷ সেই দিনই প্রকাশিত নতুন অভিবাসন নির্দেশাবলী ট্রাম্পের সামগ্রিক নিরাপত্তা পরিকল্পনার অঙ্গ, বলে মনে করা হচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

অভিবাসন কর্মকর্তাদের জন্য ডিপার্টমেন্ট অফ হোমল্যান্ড সিকিউরিটি (ডিএইচএস) থেকে যে দু'টি মেমো ইস্যু করা হয়েছে, তার একটিতে বিভাগীয় সেক্রেটারি জন কেলি বলেছেন, ‘‘দক্ষিণ সীমান্তে বেআইনি অভিবাসন অতিমাত্রায় বাড়ায় সংশ্লিষ্ট ফেডারাল দপ্তরগুলি ও তাদের সাজসরঞ্জাম অপর্যাপ্ত হয়ে পড়েছে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের  পক্ষে একটি তাৎপর্যপূর্ণ জাতীয় নিরাপত্তা ঝুঁকি সৃষ্টি হয়েছে৷''

প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে যে সব অবৈধ অভিবাসীর কোনো গুরুতর অপরাধের সঙ্গে সংযোগ ছিল না, তাদের বহিষ্কারকে গুরুত্ব অথবা অগ্রাধিকার দেওয়া হতো না৷ ডিপার্টমেন্ট অফ হোমল্যান্ড সিকিউরিটির নতুন মেমোয় এই নীতি লক্ষণীয়ভাবে বদলে দেওয়া হয়েছে৷

অপরদিকে ওবামা এবং জর্জ ডাবলিউ বুশের প্রশাসন, উভয়েই অভিবাসন নীতির এমন একটি কাঠামো সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছিল যা'তে দীর্ঘমেয়াদে অ-নথিভুক্ত অভিবাসীরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকতে পারেন৷

বহিষ্কারের বিপদ বাড়ল

নতুন মেমোগুলিতে যে সর্বাঙ্গীণ নীতির আভাস দেওয়া হয়েছে, তা প্রায় সব অ-নথিভুক্ত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য: ‘‘অত্যন্ত সীমিত কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া, ডিএইচএস কোনো শ্রেণী বা পর্যায়ের বহিষ্কারযোগ্য বিদেশিদের এই নির্দেশ কার্যকরি করা থেকে অব্যাহতি দেবে না৷''

ডিএইচএস কর্মকর্তারা বলছেন যে, যে সব অ-নথিভুক্ত ব্যক্তিদের ঝুঁকি বলে গণ্য করা হচ্ছে, তাদের বিরুদ্ধে সর্বাগ্রে ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ তবে যে প্রায় সাড়ে সাত লাখ ‘‘ড্রিমার'' শিশুবয়সে বেআইনিভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এসেছে, তারা পূর্বাপর সুরক্ষিত থাকবে৷

‘‘শৃঙ্খলমুক্ত''

নতুন নির্দেশে যে দু'টি দপ্তরে আরো ১৫,০০০ নতুন কর্মকর্তা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে, সে দু'টি হল শুল্ক ও সীমান্ত সুরক্ষা (সিবিপি) এবং অভিবাসন ও শুল্ক প্রয়োগ (আইসিই)৷

মেমো দু'টির ফলে আইসিই-র এজেন্টরা ‘‘ত্বরান্বিত বহিষ্কার''-এর সংখ্যা বাড়াতে পারবেন৷ এই ‘‘ত্বরান্বিত বহিষ্কার'' হল শুনানি ছাড়াই বহিষ্কার, বিশেষ করে সেই সব অভিবাসীদের, যারা প্রমাণ করতে পারবেন না যে, তারা দু'বছরের বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন৷ তবে এই পদক্ষেপটি আপাতত ফেডারাল রেজিস্টারে প্রকাশ ও পর্যালোচনার অপেক্ষায় থাকবে৷ বর্তমানে যে সব ব্যক্তিদের সীমান্তে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ও যারা প্রমাণ করতে পারছেন না যে, তারা ১৪ দিনের বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্রে আছেন - একমাত্র তাদেরই বিনা শুনানিতে বহিষ্কার করা সম্ভব৷

তবে নতুন নির্দেশ অনুযায়ী যে সব অভিবাসী তাদের রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন সম্পর্কে আদালতের রায়ের অপেক্ষা করছে, আইসিই-র এজেন্টরা তাদেরও গ্রেপ্তার করতে পারবেন৷

মেক্সিকোর আপত্তি

নতুন নির্দেশাবলীর বহু অংশ মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদন সাপেক্ষ, অথবা সেগুলি কার্যকরি করার আগে মেক্সিকোর সঙ্গে আলাপ-আলোচনার প্রয়োজন৷ যেমন অ-মেক্সিকান বেআইনি অভিবাসীদের অ্যাসাইলাম স্ট্যাটাস নিয়ে মার্কিন আদালতে মামলা চলাকালীন তাদের মেক্সিকোয় ফেরৎ পাঠানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে – কিন্তু মেক্সিকোর কর্মকর্তারা বলেছেন যে, চুক্তি অনুযায়ী তা সম্ভব হবে না৷

এসি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন