1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

যুক্তরাষ্ট্রে রোগীর চেয়ে অর্থ বড়!

‘স্টেম সেল’ নিয়ে গবেষণা করছে বেশ কয়েকটি মার্কিন কোম্পানি৷ তারা সফল হলে একজন অন্ধ তার চোখে আলো ফিরে পেতে পারে৷ কিন্তু একটা বিষয় এসব গবেষণায় বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে৷ আর সেটা হচ্ছে অর্থ, মানে টাকা৷

default

স্টেম সেল

মার্কিন কোম্পানি ‘অ্যাডভান্সড সেল টেকনোলজি' বা এসিটি৷ সেখানে কাজ করেন বব লানজা৷ তিনি ঐ কোম্পানির প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা৷ স্টেম সেল নিয়ে কাজ করছেন বহু বছর ধরে৷ মূলত ডায়াবেটিস রোগ থেকে কীভাবে মুক্তি পাওয়া যায় সেটা ছিল তার গবেষণার বিষয়৷

তবে প্রথমেই মানুষকে তার গবেষণার ‘গিনিপিগ' বানান নি তিনি৷ শুরুটা করেছিলেন পশু দিয়ে৷ এরপর তাঁর ইচ্ছা ছিল, মানুষের উপর তিনি গবেষণাটি চালাবেন৷ অর্থাৎ মানুষকে ডায়াবেটিসের যন্ত্রণা থেকে কীভাবে মুক্তি দেয়া যায় সেই পথ বের করবেন৷

China Menschenrechtler Chen Guangcheng

স্টেম সেল গবেষণা অন্ধের চোখে আলো ফিরিয়ে আনতে পারে

কিন্তু তা আর সম্ভব হচ্ছে না৷ কারণ ডায়াবেটিস নিরাময়ে স্টেম সেলের ব্যবহার নিয়ে গবেষণা করার অধিকার নেই তাঁর কোম্পানির৷ এই অধিকার আছে অন্য আরেকটি কোম্পানির৷ যার নাম জেরোন কর্পোরেশন৷ ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি রাইটস বা মেধাস্বত্ব আইনের মাধ্যমে এই গবেষণা করার ‘পেটেন্ট' লাভ করেছে মার্কিন ঐ কোম্পানিটি৷ তাই অন্য কোনো কোম্পানি চাইলেও ডায়াবেটিস নিয়ে গবেষণা করতে পারবে না৷

তাই ভীষণ চটেছেন বব লানজা৷ কারণ চাইলেও তিনি তাঁর এতদিনের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে পারছেন না৷

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে অনেক বিজ্ঞানীই শুধুমাত্র অন্য কোম্পানিতে কাজ করেন বলে, নিজের ইচ্ছেমত বিষয়ে গবেষণা করতে পারছেন না৷ অর্থাৎ একজন যে বিষয়ে অভিজ্ঞ, তিনি সে বিষয়ে গবেষণা করতে পারছেন না৷ ফলে গবেষণার অগ্রগতি ব্যাহত হচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷ বব লানজা তো সরাসরি বলেই ফেলেছেন, কোম্পানিগুলোর এমন আচরণের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে রোগীরা৷

কিন্তু কেন কোম্পানিগুলো আগে ভাগেই পেটেন্ট নিয়ে রাখতে চায়? এর কারণ খুঁজতে গিয়ে দেখা গেল, বিপুল অর্থের হাতছানি৷ কারণ সত্যিই যদি একদিন স্টেম সেল দিয়ে ডায়াবেটিস নিরাময় সম্ভব হয়, তাহলে অনন্তকাল ধরে সেটার সুফল ভোগ করবে জেরোন কর্পোরেশন৷ কারণ এই গবেষণার পেটেন্ট একমাত্র তাদের৷ সঙ্গে, সুনাম তো রয়েছেই৷

স্টেম সেল কী?

এটা এমন একটা সেল বা কোষ, যা দিয়ে অন্য সেল তৈরি করা যায়৷ তাই বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে স্টেম সেলকে কাজে লাগানো যেতে পারে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা৷

ধরুন কারো ‘টাইপ ওয়ান' ডায়বেটিস হয়েছে৷ এর মানে তার বেটা সেল নষ্ট হয়ে গেছে৷ এখন যদি সেই নষ্ট বেটা সেলের জায়গায় স্টেম সেল বসিয়ে দেয়া যায় তাহলে ঐ স্টেম সেল নতুন করে বেটা সেল তৈরি করতে পারবে৷ ফলে ডায়াবেটিস ভাল হয়ে যেতে পারে৷ তেমনিভাবে কারো যদি মস্তিষ্কের অসুখ হয়, তার অর্থ মস্তিষ্কের কোন সেল নষ্ট হয়ে যাওয়া৷ এই অবস্থায় স্টেম সেল দিয়ে মাথার অসুখ সারিয়ে তোলা সম্ভব৷

স্টেম সেলের এই গুণের কারণে বিশ্বব্যাপী কোম্পানিগুলো স্টেম সেল নিয়ে গবেষণায় প্রচুর অর্থ বিনিয়োগ করছে৷ তাদের আশা, গবেষণা সফল হলে সেটা থেকে বিপুল অর্থ ফেরত আসবে৷ তবে গবেষণাটা যে কোনো একটা নির্দিষ্ট কোম্পানি করেছে, সেটার প্রমাণ হচ্ছে পেটেন্ট থাকা৷ তাই তো গবেষণা শেষ হওয়ার আগেই কোম্পানিগুলোর মধ্যে কে আগে পেটেন্ট নিতে পারবে তার প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে গেছে৷

যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ এবং চীন, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, ইসরায়েল – এসব দেশে স্টেম সেল নিয়ে গবেষণা চলছে৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন