1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ম্যালেরিয়া মোকাবিলায় অভিনব উদ্যোগ

মশা মারতে কামান দাগার কথা মুখে বললেও কার্যক্ষেত্রে বিপজ্জনক মশা মোকাবিলা করা এতকাল বেশ কঠিন ছিল৷ জার্মান বিজ্ঞানীরা ক্ষতিকারক পোকাদের নির্মূল করতে অভিনব এক পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন৷

পোকার মাধ্যমেই ডেঙ্গু বা ম্যালেরিয়ার মতো বিপজ্জনক সংক্রামক রোগ সবচেয়ে বেশি ছড়িয়ে পড়ে৷ প্রতি বছর প্রায় ১০০ কোটি মানুষ এমন পোকাবাহিত রোগে সংক্রমিত হন৷ ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু ঘটে৷

জার্মানির বন ও লাইপসিশ শহরের বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা ক্ষতিকারক পোকাদের মোকাবিলা করতে এক সম্পূর্ণ নতুন সম্ভাবনা খুঁজে পেয়েছেন৷ লাইপসিশ বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. মাটিয়াস বেয়ার বলেন, ‘‘আগে মানুষ কীটনাশক ব্যবহার করে ঢালাওভাবে সব পোকা ধ্বংস করতো৷ প্রয়োজনীয় পোকাও মরে যেত৷ নতুন পদ্ধতিতে নির্দিষ্ট পরজীবী পোকা ধ্বংস করা সম্ভব হবে, যারা গাছের ফল নষ্ট করে বা রোগ বহন করে৷

গবেষকরা এই লক্ষ্যে পোকার চারিপাশের কাইটিন বর্মে রদবদল ঘটাচ্ছেন৷ কাইটিন খোলস পোকার আকার নির্ধারণ করে এবং ধাক্কা, বিষাক্ত পদার্থ বা জীবাণু থেকে তাদের রক্ষা করে৷ এই বর্ম ত্বকের কোষ দিয়ে তৈরি, যা এক পদার্থের নিঃসরণ ঘটায়৷ কাইটিন স্তরের গঠনে তথাকথিত প্রতিরোধী প্রোটিনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে৷ প্রয়োজনীয় উপকরণ দিয়ে বাইরে এক অক্ষত খোলস তৈরি করে সেটি৷

এই প্রোটিনের অভাব ঘটলে কাইটিন স্তরে ফাটল দেখা যায়৷ ড. মাটিয়াস বেয়ার বলেন, ‘‘প্রোটিন না থাকলে বিভিন্ন কাইটিন স্তরগুলির মধ্যে আর বাঁধন থাকে না৷ কিউটিকুলাও তৈরি হয় না৷ সেটা ভেঙে পড়লে সুরক্ষাও লোপ পায়৷

প্রাপ্তবয়স্ক পোকা এবং লার্ভা বা শূককীট – দুইয়ের ক্ষেত্রেই এটি প্রযোজ্য৷ কারণ লার্ভারও কাইটিন স্তর থাকে৷ কাইটিন স্তর তৈরির কাজে লার্ভার প্রতিরোধী প্রোটিন না থাকলে সেই পোকা ছোটই থেকে যায়৷ বিজ্ঞানীরা তাদের ‘মিউট্যান্ট' বলছেন৷ তাদের সেই জিনের অভাব রয়েছে, যা সাধারণত প্রতিরোধী প্রোটিন তৈরির নির্দেশিকা স্থির করে৷ বন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইয়ানিনা ইয়াসমিন পেশ বলেন, ‘‘সবুজ আলোর অভাব দেখে মিউট্যান্টদের চেনা যায়৷ যেমন এটি একটি মিউট্যান্ট৷ দেখা যাচ্ছে, এটি বিশেষ নড়াচড়াও করছে না৷ একই বয়স হওয়া সত্ত্বেও অন্য লার্ভাগুলি উজ্জ্বল সবুজ, সেগুলি খুবই দ্রুত এবং আকারেও অনেক বড়৷ ফলে মিউট্যান্টদের বিকাশে ত্রুটি বোঝা যায়৷''

এই লার্ভা ছুঁলেই ভেঙে যায়৷ তখন তাদের ত্রুটি চেনা যায়৷ কারণ সুরক্ষার স্তর আর কাজ করে না৷ প্রকৃতির মধ্যে পোকার এই লার্ভা উড়তে অথবা মশা হিসেবে বেড়ে উঠতে পারবে না৷

মাইক্রোস্কোপের নীচে কোনো সুস্থ লার্ভার বাইরের কাইটিন স্তর বা কিউটিকুলা মসৃণ ও অক্ষত দেখায়৷ কিন্তু বিজ্ঞানীরা বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করেছেন যে, অসুস্থ মিউট্যান্টের কাইটিন স্তর বিকৃত ও তার বেশ কয়েকটি ভাঁজ রয়েছে৷ এর পরিণতির গুরুত্ব রয়েছে৷

ড. মাটিয়াস বেয়ার বলেন, ‘‘এই কিউটিকুলা ধ্বংস হলে তাদের শরীরের তরল বেরিয়ে আসে৷ সেটি লার্ভা ফাটিয়ে দেয়৷ অথবা মাইক্রো অরগ্যানিজম ঢুকে পড়ে তাকে সংক্রমিত করতে পারে৷ তখন তার মৃত্যু হয়৷

বন শহরে বিজ্ঞানীরা ‘ফ্রুট ফ্লাই' নিয়ে গবেষণা করছেন৷ তাদের অজ্ঞান করে প্রজননের স্বার্থে পুরুষ ও নারীদের আলাদা করা হয়৷ এই মাছি বাকি পোকাদের মতোই তাদের কাইটিন বর্ম গড়ে তোলে৷ ফলে তাদের ক্ষেত্রে চালানো পরীক্ষার ফলাফল মশা বা অন্যান্য ক্ষতিকারক পোকার উপরও প্রয়োগ করা সম্ভব৷ ড. বেয়ার বলেন, ‘‘এই পদ্ধতির মূলমন্ত্র হলো, আমরা প্রাপ্তবয়স্ক পোকাদের ধ্বংস করছি না, যারা চারিদিকে উড়ে বেড়ায় ও ক্ষতি করে৷ আমরা লার্ভা নির্মূল করছি, যাতে তারা বেড়ে না উঠতে পারে৷ ফলে পরবর্তী প্রজন্ম গড়ে উঠতে পারবে না৷''

গবেষকরা এবার এমন অ্যাক্টিভ এজেন্ট খুঁজছেন, যা প্রতিরোধী প্রোটিন নির্মূল করে দেবে৷ প্রত্যেক প্রজাতির পোকার প্রোটিন আলাদা হওয়ায় সুনির্দিষ্টভাবে একটি প্রজাতির মোকাবিলা করা সম্ভব৷ যেমন ম্যালেরিয়া ও ডেঙ্গুবাহী মশা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক