1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ম্যালেরিয়া মোকাবিলার নতুন প্রচেষ্টা

বাংলা সাহিত্যে ম্যালেরিয়ার ওষুধ হিসেবে বিস্বাদ কুইনিনের অনেক উল্লেখ পাওয়া যায়৷ চিকিৎসাশাস্ত্রের উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে অনেক ওষুধ বাজারে এসেছে৷ জার্মান বিজ্ঞানীরা এবার নতুন এক পদ্ধতিতে ম্যালেরিয়া মোকাবিলার চেষ্টা চালাচ্ছেন৷

সুইজারল্যান্ডের বাসেল শহরে ট্রপিকাল ইনস্টিটিউটে ম্যালেরিয়া গবেষণা প্রকল্পের একটা অংশ পরিচালিত হচ্ছে৷ এখানে বিজ্ঞানীরা ম্যালেরিয়া বহনকারী ও প্যাথোজেন পরীক্ষা করছেন৷ মশা পালনের ল্যাবে রয়েছে উষ্ণ আলো, বাতাসে আর্দ্রতার মাত্রা গ্রীষ্মমণ্ডলীয় পরিবেশের কথা মনে করিয়ে দেয়৷ হান্স-পেটার বেক অনেককাল ধরে মশা নিয়ে কাজ করছেন৷ এই প্রজাতির মশা প্রাণনাশক ম্যালেরিয়ার প্যাথোজেন পরিবহণ করে – যার নাম প্লাসমোডিয়াম ফালসিপারাম৷

মাইক্রোস্কোপের নীচে একমাত্র এই প্যারাসাইট-কে নীল রিং-এর মতো দেখতে লাগে৷ তারা মানুষের লাল রক্তকোষের উপর হামলা চালায়৷ সুইস টিপিএইচ-এর হান্স পেটার বেক বলেন, ‘‘এই প্যারাসাইট বিশেষ উপায়ে ‘ক্যাপিলারি ওয়াল'-এ জাঁকিয়ে বসে৷ এটা প্রতিরোধ করতে পারলে রোগের লক্ষণ দূর করা যেত৷ লাল রক্তকোষের ভিতরে তাদের প্রবেশ প্রতিরোধ করতে পারলে, প্যাথোজেনের বংশবৃদ্ধিও প্রতিরোধ করা যেত৷''

বাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আদ্রিয়ান নায়ের বলেন, ‘‘আমি ভেবেছিলাম, আমরা ন্যানো প্রযুক্তি ও পলিমার কেমিস্ট্রি ব্যবহার করে অতি ক্ষুদ্র কাঠামো তৈরি করতে পারবো৷ অবশ্যই এর প্রয়োগের চেষ্টা করা উচিত৷''

যেমন ভাবা, তেমনি কাজ৷ আদ্রিয়ান নায়ের প্রায় চার বছর ধরে বাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগে প্যারাসাইট-দের বোকা বানানোর চেষ্টা করে চলেছেন৷ এর জন্য তিনি পলিমারের মিশ্রণ ঘটাচ্ছেন৷ উপাদানগুলি সহজ হলেও তা কাজে লাগিয়ে সঠিক ফলাফল পাওয়া কঠিন৷ কারণ টিউবের মধ্যে তা থেকে কৃত্রিম বুদবুদ তৈরি হওয়ার কথা, যা এতই ক্ষুদ্র যে খালি চোখে দেখা যাবে না৷ আইডিয়া হলো, এই বুদবুদ মানুষের রক্তকোষের সারফেসের মতো দেখতে হবে৷

বাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আদ্রিয়ান নায়ের বলেন, ‘‘কোষ থেকে প্যাথোজেন বের হবার পর এটি তাকে ফাঁকি দিতে পারবে৷ প্যাথোজেন যে রক্তকোষ দেখবে, তা আসলে নকল৷ তার মস্তিষ্ক নেই, চিন্তাভাবনারও বালাই নেই৷ ফলে সেটি সরাসরি সংযুক্ত হয়ে যাবে৷ তারপর সেটি আমাদের কাঠামোর সঙ্গেও সংযুক্ত হবে৷ সেটি ঠিকমতো কাজ করলে প্যাথোজেনের মোকাবিলা করতে পারবে৷ এটাই ছিল মৌলিক আইডিয়া, যে কাজে আমরা এখন সফল হয়েছি৷''

সবুজ রংয়ের এই প্যাথোজেন আর হামলা চালাতে রক্তকোষের দিকে নয়, বরং কৃত্রিম বুদবুদের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে৷ সেখানে ঢুকলে তারা বংশবৃদ্ধি না করতে পেরে মরে যাবে৷ কিন্তু এই বুদবুদের আকার শূন্য দশমিক শূন্য শূন্য শূন্য দুই মিলিমিটারের বেশি বড় হলে চলবে না৷

আদ্রিয়ান নায়ের বলেন, ‘‘ন্যানো কাঠামো খুব বড় হলে এবং সেটিকে শরীরে প্রবেশ করালে তা রক্তের মধ্যে সঞ্চালন করবে না৷ কিন্তু ম্যালেরিয়ার ক্ষেত্রে সেটাই তো প্রয়োজন৷ এমন বুদবুদ তৈরি করা কঠিন নয়৷ কিন্তু ন্যানো প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ভল্ফগাং মায়ার জানেন, এখনো অনেক বিষয়ের মীমাংসা হয়নি৷

ভল্ফগাং মায়ার বলেন, ‘‘এটিকে অ্যাক্টিভ এজেন্ট হিসেবে শরীরে ঢোকাতে হলে জানতে হবে, সেটি কতটা স্থিতিশীল, ব্যবহারের আগে কতদিন তা অক্ষত রাখা যায়৷ ওষুধ কিংবা ইঞ্জেকশন হিসেবে ব্যবহার করার কতদিন পর সেটি ভেঙে পড়ে?

ল্যাবে পরীক্ষা শেষ হলে প্রথমে ইঁদুর, তারপর মানুষের উপর পরীক্ষা চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে৷ আদ্রিয়ান নায়ের বলেন, ‘‘কোনো কিছু খুব ভালো কাজ করলেও তা বাজারে আনতে বেশ কয়েক বছর সময় লাগে৷ এটাই বাস্তব৷ আশার কথা হলো, কিছু হাসিল করা গেছে৷ তাই সময় চাই, বিনিয়োগও করতে হয়৷''

কৌতূহল ও ধৈর্য ভবিষ্যতে ম্যালেরিয়ার নতুন ওষুধ তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক