1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

ম্যার্কেল আবারও চ্যান্সেলর পদে লড়বেন?

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও তাঁর দল সিডিইউ-র সদস্য নর্বাট ব়্যোয়েটগেন বলেছেন, ম্যার্কেল চতুর্থবারের মতো চ্যান্সেলর পদে লড়বেন৷

মঙ্গলবার সিএনএনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এই তথ্য দেন ব়্যোয়েটগেন৷ সিএনএনের সাংবাদিক ফ্রেড প্লাইটগেন তাঁর কাছে জানতে চেয়েছিলেন, ম্যার্কেল আরও একবার চ্যান্সেলর পদের জন্য লড়বেন কিনা৷ উত্তরে সিডিইউ-র এই রাজনীতিবিদ সরাসরি বলেন, ‘‘তিনি (ম্যার্কেল) চ্যান্সেলর পদে লড়বেন৷'' সঙ্গে ব়্যোয়েটগেন এ-ও যোগ করেন যে, ম্যার্কেল ‘‘ইন্টারন্যাশনাল লিবারেল অর্ডার শক্তিশালী করতে চান এবং এর জন্য তিনি প্রস্তুত৷''

এরপর সাংবাদিক প্লাইটগেন ব়্যোয়েটগেনের কাছে জানতে চান ম্যার্কেল কি ট্রান্স-আটলান্টিক অঞ্চলের লিবারেল অর্ডার বজায় রাখতে আগ্রহী কিনা৷ উত্তরে তিনি বলেন, ম্যার্কেল ‘‘পশ্চিমা বিশ্বের এই রাজনৈতিক মতাদর্শের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি৷'' তবে ম্যার্কেলের একার পক্ষে এই লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয় বলে সতর্ক করে দেন তিনি৷ তিনি মনে করেন, এক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা ও অংশগ্রহণ প্রয়োজন৷

নর্বাট ব়্যোয়েটগেন

ম্যার্কেলের ঘনিষ্ঠ সহযোগী নর্বাট ব়্যোয়েটগেন

তবে জার্মান সরকার ও সিডিইউ দল বলেছে, তারা ব়্যোয়েটগেনের মন্তব্য নিশ্চিত করছে না বা প্রত্যাখ্যানও করছে না৷

গত ১১ বছর ধরে চ্যান্সেলরের দায়িত্ব পালন করা ম্যার্কেল অতীতে বলেছিলেন, উপযুক্ত সময়ে তিনি তাঁর সিদ্ধান্ত জানাবেন৷

ম্যার্কেলের মুখপাত্র স্টেফেন জাইবার্ট টুইটারে লিখেছেন, ‘‘কোনো কিছুই পরিবর্তিত হয়নি৷ উপযুক্ত সময়ে চ্যান্সেলরই জানাবেন তিনি আরেক মেয়াদের জন্য লড়বেন কিনা৷''

এদিকে কয়েকটি জার্মান গণমাধ্যম জানাচ্ছে, রবিবার সিডিইউর পরিচালনা পরিষদের বৈঠকের সময় ম্যার্কেল পুনরায় নির্বাচন করার আগ্রহের কথা জানাতে পারেন৷

সিএনএনের সাক্ষাৎকার প্রসঙ্গে ডয়চে ভেলের রাজনৈতিক প্রতিবেদক রুপার্ট ভিডারভাল্ড বলেন, ‘‘ব়্যোয়েটগেন ম্যার্কেলের পক্ষ হয়ে কথা বলেছেন, নাকি তাঁর অন্য কোনো উদ্দেশ্য আছে, সেটি পরিষ্কার নয়৷'' এই সময়ে ম্যার্কেলের প্রার্থিতা ঘোষণা করা ‘পরিষ্কারভাবেই' যুক্তরাষ্ট্রে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার প্রতিক্রিয়া বলে মনে করেন ডয়চে ভেলের এই সাংবাদিক৷

২০১৫ সালে জার্মানিতে এক মিলিয়নেরও বেশি শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়ে জার্মানদের কাছে অজনপ্রিয় হয়েছিলেন ম্যার্কেল৷ মার্কিন নির্বাচনের আগে এক জরিপে দেখা গেছে, ৪৪ শতাংশ জার্মান চান ম্যার্কেল চ্যান্সেলর পদে থেকে যান৷ তবে গত সপ্তাহে সংখ্যাটি বেড়ে ৬০ শতাংশ হয়েছে৷

‘মুক্ত বিশ্বে'র নতুন নেতা ম্যার্কেল?

বার্তা সংস্থা এএফপি এই শিরোনাম দিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর পশ্চিমা বিশ্বের মূল্যবোধ রক্ষার দায়িত্ব এখন ম্যার্কেলের ঘাড়ে চাপছে বলে অনেক বিশ্লেষক মনে করছেন৷ ইতিহাসবিদ ও কলামিস্ট টিমোথি গার্টন গার্ডিয়ানে প্রকাশিত এক সম্পাদকীয়তে লিখেছেন, ‘‘আমি বলতে আনন্দ বোধ করছি যে, মুক্ত বিশ্বের নেতা এখন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷''

জার্মানির বামপন্থি দৈনিক টাৎস লিখেছে, ‘‘ম্যার্কেল... হঠাৎ করেই মুক্ত, গণতান্ত্রিক আর উদারপন্থি বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নেতা হয়ে উঠেছেন৷''

বারাক ওবামার সঙ্গে ম্যার্কেল

‘ঘনিষ্ঠ আন্তর্জাতিক সহযোগী’র সঙ্গে ওবামা

প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাঁর দ্বিতীয় মেয়াদ শেষের আগে ইউরোপ সফরে এসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ইংল্যান্ডে না গিয়ে জার্মানিতে আসার ঘটনাকেও একটি সংকেত হিসেবে দেখছে এএফপি৷ এই ঘটনাকে ‘ম্যার্কেলের কাছে ব্যাটন হস্তান্তর' বলে মনে করছে বার্তা সংস্থাটি৷ ইউরোপ সফরের আগে এক সংবাদ সম্মেলনে ওবামা ম্যার্কেলকে গত আট বছরে (সম্ভবত) তাঁর সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ আন্তর্জাতিক সহযোগী  বলে উল্লেখ করেছেন৷

ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ম্যার্কেলের দেয়া বক্তব্যের প্রশংসা হচ্ছে অনেক৷ ম্যার্কেল বলেছিলেন, ‘‘(সব মানুষের) জন্ম, গাত্রবর্ণ, ধর্ম, লিঙ্গ, যৌন প্রবণতা বা রাজনৈতিক মতামত নির্বিশেষে গণতন্ত্র, স্বাধীনতা, আইনের শাসন ও মানবমর্যাদার মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা জার্মানি ও অ্যামেরিকার মধ্যে যোগসূত্র৷ এই মূল্যবোধের ভিত্তিতে আমি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্টকে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার প্রস্তাব দিচ্ছি৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অংশীদারিত্ব জার্মানির বিদেশনীতির ভিত্তি ও ভবিষ্যতেও তাই থাকবে৷''

‘‘এই বক্তব্যের মাধ্যমে ম্যার্কেল বাস্তব বিশ্বের নেতার দায়িত্ব গ্রহণে আগ্রহ দেখালেন এবং ট্রাম্পকে মূল্যবোধের বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিলেন,'' বলে মনে করছে জার্মান দৈনিক ডি ভেল্ট৷

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়