1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ম্যার্কেলের জয়ে ভারত-জার্মান বন্ধন সুদৃঢ় হবে

বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে আঙ্গেলা ম্যার্কেল তৃতীয়বার ক্ষমতালাভের ফলে ভারত-জার্মান কৌশলগত সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে, বলে মনে করেন ভারতে নিযুক্ত জার্মানির রাষ্ট্রদূত মিশায়েল স্টাইনার৷

দুই দেশের সম্পর্কের প্রেক্ষিতে জার্মানির সংসদ নির্বাচনের ফলাফলে একটা বিষয় স্পষ্ট যে, ম্যার্কেলের ভারতনীতি শুধু যে অটুট থাকবে তা নয়, বরং আরো দৃঢ়মূল হবে৷ পররাষ্ট্রনীতিতে মৌলিক কোনো পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই বলে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্তব্য করেন জার্মান রাষ্ট্রদূত স্টাইনার৷ সিডিইউ এবং এসপিডি উভয়দলই চায় ভারত পরমাণু অস্ত্র প্রসার রোধসহ বিভিন্ন পরমাণু চুক্তিতে শামিল হোক৷ আঙ্গেলা ম্যার্কেলের খ্রিস্টিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়নের বিপুল জয়ে সুসংহত হবে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলির ঐক্য৷

চ্যান্সেলার ম্যার্কেল চাইবেন ভারত-ইইউ মুক্তবাণিজ্য চুক্তি যত শীঘ্র সম্ভব সই হোক৷ সেই লক্ষ্যে তিনি জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের পক্ষপাতি৷ কারণ এক্ষেত্রে দুপক্ষের স্বার্থ অভিন্ন৷ ভারতকে যদি বার্ষিক ৮ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে হয়, তাহলে চাই বিনিয়োগ৷ আর ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিশ্বের সবথেকে বড় অর্থনৈতিক শক্তি, বৃহত্তম বাজার৷ ভারতের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং নিজেও তা স্বীকার করেছেন৷ তবে মুক্তবাণিজ্য চুক্তি ইস্যুতে ভারতের বক্তব্য অবশ্য বিবেচ্য৷

Michael Steiner Botschafter in Indien PK zur Bundestagswahl 23.09.2013

সংবাদ সম্মেলনে জার্মান রাষ্ট্রদূত স্টাইনার বলেন, পররাষ্ট্রনীতিতে মৌলিক কোনো পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই

কাশ্মীরের শ্রীনগরে কিছুদিন আগে জার্মান কনসার্ট প্রসঙ্গে জার্মান রাষ্ট্রদূত জানান, এই কনসার্টের পেছনে রাজনৈতিক কারণ খোঁজা ভুল হবে৷ এটা নিছক একটা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান৷ এই কনসার্টের জন্য দেয়া ভারত ও জার্মানির বিভিন্ন সংস্থাগুলির অর্থ সাহায্যে কাশ্মীরে বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কাজ করা হবে৷ যেমন, হাসপাতাল, বৃত্তিমূলক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের স্কলারশিপ ইত্যাদি৷ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা গিলানির সমালোচনার কোনো যুক্তি নেই৷ কনসার্টের পেছনে রাজনৈতিক গন্ধ খোঁজা অনুচিত৷ দেশবিদেশের অসংখ্য মানুষ এই কনসার্টের ভূয়সী প্রশংসা করেছে৷ শ্রীনগর থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে শোপিয়ানে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে জনতার সংঘর্ষের সঙ্গে কনসার্টের কোনো যোগ নেই৷ কাশ্মীরের শিল্পী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ এর আনন্দ উপভোগ করেছেন৷ ভবিষ্যতে যদি সম্ভব হয়, তাহলে উভয় কাশ্মীরকে নিয়ে কনসার্টের কথা ভেবে দেখা যেতে পারে, বলেন জার্মান রাষ্ট্রদূত স্টাইনার৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়