1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি-যুক্তরাষ্ট্র

ম্যার্কেলের উদ্বাস্তু নীতির কড়া সমালোচনা করলেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট-ইলেক্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের উদ্বাস্তু নীতিকে ‘‘বিপর্যয়ের তুল্য ভ্রম'' হিসেবে বর্ণনা করেছেন৷ এর ফলে আরো বেশি দেশ ইউরোপীয় ইউনিয়ন পরিত্যাগ করবে, বলে তাঁর ধারণা৷

ডোনাল্ড ট্রাম্পের যৌথ সাক্ষাতৎকার নেয় জার্মানির ‘‘বিল্ড'' ট্যাবলয়েড পত্রিকা ও ব্রিটেনের ‘‘দ্য টাইমস অফ লন্ডন'' পত্রিকা৷ সাক্ষাৎকারটি রবিবার উভয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়৷

‘‘(ম্যার্কেল) একটি বিপর্যয়ের তুল্য ভুল করেছেন, বলে আমার ধারণা, আর সেটি হলো এই সব বেআইনি (অভিবাসীদের) গ্রহণ করা, যে যেখান থেকে আসুক, সবাইকে নেওয়া'', বলেন ট্রাম্প৷ ‘‘কেউ জানে না, তারা কোথা থেকে এসেছে৷ কাজেই উনি একটি বিপর্যয়ের তুল্য ভুল করেছেন বলে আমার মনে হয়, একটা খুব খারাপ ভুল৷''

বার্লিনে গত ডিসেম্বরের সন্ত্রাসী আক্রমণ থেকে জার্মানি ম্যার্কেলের উদ্বাস্তু নীতির ফলশ্রুতি সম্পর্কে ‘‘একটি স্পষ্ট ধারণা পেয়েছে'', বলেন ট্রাম্প৷

ভিডিও দেখুন 00:33

অপরদিকে তিনি যোগ করেন যে, তাঁর ম্যার্কেলের জন্য ‘‘গভীর শ্রদ্ধা আছে'' এবং এই ‘‘দারুণ নেতার'' উপর পূর্ণ আস্থা নিয়েই তিনি তাঁর কর্মকাল শুরু করবেন৷ কিন্তু সেই আস্থা বেশিদিন না-ও টিকতে পারে, এমন আভাস দেন ট্রাম্প৷

ব্রেক্সিটের পর ব্রিটেনের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক

ট্রাম্প এই অভিপ্রায় ঘোষণা করেন যে, তিনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই যুক্তরাজ্যকে একটি বাণিজ্যিক চুক্তির প্রস্তাব দেবেন, যা ব্রেক্সিটকে একটি ‘‘খুব ভালো ব্যাপার'' করে তুলতে সাহায্য করবে৷ ‘‘(বাণিজ্যিক চুক্তিটি) শীঘ্র সম্পাদন করার জন্য আমরা খুব মনোযোগ দিয়ে কাজ করব৷ (চুক্তিটি) দু'পক্ষের জন্যই ভালো হবে'', বলে মন্তব্য করেন ট্রাম্প৷

‘‘আমি (ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে-র) সঙ্গে সাক্ষাৎ করব৷ উনি একটি সাক্ষাতের জন্য অনুরোধ করছেন এবং আমি হোয়াইট হাউসে যাবার পর পরই আমরা সাক্ষাৎ করব ও আমরা খুব শীঘ্র কিছু একটা করে ফেলব, বলে আমার ধারণা'', জানান ট্রাম্প৷

অন্যান্য দেশও ইইউ ছাড়বে

অভিবাসনের কারণে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অপরাপর দেশও ব্রিটেনের পন্থা নেবে, বলে ট্রাম্প সাবধান করে দেন৷

‘‘এটা খুবই কঠিন বলে আমার ধারণা'', বলেন ট্রাম্প; ‘‘জনতা অথবা দেশ তাদের নিজেদের সত্তা চায় আর যুক্তরাজ্য তাদের নিজেদের সত্তা চেয়েছিল৷''

‘‘ইউরোপের বিভিন্ন অংশে যদি উদ্বাস্তুরা (বিপুল সংখ্যায়) আসতে থাকে....তাহলে (ইউরোপ বা ইউরোপীয় ইউনিয়নকে) একত্রিত করে রাখা খুব শক্ত হবে, কেননা জনতা (উদ্বাস্তুদের আগমনের ব্যাপারে) ক্রুদ্ধ৷''

ট্রাম্প বলেন যে, ২০১৫ সালে উদ্বাস্তুদের ব্যাপক আগমন ছিল ‘‘তেলের শেষ ফোঁটা, যার ফলে পুরো পিপেটাই উপছে পড়ে'' এবং ব্রিটিশ ভোটারদের ২৪শে জুনের গণভোটে ইইউ ত্যাগ করার সপক্ষে ভোট দিতে প্রতীত করে৷

‘‘(ব্রিটেন বা ব্রিটিশরা) যদি সব উদ্বাস্তুদের নিতে বাধ্য না হত, এতজনকে, তার সঙ্গে জড়িত সব সমস্যা সমেত....তাহলে কোনো ব্রেক্সিট ঘটত না, বলে আমার ধারণা৷ ওটাই ছিল সেই শেষ তৃণ, যার চাপে উটের পিঠ ভেঙে যায়'', অন্য একটি প্রবচন ব্যবহার করে বলেন ট্রাম্প৷

এছাড়া তিনি বলেন যে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ‘‘জার্মানির পক্ষে একটি যান'', অর্থাৎ বাহন হয়ে দাঁড়িয়েছে৷

সেকেলে ন্যাটো

ট্রাম্প ন্যাটো জোটকে একটি ‘‘সেকেলে'' সংগঠন বলে বর্ণনা করেন৷

‘‘আমি বহুদিন আগে বলেছি যে, ন্যাটোর নানা সমস্যা আছে৷ তার মধ্যে প্রথমটি হলো, ন্যাটোর নকশা করা হয়েছিল বহু, বহু বছর আগে'', বলেন ট্রাম্প৷

তবে ট্রাম্প পুনরায় বলেন যে, ন্যাটো ‘‘আমার কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ'', কিন্তু কিছু ন্যাটো সদস্যদেশ যথেষ্ট অনুদান দিচ্ছে না, বলে তাঁর অভিমত৷

‘‘দেশগুলোকে রক্ষা করা আমাদের কাজ হওয়ার কথা৷ কিন্তু বহু (সদস্য) দেশ তাদের যে অনুদান দেওয়ার কথা, সেটা দিচ্ছে না, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি খুবই অন্যায় বলে আমি মনে করি'', বলেন ট্রাম্প৷ ‘‘কিন্তু সেটা বলার পরে আমি বলব, ন্যাটো আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ পাঁচটি দেশ তাদের যে অনুদান দেওয়ার কথা, তা দিচ্ছে৷ পাঁচটি (দেশ)৷ খুব বেশি নয়'', ট্রাম্প যোগ করেন৷ প্রসঙ্গত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ন্যাটোর খরচের প্রায় ৭০ শতাংশ বহণ করে থাকে৷

বিএমডাবলিউ-এর জন্য কর

জার্মানি গাড়ি নির্মাতা বিএমডাব্লিউ যে মেক্সিকোতে একটি নতুন গাড়ির কারখানা গড়ে তোলার পরিকল্পনা করছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে ট্রাম্প মেক্সিকোতে তৈরি বিএমডাব্লিউ গাড়ির উপর ৩৫ শতাংশ সীমান্ত কর বসানোর হুমকি দেন৷ পরিবর্তে বিএমডাব্লিউ-কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কারখানা তৈরির পরামর্শ দেন ট্রাম্প৷

এসি/ডিজি (ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়