1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

মৌমাছির হুল ফোটানোয় অসুখ সারে?

হ্যাঁ, মৌমাছির বিষ প্রয়োগ করে চিকিৎসার পদ্ধতিটির নাম ‘এপিথেরাপি’৷ হাজার তিনেক বছরের পুরনো৷ আজও পাওয়া যায় চীনে এবং আর কোথায় জানেন? গাজা স্ট্রিপে!

default

মৌমাছিদের আসল কাজ: মধু তৈরী

গতকাল রয়টার্সের একটি মনোজ্ঞ খবর: রাজধানী বেইজিং-এর উত্তর-পূর্ব এলাকায় আছে এক কাং তাই মৌমাছি ক্লিনিক৷ প্রথাগত চীনা ভেষজবিদ্যা অনুযায়ী চিকিৎসা করা হয় সেখানে৷ তারই মধ্যে পড়ে মৌমাছির হুল ফুটিয়ে চিকিৎসা৷ অনেকটা এ্যাকুপাংচারের মতো৷ তফাৎ শুধু এই যে ডাক্তাররা শরীরের বিশেষ বিশেষ অংশে সুঁচ না ফুটিয়ে মৌমাছিদের হুল ফোটান৷ চিমটে দিয়ে ধরে ধরে একটি একটি করে মৌমাছি বসানো হয়৷ মৌমাছিটি হুল ফুটিয়ে, বিষ ঢেলে দিয়েই প্রাণত্যাগ করে৷ হুল এবং বিষ থেকে যায় রোগীর শরীরে কয়েক ঘণ্টা ধরে৷ এবং তা'তেই নাকি রোগী আরাম পায়৷

18.03.2007 pz bienen 7

গবেষণাগারেও পৌঁছেছে মৌমাছিরা

গুণাগুণ

হোমিওপ্যাথির মতো এপিথেরাপির কার্যকরিতা সম্পর্কে প্রথাগত বিজ্ঞানের সন্দেহ থেকে গেছে৷ কিন্তু এপিথেরাপির সমর্থকরা বলেন, এ'তে নাকি মাল্টিপল সক্লেরোসিস এবং রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস, অর্থাৎ ধমনীর কাঠিন্য এবং গেঁটেবাতের মতো রোগ থেকে সৃষ্ট ব্যথার উপশম হয়৷ এবং ব্যথা কমে মূলত মৌমাছির বিষে যে মেলিটিন নামক প্রদাহ-উপশমকারী পদার্থটি আছে. তার কল্যাণে৷ মৌমাছির বিষে নাকি রক্ত চলাচলও ভালো হয়৷ তবে মৌমাছির হুল ফোটানোর বড় সমস্যাটি হল: যদি কারো মৌমাছির বিষে এ্যালার্জি থাকে৷

18.03.2007 pz bienen 6

হুল তো নয়, ইঞ্জেকশন

কাই তাং মৌমাছি ক্লিনিকের ডাক্তাররা হাসপাতালের প্রাঙ্গণেই তাঁদের মৌচাক রাখেন৷ মৌমাছিগুলি ইটালি আর পারস্য উপসাগরীয় মৌমাছিদের একটা সংমিশ্রণ৷ ক্লিনিকে রোজ জনা তিরিশেক রোগীর মৌমাছি চিকিৎসা হয়৷ প্রত্যেক রোগীকে চার-পাঁচবার থেকে শুরু করে ১০০ বার হুল ফোটানো হয়! রোগীরাও নাকি চীনের দূর দূর অঞ্চল থেকে আসেন, কেননা মৌমাছি চিকিৎসার সবচেয়ে বড় গুণ হল, এ'টি সাধারণ এ্যালোপাথি চিকিৎসার চেয়ে সস্তা৷

গাজা স্ট্রিপে

ওদিকে এএফপি সংবাদ সংস্থার স্ক্রলে মাস চারেক আগে এই ধরণেরই একটা খবর চোখে পড়েছিল৷ খবরটা গাজা স্ট্রিপ থেকে৷ হামাস গাজা স্ট্রিপে ক্ষমতা দখল করা যাবৎ গাজার মানুষদের মিশর ইত্যাদি গিয়ে চিকিৎসা করানো বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷ কাজেই রতিব সামুর নামে - ডাক্তার বলব, না এ্যাকুপাংচারিস্ট বলব, জানি না - তাঁর ব্যবসা জমে উঠেছে৷ সামুর তাঁর ‘ক্লিনিক' খোলেন ২০০৩ সালে৷ ক্লিনিকে তাঁকে দেখতে পাওয়া যাবে এক রোগীর কাছ থেকে আরেক রোগীর কাছে যাচ্ছেন হাতে একটি ছোট বাক্স নিয়ে৷ বাক্স থেকে শোনা যাচ্ছে রুদ্ধ মৌমাছিদের ক্রুদ্ধ গুঞ্জন৷ সামুর এই ক্লিনিক খোলার আগে পরিবারের সদস্য এবং বন্ধুবান্ধবদের উপর এই অদ্ভুত চিকিৎসার ফল পরীক্ষা করে দেখেছিলেন৷ এখনও রোগ নিজে নির্ণয় করেন না, ডিগ্রীধারী ডাক্তারের মত নেন৷ সামুরের ক্লিনিকে রোগীদের প্রতিবারে চার থেকে ছ'বার হুল খেতে হয়৷

দায়মুক্তি

ওদিকে ইন্দোনেশিয়ার সুরাবায়া'তে ন'বছর বয়সি এক স্কুলের ছেলে ডেভিড ইউসুফ গত বছরের মার্চ মাসে তাদের স্কুলেরই কাছে একটি সরবতের স্টলের কাছে দাঁড়িয়ে ছিল৷ ভন ভন করে ঘুরছিল মৌমাছিরা৷ ডেভিড তাদেরই একটিকে ধরে সহপাঠিনী দিয়ান নির্মালাসারি'র বাঁ গালে বসিয়ে দেয়৷ মৌমাছিও যথারীতি হুল বসিয়ে দেয়৷ মেয়েটির বাবা'মা আদালতে মামলা করেন৷ ডেভিডের নাকি তিন বছরের জেল হতে চলেছিল! অবশেষে মাননীয় বিচারক মামলা বরখাস্ত করেছেন এই বলে যে, ‘‘এ'মামলা আদালতে আসাই উচিত হয়নি... এটা হল ছোটদের সাধারণ দুষ্টুমির ঘটনা৷''

প্রতিবেদক: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

সংশ্লিষ্ট বিষয়