1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

মোল্লারহাটে ‘গৃহবধূ ধর্ষণ': আসলে কী ঘটেছে?

মোল্লারহাটের একটি গ্রামে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনা সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পর তা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখার পাশাপাশি কলামও লেখা হয়েছে৷ ডয়চে ভেলের পক্ষ থেকে প্রকৃত ঘটনা জানার চেষ্টা করা হয়েছে৷

Symbolbild Protest gegen Vergewaltigung (picture-alliance/Pacific Press/E. McGregor)

প্রতীকী ছবি

প্রকৃত ঘটনা জানতে গিয়ে ঘটনার শিকার নারীর স্বামী, এক প্রতিবেশী, এক স্থানীয় সাংবাদিক এবং মোল্লার হাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সঙ্গে প্রতিবেদকের কথা হয়েছে৷ তবে রহস্যাবৃত ঘটনাটি এখনো তদন্তাধীন বলে ডয়চে ভেলে সংখ্যালঘু পরিবারের ওই নারী এবং অভিযুক্ত তরুণের নাম প্রকাশ করছে না৷

ঘটনাটি ৩০ সেপ্টেম্বর রাতের৷ আর খবর প্রকাশ হয়েছে ১৫ দিন পর ১৪ অক্টোবর৷  ‘শিরোনাম ‘স্বামীকে বাঁচাতে ধর্ষকের তলোয়ারের কোপে গৃহবধুর পা কর্তন'৷ একই ঘটনার আরেকটি শিরোনাম ‘বাগেরহাটে ১৫ দিন ধরে সংখ্যালঘু এক গৃহবধুকে ধর্ষণ!' আর এ নিয়ে কেউ কলাম লিখেছেন৷ আবার ফেসবুকে কেউ দিয়েছেন পোস্ট৷ এই পরিস্থিতিতেই ডয়চে ভেলের প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের প্রচেষ্টা৷

অডিও শুনুন 04:09

‘কেউ ধর্ষণের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেননি’

বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলা বাগেরহাট থেকে আরো ৪০ কিলোমিটার পরে মোল্লারহাটের চুনখোলা ইউনিয়নের শোলাবাড়িয়া গ্রাম৷ ওই গ্রামের এই ঘটনা অনুসন্ধানে বুধবার সেখানে যান একাত্তর টেলিভিশনের বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি বিষ্ণুদাস চক্রবর্তী৷ তিনি ঘটনাস্থল থেকেই টেলিফোনে কথা বলেন ডয়চে ভেলের এই প্রতিবেদকের সঙ্গে৷ তিনি জানান, ‘‘আমি কথিত ঘটনার শিকার নারী, তার স্বামীসহ এলাকার অনেকের সঙ্গে কথা বলেছি৷ কেউ ধর্ষণের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেননি৷ তারা বলেছেন ধর্ষণের ঘটনা ঘটেনি৷''

তাহলে কী ঘটেছে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘২৯ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ১২টার (৩০ সেপ্টেম্বর) পরের ঘটনা- কাঠের দোতলা বাড়ির নীচে  (আহত নারীর স্বামী) তার ছেলেকে নিয়ে ঘুমাচ্ছিলেন৷ আর দোতলায় ঘুমাচ্ছিলেন তার স্ত্রী৷ তখন ঘুম ভেঙ্গে গেলে দোতলায় দু'জন নারী পুরুষের কথা শুনতে পেয়ে সিড়ি ( বাঁশের মই) বেয়ে দোতলায় উঠে দেখেন তাঁর স্ত্রী এবং প্রতিবেশী  (অভিযুক্ত) পাশাপাশি বসে গল্প করছেন৷ (অভিযুক্ত ব্যক্তি)  নীচে নামতে গেলে তিনি (আহত নারীর স্বামী) তাকে আটকানোর চেষ্টা করলে সে ছুরি দিয়ে আঘাতের চেষ্টা করে৷ ঠিক সেই সময় তার স্ত্রীও নামতে গেলে ছুড়ির আঘাত স্ত্রীর পায়ে লাগে এবং তিনি গুরুতর জখম হন৷ এই ফাঁকে সে (অভিযুক্ত) পালিয়ে যায়৷''

অডিও শুনুন 01:20

‘সে ভয়ভীতি দেখিয়ে ঐ নারীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলে’

এরপর ১২ অক্টোবর ওই নারীকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়৷ তবে তিনি এখন পাশের তেরখাদা উপজেলায় তার মায়ের বাড়িতে আছেন৷ সেখানেও গিয়েছিলেন সাংবাদিক বিষ্ণুদাস চক্রবর্তী৷  তিনি জানান, ‘‘ওই নারীও জানিয়েছেন কোনো ধর্ষণের ঘটনা ঘটেনি৷ আমাদের পাশাপশি বসে গল্প করতে দেখেন আমার স্বামী৷ তারপর সে পালাতে গিয়ে আমার পায়ে ছুরিকাঘাত করে৷ গত ৬ মাস ধরে সোবহানের সঙ্গে আমার পরিচয়৷ সে আমাদের বাড়িতে আসা-যাওয়া করতো৷''

কয়েকটি পত্রিকার খবরে বলা হয়, মোল্লারহাট উপজেলা মটর শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক মনির মুন্সি ওই রাতে এক নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান৷ কিন্তু মনির মুন্সি ডয়চে ভেলেকে জানান,‘‘আমি ঘটনার রাতে ওই বাড়িতে যাইনি৷ যাই পরের দিন৷ আর ধর্ষণ বা ১৫ দিন ধরে আটকে রেখে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেনি৷ আহত হওয়ার পর ১৫ দিন ধরে তাকে চিকিৎসার জন্য বাইরে নেয়া হয়নি৷ আমি ১৫দিন পর তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাই৷ তাই হয়তো ১৫ দিন নিয়ে ভুল সংবাদ পরিবেশন হয়েছে৷''

অডিও শুনুন 01:40

‘মামলায় ধর্ষণের কথা বলা হয়নি’

তবে তিনি অভিযোগ করেন,‘‘নারীর সঙ্গে ভয়ভীতি দেখিয়ে সে (অভিযুক্ত) সম্পর্ক গড়ে তোলে৷ আসা যাওয়া করে৷ সে খারাপ চরিত্রের ছেলে৷ এর আগেও ভয়ভীতি দেখিয়েছে৷''

মোল্লার হাট থানার ওসি আ ন ম খায়রুল আনাম ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘নারীর স্বামী বাদী হয়ে মামলা করেছেন৷ মামলায় ধর্ষণের কথা বলা হয়নি৷ বলা হয়েছে, তার বাড়িতে অবৈধভাবে প্রবেশ করে স্ত্রীর সঙ্গে বসে কথা বলা এবং পায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাত করার কথা৷''

তিনি বলেন, ‘‘ঘটনা ৩০ সেপ্টেম্বর রাত ১টা বলা হলেও মামলা করা হয়েছে ১৩ অক্টোবর৷ আসামিকে আমরা এখনো গ্রেপ্তার করতে পারিনি৷ মামলার তদন্ত চলছে৷ আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি৷ ধর্ষণ বা আটকে রেখে ধর্ষণের কোনো আলামত এখানো পাইনি৷ আর ধর্ষণের অভিযোগও করা হয়নি৷''

অডিও শুনুন 01:51

স্বামী যা বললেন....

সবশেষে ওই নারীর স্বামীর সঙ্গেও ডয়চে ভেলের প্রতিবেদকের টেলিফোনে কথা হয়৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘ দীর্ঘদিন ধরে সে (অভিযুক্ত) আমাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছিল৷ সে বলছিল আমাদের বাড়ি যখন খুশি আসবে৷ ঘটনার রাতে আমি বাড়ির নীচতলায় ঘুমিয়ে ছিলাম৷ আর আমার স্ত্রী দোতলায়৷ রাত ১২টার পর ঘুম ভেঙ্গে গেলে আমি উপরে কথার শব্দ শুনতে পেয়ে গিয়ে দেখি সে আমার স্ত্রীর সঙ্গে বসে আছে৷ আমাকে দেখে পালাতে দিয়ে আমার স্ত্রীর পায়ে কোপ দেয়৷''

তিনি বলেন, ‘‘গত ১২ দিন ধরে সে (অভিযুক্ত) পলাতক আছে৷ আগে ভয়ে মামলা করিনি, পরে করেছি৷'' তিনি আরো জানান, পাশেই তেরখাদা উপজেলায় তার শ্বশুর বাড়ি৷ সেখানেই এখন তার স্ত্রী আছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়