1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মোদী সরকারের সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্কের মূল্যায়ন

বিজেপির নেতৃত্বাধীন নতুন মোদী সরকারের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ঝালিয়ে নিতে রুশ উপ-প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি রোগোজিন এখন ভারতে৷

বুধবার উচ্চস্তরের এক বৈঠকে তিনি মিলিত হন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে৷ মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম, ভারতের সঙ্গে রাশিয়ার উচ্চস্তরীয় বৈঠক হয় বুধবার৷ দুই দিনের দিল্লি সফরে এসে রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি রোগোজিন এবং ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ মূল্যায়ন করেন দু'দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্কের৷ এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ব্যবসা-বাণিজ্য, প্রতিরক্ষা, পরমাণু শক্তি ও মহাকাশ গবেষণা সহযোগিতা ইত্যাদি৷

আঞ্চলিক সম্পর্কের প্রেক্ষাপটে পাকিস্তানকে আক্রমণাত্মক এম-আই ৩৫ হেলিকপ্টার বিক্রির প্রসঙ্গও ওঠে৷ কারণ, রাশিয়া এর আগে এই ধরণের হেলিকপ্টার বিক্রির সম্ভাবনার কথা অস্বীকার করেছিল৷ কিন্তু এ মাসের গোড়ায় পাক-প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানান যে, এম-আই ৩৫ হেলিকপ্টার কেনার বিষয়ে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা চলছে, যা খুব শীঘ্রই চূড়ান্ত হয়ে যাবে৷ উল্লেখ্য, রুশ নির্মিত ভারতের পুরানো বিমানবাহী জাহাজ গর্ভাচভকে নতুন করে সাজিয়ে গুছিয়ে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের দীর্ঘ টালবাহানা কাটিয়ে চার বছর বিলম্বের পর সম্প্রতি ভারতের হাতে তুলে দেয় মস্কো, যার ভারতীয় নাম এখন ‘‘বিক্রমাদিত্য''৷ বলা বাহুল্য, ভারতীয় জনতা পার্টি বা বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর পরিবর্তিত বিশ্ব পরিস্থিতিতে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে একটা ভারসাম্য রাখতে চায় রাশিয়া৷ অন্তত এমনটাই মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা৷

দ্বিপাক্ষিক এই বৈঠকের অন্যতম আলোচ্য বিষয় ছিল বেসামরিক পরমাণু সহযোগিতা৷ তামিলনাড়ুর কুড়ানকুলামে রাশিয়ার সহযোগিতায় দুটি চুল্লি পুরোপুরি চালু হয়ে গেছে৷ প্রতিটির উৎপাদন ক্ষমতা ১,০০০ মেগাওয়াট করে৷ কিন্তু গোল বেধেঁছে তৃতীয় এবং চতুর্থ চুল্লি নিয়ে৷ কারণ, কড়ানকুলাম কেন্দ্রের তিন ও চার নম্বর চুল্লি সংক্রান্ত ভারত-রুশ ‘জেনারেল ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি' অনুযায়ী ভারতের পরমাণু সুরক্ষা আইনে পরমাণু শক্তি কেন্দ্রে যদি কোনো দুর্ঘটনা হয়, তাহলে ঐ কেন্দ্রের পরমাণু সাজসরঞ্জাম সরবরাহকারী রাশিয়ান সংস্থাগুলির দায়বদ্ধতা থাকবে এবং তাদের ক্ষতিপূরণও দিতে হবে৷ প্রথম দিকে রাজি না হলেও এখন নীতিগতভাবে এটা মেনে নিয়েছে মস্কো৷

স্বাভাবিকভাবেই, আন্তর্জাতিক প্রসঙ্গে আলোচনায় উঠে আসে ইউক্রেন পরিস্থিতি৷ ক্রাইমিয়ার দখল নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য ইইউ দেশগুলি রাশিয়ার ওপর যে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে, ভারত তার সঙ্গে পুরোপুরি একমত নয়৷ ভারত মনে করে, একতরফাভাবে কোনো দেশের বিরুদ্ধে এই ধরণের নিষেধাজ্ঞা জারি না করে রাজনৈতিক বা কূটনৈতিক পথে এর মীমাংসা করা প্রয়োজন৷

কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক প্রবীর দে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ভারতকে চার দশক ধরে আন্তর্জাতিক মঞ্চে সমর্থন দিয়ে আসছে রাশিয়া৷ তা সে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ হোক বা সিকিমের ভারতভুক্তি হোক৷ ১৯৭৫ সালে সিকিমের ভারতভুক্তি নিয়ে ক্রাইমিয়ার অনুরূপ পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছিল৷ রাশিয়া সে সময় ভারতকে সমর্থন করায় চীনের হুমকি নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে৷ কিন্তু এখন, ক্রাইমিয়ার পরিস্থিতিতে ভারতকে মধ্যপন্ধা নিতে হচ্ছে৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলির সঙ্গে ভারতের আর্থিক ও কৌশলগত সহযোগিতা ভারতের কাছে যেমন জরুরি, তেমনি রাশিয়ার সঙ্গেও তারা বেইমানি করতে পারে না৷ ইরাক পরিস্থিতি নিয়েও উভয়পক্ষের মত বিনিময় হয়৷ ইরাকে শিয়া-সুন্নি লড়াই ক্রমশই গৃহযুদ্ধের চেহারা নিতে চলেছে, যেটা আন্তর্জাতিক শান্তি, সুস্থিতি ও অশোধিত তেল সরবরাহ বিপন্ন করে তুলতে পারে৷ কাজেই এই গৃহযুদ্ধ এবং আন্তর্জাতিক সন্ত্রাস অবিলম্বে দমন করা উচিত ভারত ও রাশিয়া উভয়ের স্বার্থেই৷

বৃহস্পতিবার রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী সাক্ষাৎ করবেন প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে৷ বৈঠক করবেন ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অরুণ জেটলি এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গেও৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়