1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

মে দিবসের গান

পয়লা মে - আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস৷ উনবিংশ শতাব্দীর শেষার্ধে প্যারিসে শ্রমিকদের যে আন্দোলন শুরু হয় তার রেশ ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে৷ এই শ্রমিক দিবসকে নিয়ে বাঁধা হয়েছে বহু গান৷

default

বহু রক্তের বিনিময়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে শ্রমিক সম্প্রদায়ের ন্যায্য অধিকার এবং স্বীকৃতি পেয়েছে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস৷ তবে শুরুটা হয়েছিল প্যারিসে৷

১৮৭১ সালের মার্চ থেকে মে পর্যন্ত প্যারিস নগরী শাসন করেছিল কার্যত প্যারিস কমিউন - সমাজতন্ত্রীদের নিয়ন্ত্রিত নগর পরিষদ৷ কমিউন প্রতিষ্ঠিত হবার দু মাস পর ভার্সাই এর সেনাদলের সাথে রাস্তায় রাস্তায় রক্তাক্ত সংঘর্ষে পরাজিত হয় শ্রমিক অধিকারের এই আন্দোলন৷এই সময় ফরাসি কমিউনিস্ট এবং পরিবহন কর্মচারী ইউজিন পোটিয়ে রচনা করেন বিশ্ব শ্রমিক আন্দোলনের গান ‘ইন্টারনাসিওনালে'৷

পনেরো বছর পর অর্থাৎ ১৮৮৬ সালের ১লা মে আমেরিকার শিকাগো শহরে সাধারণ শ্রমিক ধর্মঘট শুরু হয়৷এই ধর্মঘটের লক্ষ ছিল কাজের সময় দৈনিক আট ঘন্টায় সীমিত করা৷ চৌঠা মে পুলিশ বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে বহু শ্রমিক নিহত ও আহত হন৷ ‘হে মার্কেট' নামে খ্যাত এই আন্দোলন প্রায় নির্জীব হয়ে এলেও শ্রমিক ইউনিয়নের অধিকার আদায়ের নিরলস প্রচেষ্টা থেমে যায়নি৷

১৮৮৯ সালে ‘হে মার্কেট' দাঙ্গায় নিহত শ্রমিকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে, প্যারিসে সমাজতন্ত্রী ও শ্রমিক পার্টি, পয়লা মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে ঘোষণা করে৷ এর পরের বছরই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মে দিবসে শ্রমিক ধর্মঘট ও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়৷ বিখ্যাত প্রতিবাদী সংগীত তারকা পিট সিগার ‘টকিং ইউনিয়ন' গানের মধ্য দিয়ে শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধভাবে ন্যায্য অধিকার আদায়ের প্রতি সমর্থন জানান৷

শ্রমিকদের প্রতিবাদ ভাঙতে মালিকপক্ষ চাপ সৃষ্টি করতে দ্বিধা করেনি৷ ধর্মঘটের নেতারা

ছিলেন তাদের কাছে সব গোলমালের সূত্র৷ ফলে শ্রমিকদের দাবির কথা বলেছেন যাঁরা, তাঁরা কঠোর দমননীতির শিকার হয়েছেন৷ এমনই একজন ছিলেন জো হিল৷ অভিবাসী শ্রমিক ও সংগীত রচয়িতা জো হিলকে হত্যার অভিযোগে প্রাণদণ্ড দেয়া হয় ১৯১৫ সালে৷ হিল অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করেন বারবার৷ তাঁরই নামে বাঁধা হয়েছে একটি গান যা অমরত্বের দাবি করতে পারে৷ কন্ঠ দিয়েছেন কিংবদন্তি সংগীত তারকা জোয়ান বায়েজ৷

প্রতিবেদনঃ মারুফ আহমদ

সম্পাদনাঃ আব্দুলাহ আল- ফারুক