মেয়েদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ বন্ধ করতে পুরুষদের ভূমিকা মুখ্য | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 06.02.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

মেয়েদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ বন্ধ করতে পুরুষদের ভূমিকা মুখ্য

সতীত্বের প্রমাণ হিসেবে মেয়েদের যৌনাঙ্গচ্ছেদ রোধ করতে পুরুষদের মুখ্য ভূমিকা পালন করতে হবে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ ও গবেষকরা৷

default

সোমালিয়ার নয় বছরের এই মেয়েটির যৌনাঙ্গচ্ছেদের পর তা সারাতে পা বেঁধে রাখা হয়েছে

মেয়েরা যেন সহবাস উপভোগ করতে না পারে বা সতীত্ব রক্ষার নামে আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে সাধারণত এ ধরণের ঘটনা ঘটে থাকে৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক হিসেব অনুযায়ী, ঐ দুই মহাদেশের ২৮টি দেশের প্রায় ১২০ থেকে ১৪০ মিলিয়ন নারী অমানবিক এই ঘটনার শিকার হয়েছেন৷

আফ্রিকার দেশ মালির এক কর্মকর্তা বলছেন, যদি পুরুষরা মেয়েদের উপর চালানো এই অমানবিক প্রক্রিয়াটির বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় তাহলে পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে৷ কারণ কোনো নারীকে তিনি কোনোদিন দেখেন নি যে নিজে থেকে বলছে যে তার মেয়ের যৌনাঙ্গচ্ছেদ করতে হবে৷

মৌরিতানিয়ার নৃবিজ্ঞানী আব্দুলায়ে সো বলেছেন, যৌন বিষয় নিয়ে আলোচনা করাকে আফ্রিকাতে ট্যাবু হিসেবে ধরা হয়৷ সেখানে জোর করে মেয়েদের যৌনাঙ্গ কেটে দেয়া হয়৷ তিনি বলছেন, যদি পুরুষরা বুঝতে পারে যে কাজটি স্বাস্থ্যসম্মত নয় বা ঝুঁকিপূর্ণ, তাহলে এটি বন্ধ করা সম্ভব৷ সো বলছেন, পুরুষরা বিয়ের দিন মেয়েদের সতীত্বের ব্যাপারে বেশী নজর দেয়, আর যৌনাঙ্গচ্ছেদই মেয়েদের সতীত্বতার প্রমাণ বলে অনেক দেশে মনে করা হয়৷

ইউনিসেফের মতে, মেয়েদের যৌনাঙ্গচ্ছেদের কারণে তাদের শরীরে তাত্ক্ষনিক ও দীর্ঘমেয়াদী নানান সমস্যা দেখা দেয়৷ জানা গেছে, এর ফলে অনেক মেয়ের মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে, কারণ অধিকাংশ ক্ষেত্রে এই অমানবিক কাজটি করানো হয় অনভিজ্ঞ লোক দ্বারা৷ এছাড়া, কোনো ধরণের অ্যানেস্থেসিয়া ছাড়াই এ কাজটি করা হয়ে বলে এতে যেমন প্রচুর রক্তপাত হয় তেমন মেয়েরা ব্যাথাও পায়৷

মেয়েদের যৌনাঙ্গচ্ছেদের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে শনিবার সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক যৌনাঙ্গচ্ছেদ বিরোধী দিবস পালন করা হচ্ছে৷

প্রতিবেদন : জাহিদুল হক

সম্পাদনা : দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়