1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

মেয়েদের এগিয়ে নিতে যাচ্ছে মিলেনিয়াম ভিলেজ প্রকল্প

ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্যের দেওঘর জেলার সারওয়ান ব্লকে চলছে জাতিসংঘের মিলেনিয়াম উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের প্রচেষ্টা৷ দুটি এনজিও সেখানে কাজ করছে মানুষদের বিভিন্নভাবে সাহায্য করতে৷

default

ভারতীয় মহিলা

মহিলা এবং অল্প বয়স্ক মেয়েদের বিভিন্নভাবে সাহায্য করছে সেন্টার ফর সলিডারিটি এবং প্রভা নামক দু'টি সংস্থা৷ ববিতা সিনহা কাজ করছে এই প্রকল্পে৷ তিনি জানান, ‘‘আমরা চাইছি মহিলাদের সমানভাবে গ্রহণ করা হোক – পরিবারে এবং সমাজে৷ যদি কোন গ্রামে উন্নয়ন বিষয়ক কোন আলোচনার আয়োজন করা হয় বা গুরুত্বপূর্ণ কোন ইস্যু নিয়ে কথা হয় – আমাদের প্রশ্ন মহিলারা সেখানে থাকবে না কেন ? মহিলাদের ওখানে থাকতে হবে৷ তাঁদের কথা অন্যদের শুনতে হবে৷''

শুধু এসব ক্ষেত্রে নয় একটি মহিলার ব্যক্তিগত জীবনে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো একজন নারী যেন নিজেই নিতে পারে সেই লক্ষ্য পূরণে কাজ করছেন ববিতা সিনহা৷ মহিলাদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে৷ ববিতা আরো বললেন, ‘‘তাঁদের নিজের জীবনে, তাঁদের গর্ভবতী হওয়া উচিৎ কিনা, তাঁদের কটা বাচ্চা হওয়া উচিৎ, তাঁদের পরিবার-পরিকল্পনার বিভিন্ন নীতি মেনে চলা উচিৎ কিনা – এ ধরণের সিদ্ধান্ত একজন মহিলা নিজেই নেবে৷ কার কী অধিকার রয়েছে তা জানা উচিৎ৷ আমাদের মূল যে লক্ষ্য সেটা হচ্ছে ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত, যেমন – আমার নিজের জীবনকে আমি কীভাবে পরিচালিত করবো এবং অবশ্যই একটা গ্রামে কীভাবে অন্যান্যদের সঙ্গে নিজেকে উপস্থাপন করবো – তা প্রতিটি মহিলাকেই জানতে হবে৷''

Sawan in Patna

নিজেকে স্বাবলম্বী করা বা আশেপাশের মানুষদের স্বাবলম্বী হতে সাহায্য করা – সে বিষয়েও কাজ করা হচ্ছে৷ মহিলারা নিজেদেরই আর্থিকভাবে সাহায্য করছে৷ ববিতা সিনহা বললেন, ‘‘সেল্ফ-হেল্প গ্রুপ হচ্ছে একটা ছোট গ্রুপ যেখানে ১২ থেকে ১৩ জন মহিলা একটি গ্রুপ তৈরি করেন৷ সেই দলের কিছু নিয়ম আছে – যেখানে তাঁদেরকে প্রতি মাসে মিটিং করতেই হবে৷ তাঁদেরকে খুব অল্প পরিমাণে টাকা প্রতি মাসে জমা করতে হবে৷ সেটা দশ বা কুড়ি টাকা হতে পারে, তবে কত টাকা জমা করতে হবে সেই সিদ্ধান্ত নেবে গ্রুপ৷ এই গ্রুপ তৈরির পেছনে আমাদের একটি উদ্দেশ্য ছিল৷ আসলে সেখানে মহাজনদের যথেষ্ঠ প্রভাব ছিল৷ মহাজনরাই সব টাকা এসব দরিদ্র পরিবারের কাছ থেকে নিয়ে নিত৷ যদি কোনো মহিলার একশো, পাঁচশো বা এক হাজার টাকার প্রয়োজন হত, তাঁরা চলে যেতেন মহাজনের কাছে৷ এবং সবসময়ই কিছু না কিছু বন্ধক দিয়ে টাকা নিয়ে আসতেন৷ এর ফলে সারাক্ষণই একটি আর্থিক বোঝা ওঁদের কাঁধে থাকতো৷ এখন ওঁদের নিজেদেরই একটা ব্যাঙ্ক রয়েছে৷ যেখান থেকে প্রয়োজনে ওঁরা টাকা তুলে নিচ্ছেন৷ মহাজনের কাছে যাওয়ার আর প্রয়োজন হচ্ছে না৷''

অর্থাৎ মহাজনের কাছ থেকে টাকা ধার নেওয়া বন্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে৷ কথা সত্যি, আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়া মানে সত্যিকার অর্থেই অনেক দূর এগিয়ে যাওয়া৷ এখন মহিলাদের নিজেদের একটি ছোট্ট ব্যাংক রয়েছে৷ প্রয়োজনে সেখান থেকেই তাঁরা অর্থ সংগ্রহ করেন৷ এই ব্যাংকটি চলে স্থানীয় মহিলাদের নিজস্ব নিয়ম-নীতিতে৷ হয়তো কারোর মেয়ের বিয়ের জন্য বা কেউ অসুস্থ হয়ে পড়ল৷ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া জরুরি অথবা চিকিৎসার জন্য ওষুধ কেনা প্রয়োজন – এ'সব ক্ষেত্রে টাকার দরকার৷ অথবা বাচ্চাদের স্কুলের বই-খাতা কেনার জন্য টাকার প্রয়োজন৷ এই খরচগুলো উঠে আসছে এই ব্যাংক থেকে৷ মহাজনের কাছে আর যাওয়ার প্রয়োজন পড়ছে না৷

এর পাশাপাশি রয়েছে মেয়েদের স্কুলে ফেরত পাঠানোর কর্মসূচি৷ যেসব মেয়েরা একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর আর স্কুলে যায়নি, তাদের পড়াশোনায় উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে৷ ববিতা সিনহা জানালেন কীভাবে তাঁরা সাহায্য করতে চাচ্ছেন৷ ববিতার কথায়, ‘‘দেখা গেছে অনেক গ্রামে বিশেষ করে যেখানে আমরা কাজ করছি, সেখানে ক্লাস ফাইভের পর মেয়েরা আর স্কুলে যাচ্ছে না৷ সেখানে মেয়েদের ড্রপ-আউট সবচেয়ে বেশি৷ এটা মেনে চলা হয় যে, মেয়ে যদি শুধুমাত্র চিঠি পড়তে পারে বা মেয়ে শুধু যদি অক্ষর চিনতে পারে – সেটাই যথেষ্ঠ৷ পড়াশোনা প্রচুর হয়ে গেছে এবার বাড়িতে থাকো৷ আমরা চেষ্টা করছি যে সব ড্রপ-আউট মেয়ে আছে, এদের আলাদাভাবে ক্লাসের ব্যাবস্থা করতে৷ যে বিশাল ব্যবধান বা গ্যাপ হয়েছে পড়াশোনায় – তা পূরণ করার চেষ্টা করছি আমরা৷ যেমন যে ক্লাস ফাইভে পড়াশোনা ছেড়ে দিল, এখন যা বয়স তাতে তার ক্লাস নাইনে পড়ার কথা৷ এই চার বছরের গ্যাপ আমরা কোচিং দিয়ে পূরণের চেষ্টা করি৷ একে আমরা বলছি ব্রিচিং গ্যাপ৷''

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়