1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইউরোপ

মোবাইল ‘রোমিং’ চার্জ বাতিল করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন

ইউরোপের মধ্যে মোবাইল ব্যবহারেরক্ষেত্রে এক যুগান্তকারী ঘটনা ঘটছে৷ ১৫ জুন থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে মোবাইল ব্যবহারের ক্ষেত্রে ভ্রমণকারীদের আর বাড়তি ‘রোমিং চার্জ’ দিতে হবে না৷

এটাকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর বিজয় মনে করা হচ্ছে৷ ব্রাসেলস যে টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানিগুলোর শোষণ থেকে তার নাগরিকদের রক্ষায় সক্ষম তার এক উদাহরণও হতে চলেছে বিষয়টি৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে মোবাইল ফোনের রোমিং চার্জ আর থাকছে না৷ অর্থাৎ এক দেশের মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী অন্য দেশে গিয়েও একই রেটে ফোনে কথা বলতে বা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন৷ তবে জার্মানি এবং স্পেনের একাধিক লবি গ্রুপ এখনো এই প্রক্রিয়ায় কিছু সমস্যা রেখে দিয়েছে৷

গত এক দশক ধরেই চলছিল চেষ্টা৷ ইইউভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে মোবাইল ব্যবহারের ক্ষেত্রে রোমিং চার্জ প্রত্যাহারের সেই চেষ্টা নানা সময় বাধাগ্রস্ত হয়েছে৷ তবে সাফল্য শেষমেশ ধরা দিল৷ ফলে ইইউভিত্তিক মোবাইল ব্যবহারকারীরা এখন আরো মুক্তভাবে ঘুরতে পারবেন এই অঞ্চলের মধ্যে৷ ফোন, এসএমএস বা ইন্টারনেটের জন্য তাদের আর বাড়তি পয়সা গুণতে হবে না৷ 

তবে নতুন এই প্রক্রিয়ায় এখনো কিছু জটিলতা রয়ে গেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷ যেমন, টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানিগুলো এখনো চাইলে অন্য দেশে বসে উচ্চগতির ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে সীমা নির্ধারণ করে দিতে পারবে৷ আর কিছু দেশের মোবাইল সেবাদাতারা চাইলে তাদের নিজস্ব নিয়মনীতি অনুযায়ী চলতে পারবে৷ ফলে অন্য দেশে যাওয়ার পর একজন মোবাইল ব্যবহারকারীকে বুঝতে হবে যে তিনি কোন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করছেন৷ সুইজারল্যান্ড, ব্রিটিশ চ্যানেল দ্বীপপুঞ্জ, মোনাকো, অ্যান্ডোরা এবং সান মারিনো'র ক্ষেত্রে এটা প্রযোজ্য৷

জার্মানির ভোক্তা অধিকার বিশেষজ্ঞ সুজানে ব্লোম মনে করেন, নতুন ব্যবস্থায় কিছু অপ্রয়োজনীয় জটিলতা রাখা হয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি যদি জার্মানি থেকে ছুটি কাটাতে স্পেন যাই, তাহলে সেখান থেকে জার্মানিতে একই রেটে ফোন করতে পারবো৷ কিন্তু জার্মানিতে থাকাকালীন যদি আমি বিদেশে ফোন করি তাহলে আন্তর্জাতিক রেট প্রযোজ্য হবে৷''

ব্লোম মনে করেন, আন্তর্জাতিক কলের বিষয়টিও নতুন চুক্তিতে অন্তর্ভুক্তির দরকার ছিল৷ তিনি বলেন, ‘‘ভোক্তা অধিকার সংগঠনের পক্ষ থেকে আমরা আন্তর্জাতিক কলের বিষয়টি নতুন আইনে রাখতে বলেছিলাম৷ কিন্তু সেটাকে কখনোই সমঝোতার টেবিলে তোলা হয়নি৷''

ইউরোপীয় ইউনিয়নের তরফ থেকে অবশ্য জানানো হয়েছে, আন্তর্জাতিক কলের বিষয়টি নিয়ে তারা অবগত এবং ভবিষ্যতে এক্ষেত্রে একটি সমাধান হবে বলে আশা করা হচ্ছে৷

প্রতিবেদন: বেন নাইট/এআই

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়