1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মোবাইলে ছবি তুলে জগৎজোড়া খ্যাতি

মোবাইলে ছবি তুলে কি জগৎজোড়া খ্যাতি অর্জন সম্ভব? কেন নয়! জার্মানির এক শৌখিন আলোকচিত্রী বিশ্বজুড়ে সাড়া জাগিয়েছেন বিভিন্ন স্থাপনার ব্যতিক্রমী ছবি তুলে৷ ইন্সটাগ্রামের মাধ্যমে সেসব ছবি অনলাইনে প্রদর্শন করেন তিনি৷

স্থাপত্যশিল্পের ছবিগুলো দেখলে মনে হবে একেবারে নিঁখুতভাবে তোলা৷ তবে পেশাদার আলোকচিত্রীদের তোলা নয়৷ বরং স্মার্টফোনে এগুলো তুলেছেন শৌখিন আলোকচিত্রীরা৷ এডিটিং বা সম্পাদনাও ফোনেই করা৷

তাদেরই একজন সেবাস্টিয়ান ভাইস৷ চাকরিসূত্রে ডিজাইনার এই শৌখিন আলোকচিত্রী ১৫ বছর আগে ছবি তুলতে শুরু করেন৷ ২০১০ সালে মোবাইলে ইন্সটাগ্রাম ডাউনলোড করেন তিনি৷ বর্তমানে স্থাপত্যশিল্পের ছবি তুলে বিশ্বখ্যাত তিনি৷

স্মার্টফোন আলোকচিত্রী সেবাস্টিয়ান ভাইস বলেন, ‘‘চার বছর আগে যখন শুরু করেছিলাম, তখন ভাবিনি যে এই পর্যায়ে পৌঁছাব৷ সত্যি বলতে কি আমি তখন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছিলাম৷ তবে এখন ভালো লাগছে যে মানুষ আমার কাজ পছন্দ করেছে৷ তাদের মন্তব্য পড়ে অনেক ভালো লাগে৷'

মাঝেমাঝে হঠাৎ করেই ছবি তোলার বিষয় পেয়ে যান সেবাস্টিয়ান৷ কখনো কখনো পরিকল্পনা করেই নির্দিষ্ট স্থাপনার ছবি তোলেন তিনি৷ স্মার্টফোনের নির্দিষ্ট আকারের কথা বিবেচনায় রেখে ছবি তোলেন সেবাস্টিয়ান৷ তবে এটাই ছবি তোলার ক্ষেত্রে তাঁর একমাত্র শর্ত নয়৷

ইন্সটাগ্রামে স্কয়ার পোলারয়েড ফর্মেটের ছবি পোস্ট করা যায়৷ ফলে ছবি তোলার সময়ই শেপটি ঠিক থাকা জরুরি৷ তাছাড়া সেবাস্টিয়ান ছবি খুব বেশি সম্পাদনা করতে পছন্দ করেন না৷ তবে শেপ ঠিক রাখার জন্য মাঝেমাঝে বিশেষ অ্যাপ ব্যবহার করেন তিনি৷

ছবি তোলার পর সেটিতে ‘ব্র্যানান' কালার ফিল্টার যোগ করেন সেবাস্টিয়ান৷ এরপর আপলোড করেন ইন্সটাগ্রামে৷ তিনি বলেন, ‘‘কাজের এই নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া শুরু থেকেই স্থির হয়ে গেছে৷ আর এটা আমার ফিডের মার্কেটিংয়েও কাজে লাগছে৷ তাছাড়া আমি মনে করি, ধারাবাহিকভাবে একটি ফিডে বিস্তারিত কন্টেন্ট জমা করলে সেটির প্রতি মানুষের আগ্রহও দীর্ঘস্থায়ী হয়৷''

বার্লিনের আর্টস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিজাইন বিষয়ে উচ্চশিক্ষা নিয়েছেন সেবাস্টিয়ান৷ ইন্সটাগ্রামে তাঁকে পাওয়া যাবে ‘ল্য ব্লঁ' নামে৷ তাঁর এক লাখ সতের হাজারের মতো অনুসারী রয়েছে৷ ছবি তোলার সময় স্থাপত্যের অরগ্যানিক ফর্ম তুলে ধরার চেষ্টা করেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক