1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

মোটা শিশুদের একটা নয়, শত বিপদ

সবাই জানেন, মোটা হলে শরীরে রোগ বাসা বাঁধে৷ বাসাটা যে মানুষ বড় হলেই বাঁধে তা কিন্তু নয়৷ জার্মান গবেষকরা দেখেছেন, অল্প বয়সি শিশুরাও আজকাল শুধু মোটা হওয়ার কারণে অল্প অল্প করে এগিয়ে যাচ্ছে জটিল রোগে আক্রান্ত জীবনের দিকে৷

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জার্নাল ‘অ্যাক্টা পেডিয়াট্রিকা'-য় প্রকাশিত হয়েছে একটি নিবন্ধ, সেখানে ১০০ জন মোটা শিশুকে নিয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা থেকে জার্মানির ইয়েনা এবং হোহেনহাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, মুটিয়ে যাওয়া শিশুদের অনেকের পিতা-মাতাও শুরুতে বুঝতে পারেন না তাঁদের সন্তানরা ক্রমশ বড় বিপদের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে৷ গবেষক দলের প্রধান ইনা ব্যার্গহাইম জানান, অধিকাংশ ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হলেও শিশুদের বেশি ওজনের কারণে যেসব রোগ হতে পারে সেগুলো নিয়ে ভাবাই হয় না, ফলে রোগনির্ণয়েও ব্যর্থ হন চিকিৎসকরা৷

গবেষকরা শুধু মোটা শিশুদের নিয়েই কাজ করেননি৷ ১০০ জন মোটা শিশুর পাশাপাশি ৫১ জন স্বাভাবিক স্বাস্থ্যের শিশুরও কিছু পরীক্ষা করেছেন তাঁরা৷ শিশুদের বয়স ছিল পাঁচ থেকে আট বছরের মধ্যে৷ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গবেষকরা দেখেছেন স্বাভাবিক স্বাস্থ্যের শিশুদের শতকরা মাত্র ১৬ ভাগ অন্তত একটি জটিল রোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকিতে রয়েছে৷ মোটা শিশুদের অবস্থা অনেক খারাপ৷ তাদের শতকরা ৭৩ ভাগ ছিল একই রকমের ঝুঁকিতে৷ গবেষকরা জানান, মোটা হবার কারণে শিশুদের মধ্যে উচ্চরক্তচাপ, রক্তে চর্বি এবং কোলেস্টরেল বেড়ে যাওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে৷

সন্তান মোটা হলে অনেক বাবা-মা কম খাওয়াতে শুরু করেন৷ ‘অ্যাক্টা পেডিয়াট্রিকা'-য় প্রকাশিত নিবন্ধে বলা হয়েছে, শিশুরা কম খেলে লাভ হয় না, উল্টো ক্ষতির আশঙ্কাই বাড়ে৷ গবেষকদের পরামর্শ একটাই – অল্প অল্প করে হলেও প্রতিদিন কোনো না কোনো রকমের শারীরিক পরিশ্রম করা৷ সেটা হতে পারে শরীর থেকে ঘাম বের করে আনে এমন খেলাধুলা কিংবা হালকা ব্যায়াম করা৷

ইনা ব্যার্গহাইম জানান, যেসব শিশুদের নিয়ে তাঁরা কাজ করেছেন, তাদের কেউ কেউ প্রতিদিন মাত্র ১৫০ থেকে ২০০ কিলো ক্যালরি অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণ করতো৷ এমনিতে ছোট একটা চকলেটবার খেলেই ওই পরিমাণ ক্যালরি চলে যায় শরীরে৷ তবে প্রতিদিন এভাবে অল্প অল্প অতিরিক্ত ক্যালরি নিতে নিতেই একসময় বেশ মোটা হয়ে যায় শরীর৷ তা থেকে বাঁচার একমাত্র উপায়, খেলাধুলা অথবা ব্যায়াম৷

এসিবি/ডিজি (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন