1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মেলানিয়া ট্রাম্প কেমন ফার্স্ট লেডি হবেন?

পয়লা ফেব্রুয়ারি আইওয়ার ককাস; নভেম্বরে নির্বাচন৷ ডোনাল্ড ট্রাম্প যে আগামী মার্কিন প্রেসিডেন্ট হবেন না, এমনটা আর নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না৷ তাহলে তাঁর ফার্স্ট লেডি কেমন হবেন?

অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস সংবাদ সংস্থা সম্প্রতি এ নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করেছে৷ মিসেস ট্রাম্পের বয়স আজ ৪৫; ট্রাম্পের সঙ্গে তাঁর বিয়ের একাদশ বার্ষিকী ছিল গত ২২শে ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার৷ মেলানিয়া ডোনাল্ডের তৃতীয় স্ত্রী ও স্বামীর চেয়ে ২৪ বছরের ছোট৷ উভয়ের ন'বছর বয়সি পুত্রের নাম ব্যারন৷

ম্যানহাটান, ১৯৯৮ সাল৷ ট্রাম্প তখন সবে বিবাহবিচ্ছেদের পর আবার সিঙ্গল৷ একটি পার্টিতে আলাপ হয় ফ্যাশন মডেল মেলানিয়া ক্নাউসের সঙ্গে৷ আলাপ হবার পর মেলানিয়ার কাছ থেকে টেলিফোন নম্বর চান ডোনাল্ড৷ মেলানিয়া টেলিফোন নম্বর দেননি কারণ ডোনাল্ড পার্টিতে এসেছিলেন আরেক মহিলার সাথে৷ পরের বছরই কিন্তু তাদের ‘কাপল', অর্থাৎ যুগল হিসেবে দেখা যায়৷

২০০০ সাল৷ ট্রাম্প তখন রিফর্ম পার্টির প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হবার চেষ্টা করছেন৷ তাঁর বান্ধবী মেলানিয়াকে প্রশ্ন করা হয়, ফার্স্ট লেডি হলে তিনি কেমন ফার্স্ট লেডি হবেন? ‘‘আমি খুব ট্র্যাডিশনাল ফার্স্ট লেডি হব,'' নিউ ইয়র্ক টাইমসকে বলেন মেলানিয়া, ‘‘যেমন বেটি ফোর্ড বা জ্যাকি কেনেডি৷''

মেলানিয়া ট্রাম্প সুন্দরী; সাজগোজ আর ফ্যাশন সম্বন্ধে তাঁর বিশেষ কিছু জানতে বাকি নেই৷ মিডিয়া আর এক্সপোজারে অভ্যস্ত৷ ২০০৬ সালে ব্যারনকে পেটে নিয়ে সোনালি রঙের বিকিনি পরে ট্রাম্পের প্রাইভেট জেটের সিঁড়িতে দাঁড়িয়ে ‘ভোগ' ম্যাগাজিনের জন্য ছবি তুলিয়েছিলেন৷

মেলানিয়ার ইংরিজিতে বিদেশি টান আছে, অপরদিকে একাধিক ভাষা জানেন৷ জন্মের দেশ স্লোভেনিয়ার লিউবলিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিজাইন আর আর্কিটেকচার নিয়ে পড়াশুনা করেছেন৷ চ্যারিটি ওয়ার্ক করেন৷ কিন্তু রাজনীতি নিয়ে কথা বলতে ভালোবাসেন না৷ অথচ ব্যক্তিত্ব ও হিউমার, দু'টোই আছে৷ গত মাসেও হার্পার ম্যাগাজিনকে বলেছেন, ‘‘আই হ্যাভ মাই ওউন মাইন্ড'', আমার নিজস্ব ধ্যানধারণা আছে৷ ‘‘আই অ্যাম মাই ওউন পার্সন,'' আমি স্বাধীন, এবং ‘‘আমার স্বামী সেটা পছন্দ করেন বলেই আমি মনে করি৷'' ডোনাল্ড ট্রাম্পের টিভি শো ‘দ্য অ্যাপ্রেন্টিস'-এর এক ক্যান্ডিডেট একবার উচ্ছ্বাস করে মেলানিয়াকে বলেছিলেন, ‘‘আপনি ভীষণ, ভীষণ লাকি৷'' শ্যাম্পেনের গ্লাস হাতে নিয়ে মধুর হেসে মেলানিয়া জবাব দেন, ‘‘থ্যাংক ইউ৷ আর ও'' – মানে ডোনাল্ড ট্রাম্প – ‘‘কি লাকি নয়?''

মুশকিল শুধু এই যে, ট্রাম্প যে মহিলাকে বস্তুত তাঁর রাজনৈতিক উপদেষ্টা করেছেন, তিনি মেলানিয়া নন, বরং ট্রাম্পের ৩৩ বছর বয়সি কন্যা ইভানা ট্রাম্প – যিনি একাধারে সুন্দরী, ফ্যাশনিস্টা, বিজনেসউইম্যান ও ট্রাম্পের রিয়াল এস্টেট সাম্রাজ্যের কার্যনির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট৷ মেলানিয়া নন, ইভানকা-ই ডোনাল্ড ট্রাম্পকে তাঁর ক্যাম্পেনের সূচনায় ইন্ট্রোডিউস করেছিলেন৷ রিপাবলিকান ডিবেটগুলির ফাঁকে ফাঁকে ট্রাম্প যার সঙ্গে নিভৃতে পরামর্শ করেন, তিনি হলেন ইভানকা৷

কাজেই একজন ইন্টারেস্টিং ফার্স্ট লেডির সঙ্গে একটি ইন্টারেস্টিং ফার্স্ট ডটার – কিংবা হয়ত তারও বেশি – উপহার পেতে পারে অ্যামেরিকা৷

এসি/ডিজি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়