1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

‘মেড ইন জার্মানি' ড্রোনের চাহিদা বাড়ছে

মাইক্রোকপ্টার এমন এক যান, যা শূন্যে ভেসে উঠে নির্দিষ্ট অবস্থান থেকে প্রায় নিখুঁত ছবি তুলতে পারে৷ ‘মেড ইন জার্মানি' এই ড্রোন ক্যামেরা এতই নির্ভরযোগ্য, যে গোটা বিশ্বে তার চাহিদা বেড়েই চলেছে৷

উদ্ভাবক দুই ইঞ্জিনিয়ার জিপিএস প্রযুক্তির সাহায্যে ড্রোন নিয়ন্ত্রণ নিয়ে কাজ করছেন৷ একটি মানচিত্রে তাঁরা পরিকল্পিত যাত্রাপথের জায়গাগুলি স্থির করছেন৷ মাইক্রোকপ্টার প্রায় নিখুঁতভাবে সেই রুট অনুযায়ী উড়ে আকাশ থেকে চাহিদা অনুযায়ী ছবি তুলতে পারে৷ ইঙ্গো বুসকার বলেন, ‘‘শখের ড্রোন-চালকরা নিজেরাই চালাতে চান, কারণ তাঁরা পুরোপুরি নিজেরাই এই ওড়ার যন্ত্র তৈরি করতে পারেন৷ বিশ্ববিদ্যালয়গুলি এটি উচ্চশিক্ষার কাজে লাগায়, এরিয়াল ফটোগ্রাফার ও প্রত্নতাত্ত্বিকরাও এটি ব্যবহার করেন৷''

ছোট পরিসরে শুরু করেও এই স্টার্টআপ কোম্পানিকে আলাদা বিপণন বিভাগ চালু করতে হয়েছে৷ সেখান থেকে গোটা বিশ্বে যন্ত্রাংশ পাঠানো হয়৷ হাইসিস্টেমস কোম্পানি এরই মধ্যে বিশ্বের বাজারে তাদের আধিপত্য প্রমাণ করেছে৷ বুসকার বলেন, ‘‘এই যন্ত্রের বৈশিষ্ট্য হলো, এতে অপেক্ষাকৃত কম সংখ্যক মেকানিকাল অংশ রয়েছে৷ সহজ ব্রাশহীন মোটর, রক্ষণাবেক্ষণের ঝামেলা নেই বললেই চলে৷ ৪টি রোটর থাকলেই চলে৷ সঠিক সফটওয়্যারের সাহায্যে ওড়ে৷''

তবে হাতে তৈরি কিছু মাইক্রোকপ্টার ঠিকমতো উড়তে পারে না৷ এমনই এক গ্রাহক নিজে যন্ত্রাংশ জোড়া দিয়ে মাইক্রোকপ্টার তৈরি করে সেটা ওড়াতে পারছেন না৷ কয়েক মাস ধরে সেটি নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে উড়ছে, মুখ থুবড়ে পড়ে যাবার উপক্রম হয়েছে৷ ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতিতে গোলযোগ নেই বলেই মনে হচ্ছে, কিন্তু রোটর-এর নিয়ন্ত্রণ বিঘ্নিত হচ্ছে৷ দুই ইঞ্জিনিয়ারও প্রথমে এর কারণ বুঝতে পারেন নি৷ তারপর দেখা গেল, কিছু তার ন্যাভিগেশনে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে৷ একটু নাড়াচাড়া করে কেবেল নতুন করে সাজানো হলো৷ মেরামতির পর উড়ালের আগে উত্তেজনা তো থাকেই৷ তারপর দেখা গেল, মাইক্রোকপ্টার আবার প্রত্যাশামতো উড়ছে৷ তবে তার মালিক এখনো আরও উপরে ওড়ানোর সাহস পাচ্ছেন না৷ এর সহ-উদ্ভাবক হলগার বুস বলেন, ‘‘অতীতে দেখা গেছে, প্রপালশন প্রযুক্তি ও ব্যাটারির উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে আরও দীর্ঘ সময় ওড়ানো সম্ভব হয়েছে৷ ভবিষ্যতে তার পাশাপাশি ক্যামেরা প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও উন্নতি আশা করা যেতে পারে৷''

ক্যামেরা ড্রোন এখনই সরাসরি থ্রিডি ভিডিও সম্প্রসারণ করতে পারে৷ চলচ্চিত্রের শুটিং থেকে শুরু করে কনসার্ট বা খেলাধুলার ম্যাচে সেটি কাজে লাগানো সম্ভব৷ শূন্যে উঠে বাধাবিপত্তি দেখে অনায়াসে পাশ কাটিয়ে উড়ে যেতে পারে এমন ড্রোন৷ তাছাড়া স্থির হয়েও উড়তে পারে সেটি৷ প্রযুক্তি এতদূর এগিয়েছে, যে জুম করে আরও ভালোভাবে ফোকাস করতে পারে তার ক্যামেরা৷ তাছাড়া যেখান থেকে যাত্রা শুরু করেছে, ঠিক সেখানেই ফিরিয়ে আনার প্রযুক্তিও কাজে লাগানো হচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়