1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মৃত পশুপাখি ‘অমর' করে রাখার কৌশল

শিল্পী, ভাস্কর, প্যাথোলজিস্ট – এ সব পেশার নানা বৈশিষ্ট্য রপ্ত করতে পারলে মৃত্যুর পরেও পশুপাখিদের ‘জীবন্ত' করে রাখা যায়৷ তাদের শরীর স্টাফিং করার কাজ নানা চ্যালেঞ্জে ভরা৷ জার্মানির এক বিশেষজ্ঞ এই কাজকে নতুন মাত্রা দিচ্ছেন৷

বার্লিনের ন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়ামে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ডাইনোসরের কঙ্কাল শোভা পাচ্ছে৷ প্রায় ৩ কোটি বস্তুর সংগ্রহের মধ্যে এটাই সেরা আকর্ষণ৷ সেই সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত প্রায় ৪০০ কর্মীর মধ্যে একজন হলেন রোব্যার্ট স্টাইন৷ সংরক্ষণের মাধ্যমে মৃত প্রাণীকেও প্রায় জীবন্ত রূপ দেওয়া সত্যি একটা শিল্পকলার মতো৷ শুধু অ্যালকোহলে ডোবালেই কাজ শেষ হয় না৷

এ কাজে রোব্যার্ট স্টাইন বিশ্বের সেরাদের মধ্যে অন্যতম৷ ট্যাক্সিডার্মিস্ট হিসেবে তিনি প্রাণীগুলিকে অসাধারণ স্বাভাবিক এক রূপ দেন৷ বিশেষ করে পাখিদের ক্ষেত্রে তাঁর নিপুণতা নজর কাড়ার মতো৷ এই বিরল পেশার বিভিন্ন দিক সম্পর্কে খুব মানুষই খবর রাখেন৷ স্টাইন বলেন, ‘‘একজন ট্যাক্সিডার্মিস্ট অবশ্যই অন্য অনেক পেশার বিভিন্ন বিষয় রপ্ত করেছেন৷ যেমন প্যাথোলজি – কারণ আমরা প্রাণীর শরীর ব্যবচ্ছেদ করি৷ আবার ভাস্করের মতো আমাদের শরীরের মডেল তৈরি করতে হয়৷ শিল্পীর মতো প্রাণীর শরীরের অবয়ব স্থির করতে হয়৷ সবটাই এত ইন্টারেস্টিং বলে এই পেশা আমাদের খুব আনন্দ দেয়৷''

যে কমন কেস্ট্রেল পাখিটির শরীর সংরক্ষণ করা হচ্ছে, সেটিকে খুব আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছিল৷ কিন্তু তাকে বাঁচানো যায়নি৷

এখানকার বাকি সব প্রাণীর মতো এই পাখিটিরও স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছিল৷

পাখিটিকে আবার মূল রূপে ফিরিয়ে আনা খুবই পরিশ্রমের কাজ৷ সবার আগে শরীরের অনেক অংশ পুরোপুরি আলাদা করতে হয়৷ কোনো মাংস অবশিষ্ট থাকলে চলবে না৷ কারণ সে ক্ষেত্রে পরে পচন ধরতে পারে৷ অন্যদিকে গুরুত্বপূর্ণ হাড়গোড় ও মাথার খুলি অক্ষত রাখতে হয়৷ স্কেচ করে রোব্যার্ট স্টাইন পরিমাপগুলি খেয়াল রাখছেন৷ ত্বক ও পালক ভালোভাবে পরিষ্কার করলে তবেই পাখিটিকে ‘অমর' করে রাখা যাবে৷

নিপুণ হাতে স্টাইন নাজুক উপকরণ নিয়ে বিস্ময়করভাবে কাজ করেন রোব্যার্ট স্টাইন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা অবশ্যই যতটা সম্ভব জীবন্ত রূপ দেবার চেষ্টা করি৷ অর্থাৎ প্রকৃতির কোলে প্রাণীদের পর্যবেক্ষণ করি৷ তাদের আচরণ কীরকম? নির্দিষ্ট কিছু প্রাণীর বৈশিষ্ট্য কী? সে সবই স্টাফিং-এর সময় বজায় রাখার চেষ্টা করি৷ সেটি এতটাই জীবন্ত হবে, যে মনে হবে যে প্রাণীটি এখনই নড়ে উঠবে৷''

অক্লান্তভাবে এক্সপেরিমেন্ট চালিয়ে গেলেই এমন সৃষ্টির খেলা সম্ভব৷ সেরা কাজগুলিই প্রদর্শনীতে স্থান পায়৷ রোব্যার্ট স্টাইন-এর সৃষ্টিকর্ম একাধিক বিশ্বসেরা খেতাব পেয়েছে৷ কমন কেস্ট্রেল পাখিটির পুনর্জন্ম কতটা সফল হলো, প্রতিটি অংশ জোড়ার পর তা বোঝা যাবে৷ বহু বছর ধরে একই কাজ করা সত্ত্বেও তাঁর উৎসাহে ভাটা পড়েনি৷ তিনি বলেন, ‘‘স্টাফিং করার সময় যখন প্রাণীটিকে ‘চক্ষুদান' করা হয় এবং আকার-আয়তনে মূল রূপ পায়, তখন বলা যায়, বাঃ বেশ দেখতে হয়েছে৷ মনে বড় আনন্দ হয়৷''

সবার শেষে তিনি প্রাণীটির দাঁড়ানো ও ডানা মেলে ধরার ভঙ্গি স্থির করেন৷ প্রায়ই জীবন্ত রূপ দিতে বেশ কয়েক ঘণ্টা সময় লেগে যায়৷ মৃত্যুর পর জন্তুজানোয়ারদের আরও ‘জীবন্ত' করে তোলাকেই জীবনের ব্রত করেছেন রোব্যার্ট স্টাইন৷ অনেক পরিশ্রম করে তিনি এই চ্যালেঞ্জ পালন করেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়